প্রশ্ন ফাঁস: দায় কার?

ফজলে এলাহী আরিফ
| আপডেট : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:৫৮ | প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৬:০৭

প্রশ্ন ফাঁস একটি জাতীয় সমস্যায় পরিণত হয়েছে যা মহামারি রূপ ধারণ করেছে। এর ভয়াবহতা ঠেকানোর কিংবা নিয়ন্ত্রণের কি কোন উপায় নেই?

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে প্রাথমিক পর্যায় থেকে শুরু করে প্রায় সব পরীক্ষার প্রশ্ন পর্যন্ত ফাঁস হয়ে যাচ্ছে। পিইসি, জেএসসি, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস তো এখন সাধারণ ঘটনায় পরিণত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়। ব্যাংক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়। গত বছর তো নাটোরে প্রথম ও চতুর্থ শ্রেণির পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে।

ফাঁসকৃত প্রশ্নে পরীক্ষায় পাস করে আমাদের ভাবি প্রজন্ম হচ্ছে শিক্ষা প্রতিবন্ধী, হচ্ছে নীতিহীন। প্রশ্ন ফাঁস ঠেকানো না গেলে আমাদের দেশের ভবিষ্যত অবস্থা কী হতে পারে, তা খোলাসা করে বলার প্রয়োজন নেই। প্রশ্ন ফাঁস করে বা করিয়ে পরীক্ষায় পাস করে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম নির্বোধে পরিণত হচ্ছে।

আমাদের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হয়, নকল হয়। অনেক শিক্ষক বিএড সার্টিফিকেট অর্থের বিনিময়ে নিয়ে থাকেন। গত বছর শুনেছিলাম- ৬০০ শিক্ষকের সার্টিফিকেট পরীক্ষা করা হবে। একবার শোনা গিয়েছিল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক পিএইচডিধারী সহযোগী অধ্যাপক তথ্য জালিয়াতি করে নিয়োগ পেয়েছিলেন। এখন অনুদানের বিনিময়ে শিক্ষক নিয়োগ, ঘুষের মাধ্যমে এমপিওভুক্তিকরণ, টাইম স্কেল পরিবর্তন হয়। যে শিক্ষা ব্যবস্থায় এত এত জালিয়াতি হয়, সেখানে প্রশ্ন ফাঁস তো অবাক হওয়ার মত কোন বিষয় নয়। প্রশ্ন ফাঁস তো শিক্ষা বাণিজ্যেরই একটি উপাদান। প্রশ্ন ফাঁসের কারণ- পাসের হার বাড়ানো ও অর্থ উপার্জন।

পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস বিষয়ে গত বছর মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছিলেন, ‘প্রশ্ন ফাঁস নতুন কিছু নয়, এটা ১৯৬১ সালেও হতো’। আর দুদক বলেছিল, ‘শিক্ষা অধিদপ্তর, শিক্ষা বোর্ড ও বিজি প্রেস থেকে প্রশ্ন ফাঁস হয়’।

এই শিক্ষা অধিদপ্তর ও শিক্ষা বোর্ডকে নিয়ন্ত্রণ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও তার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা মস্তকহীন হয়ে গেছে; সেখানে পচন ধরেছে। আমাদের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দৃষ্টিহীন হয়ে গেছে। তাই অন্ধের মত আচরণ করছে। মাছের মাথায় যদি পচন ধরে, তাহলে শরীরের পচন কি রোধ করা যায়?

প্রশ্ন ফাঁস বিষয়টিকে জাতীয় সমস্যা হিসেবে বিবেচনা করে সমাধানের আশু উদ্যোগ নেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে। মানুষ সৃষ্ট এই সমস্যা নিরসনে সরকারের পাশাপাশি দেশপ্রেমিক জনগণের ঐক্যবদ্ধ সামাজিক আন্দোলন অতি আবশ্যক।

তবে প্রশ্ন ফাঁস রোধে টেকসই পদক্ষেপ গ্রহণ করার দায়িত্ব শুধুমাত্র সরকারের। মনিষীদের মতে, ‘মাছের পচন লেজে ধরলে যেমন পুকুর রক্ষা হয় না, তেমনি মানুষের পচন মাথায় ধরলে জাতি রক্ষা পায় না’।

মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী, প্রশ্ন ফাঁসের দায় আপনি নিজে নেবেন? নাকি আমি অভিভাবককে দেবেন? প্রশ্ন ফাঁসের মাধ্যমে পাস করা আমাদের ভবিষ্যত জাতি হবে, ‘শকুনজ্ঞ’ বা ‘পারদ খাওয়া পণ্ডিত’!

লেখক: আয়কর উপদেষ্টা

সংবাদটি শেয়ার করুন

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত