রোগীদের ভুলে যান না যে চিকিৎসক

বোরহান উদ্দিন, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৩:২৬ | প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৮:১৯

রোগীকে চিকিৎসা দিয়ে বিদায় করলেই দায়িত্ব শেষ চিকিৎসকের। এরপর নতুন রোগী আসবে, তারপর ব্যবস্থাপত্র দিয়ে বিদায় দেয়া হবে এটাই বাংলাদেশের বাস্তবতা। কিন্তু আপনি কয়েকবছর আগে চিকিৎসা নিয়ে গেছেন একজন চিকিৎসকের কাছ থেকে, সুস্থও আছেন। তারপরও সেই চিকিৎসকের দপ্তর থেকে আপনাকে কোনো আয়োজনের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হলো, তখন নিশ্চয়ই চমকে উঠবেন। দিনভর রোগিদের সঙ্গে সময় কাটাবেন সেই চিকিৎসক।

আপনার রোগের সম্পর্কে খুঁটিনাটি বিষয় নিয়ে আলোচনার ফাঁকে ফাঁকে হাতে ধরে চিকিৎসক দেখাবেন শারীরিক কসরতের মাধ্যমে কিভাবে সুস্থ থাকতে পারবেন। চিকিৎসক আর রোগীর মধ্যে সম্পর্ক বাড়াতে তিন বছর ধরে এমন ব্যতিক্রমী আয়োজন করে আসছেন ডা. মো. নজরুল ইসলাম। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিউমেটোলজি বিভাগের এই অধ্যাপক সহসাই বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

তিন বছর ধরে ‘রোগী শিক্ষা অধিবেশন’ শিরোনামে বছরের একটি দিন আনন্দঘন পরিবেশে রোগীদের সঙ্গে কাটান নজরুল ইসলাম। এরই ধারাবাহিকতায় গত শুক্রবার দিনব্যাপী এই আয়োজন করা হয় রাজধানীর অদুরে সোনাগাঁওয়ের রয়েল রিসোর্টে। যেখানে বিভিন্ন ধরণের বাত রোগে আক্রান্ত বর্তমান ও সাবেক রোগীদের মিলনমেলায় পরিণত হয়।

শুধু তাই নয়, ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে এই চিকিৎসকের চেম্বারে প্রতিনিয়িত চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের যাবতীয় ডাটাবেজ সংরক্ষণ করে রাখা হয়। বাত রোগে আক্রান্তদের সার্বিক সহযোগিতা দেয়ার জন্য গঠন করা হয়েছে একটি ফাউন্ডেশন। গরিব ও অসহায় রোগীদের এই চিকিৎসা চালাতে সহযোগিতা করার লক্ষে এই ফাউন্ডেশন করা হয়।

শুক্রবারের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে এই চিকিৎসকের অধীনে চিকিৎসা নেয়া রোগীরা তাদের অনুভূতি প্রকাশ করেন। সবাই ব্যতিক্রমী এই আয়োজনের প্রশংসা করেন।

সাধারণত বাত ব্যথায় আক্রান্ত মানুষকে দীর্ঘদিন চিকিৎসা নিতে হয়। তাই সচেতনতার পাশাপাশি সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা নিলে সুস্থ থাকা যায় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

আর চিকিৎসক তার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে আবেগঝড়া কণ্ঠে বলেছেন, এমন আয়োজন করতে পেরে তিনি গর্ববোধ করছেন। চিকিৎসক আর রোগীর মধ্যে সম্পর্ক বাড়াতে এমন আয়োজন বেশি বেশি প্রয়োজন। এতে করে রোগীদের উপকৃত হওয়ার সুযোগ বাড়ে। অন্যদিকে চিকিৎসকদের সম্পর্কে রোগীদের ভুল ধারণার অবসান ঘটবে।

নির্ধারিত সময়ে ধানমন্ডির আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালের সামনে থেকে রোগী ও তাদের স্বজনদের নিয়ে সোনারগাঁওয়ের উদ্দেশে যাত্রা শুরু হয়। বেলা ১১টার দিকে রিসোর্টে গিয়ে পৌঁছার পর ফ্রেশ হয়ে সবাইকে বাত রোগ সম্পর্কে সম্যক ধারণা দিতে ছিল প্রেজেন্টেশনের ব্যবস্থা। বাত ব্যথা ও এ রোগের প্রতিকার নিয়ে কথা বলেন ডা. ফাহিদ বিন নজরুল, ডা. আশিকুজ্জামান ও ডা. মাহফিল তানি।

রোগীদের একজন সাবেক যুগ্ম সচিব আনোয়ারা বেগম। নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, ‘এমন ব্যতিক্রমী আয়োজন আমি এর আগে দেখিনি। আমি ২০ বছর আগে একটি সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হই। অনেক চিকিৎসা নিয়েছি। কিছুদিন ধরে এই চিকিৎসকের অধীনে চিকিৎসায় আমি বেশ ভালো আছি।’

সাবেক জেলা জজ শামসুল ইসলাম। তিনিও একজন রোগী। অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে শামছুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ঘুমালে অনেক স্বপ্ন দেখি। কিন্তু আমার চিকিৎসক যিনি আমার কাছ থেকে ফিস নেন, টেস্ট দিয়ে পকেট খালি করেন সেই চিকিৎসক আমাকে নিয়ে সারাদিন কাটাবে, রোগ সম্পর্কে সচেতন করবেন, পরামর্শ দিবেন, এমন আয়োজনের কথা তো কল্পনাও  করতে পারি না।

দুপুরের খাবার আগেই শুরু হয় ব্যায়াম সেশন। অধীনস্তদের সঙ্গে নিয়ে নিজ হাতে রোগীদের ব্যায়াম শেখান ডা. নজরুল।

পরের পর্বে ছিল বাতের রোগীদের সহযোগিতার লক্ষ্যে গড়া ফাউন্ডেশনের ঘোষণা। উপস্থিত রোগীদের কণ্ঠভোটে নাম দেয়া হয় “প্রফেসর নজরুল রিউমাটোলজি ফাউন্ডেশন এন্ড রিসার্চ, বাংলাদেশ”। দীর্ঘ চিকিৎসা নিতে অক্ষম রোগীদের চিকিৎসায় সহযোগিতা করবে এই ফাউন্ডেশন।

পরে এমন আয়োজনের কথা তুলে ধরে ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘প্রতিনিয়ত অসংখ্য মানুষকে চিকিৎসা দিয়ে থাকি। কিন্তু এই রোগে আক্রান্ত মানুষের কষ্টের কথা বলে বোঝানো যাবে না। দীর্ঘদিন ধরে এই রোগের চিকিৎসা চালাতে হয়। অবশ্য অনেকের সামর্থ্যও থাকে না। যে কারণে রোগীদের চিকিৎসা সহযোগিতা করার লক্ষ্যে আমরা ফাউন্ডেশন গঠন করেছি। ব্যক্তিগতভাবে আমার ইচ্ছা দুনিয়া থেকে চলে গেলেও এমন কিছু করে যেতে  পারি যাতে অসহায় মানুষগুলো সহযোগিতা পায়। আশা করি সবাই এগিয়ে আসবেন। ফাউন্ডেশনে যে আমানত রাখা হবে তার যেন সুষ্ঠু ব্যবহার করতে পারি সেই দোয়া করবেন।’

পরের পর্বে কণ্ঠশিল্পী জানে আলম বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় গান পরিবেশন করেন। সবশেষ র‌্যাফেল ড্রয়ের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

(ঢাকাটাইমস/১৭ফেব্রুয়ারি/বিইউ/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

স্বাস্থ্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত