বিএসএমএমইউর সমাবর্তন

রোগীরা যাতে হতাশ হয়ে ফিরে না যায়: রাষ্ট্রপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২৩:৩০

চিকিৎসা নিতে এসে রোগীরা যাতে হতাশ হয়ে ফিরে না যায় সে ব্যাপারে সর্বান্তঃকরণে চেষ্টা করতে চিকিৎসকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ।

আজ সোমবার বেলা তিনটার দিকে বিএসএমএমইউর কেবিন ব্লকের পেছনের মাঠে আয়োজিত মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়টির তৃতীয় সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান তিনি।  বিশ্ববিদ্যালয়টির আচার্য হিসেবে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাষ্ট্রপতি।

আচার্য আবদুল হামিদ বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয় এখন দেশের জনগণের আস্থা ও ভরসাস্থল। চিকিৎসাপেশা সর্বশ্রেষ্ঠ মহৎ পেশা। রোগীরা যাতে হতাশ হয়ে ফিরে না যায় সর্বান্তকরণে সে চেষ্টা করতে চিকিৎসকবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানাই।’ 

বিএসএমএমইউর এই তৃতীয় সমাবর্তনে সাত জ্যেষ্ঠ শিক্ষক ও গুণী চিকিৎসককে সম্মানসূচক পিএইচডি ডিগ্রি দেওয়া হয়। তারা হলেনÑবিএসএমএমইউর নেফ্রোলজি বিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মতিউর রহমান, সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক মাহমুদ হাসান, শিশু বিশেষজ্ঞ ও ইনস্টিটিউট অব চাইল্ড অ্যান্ড মাদার হেলথের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক এম কিউ কে তালুকদার, অর্থোপেডিক সার্জারি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক শামসুদ্দিন আহমেদ, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের ফার্মাকোলজি বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক ডা. এ কে এম নুরুল আনোয়ার, ঢাকা ডেন্টাল কলেজের অর্থোডনটিকস বিভাগের সাবেক অধ্যাপক মো. ইমদাদুল হক এবং বিএসএমএমইউর অ্যানেসথেশিওলজি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক আফজালুন নেছা।

অত্যন্ত আড়ম্বরপূর্ণ এ সমাবর্তনে সনদ অর্জনকারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বরধারী ছয়জনকে স্বর্ণপদক দেওয়া হয়। তারা হলেন- সার্জারি অনুষদ থেকে ডা. অনিন্দতা দত্ত, মেডিসিন অনুষদ থেকে ডা. হোসনে আরা, বেসিক সায়েন্স ও প্যারাক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদ থেকে ডা. এনামুল কবীর, ডেন্টাল অনুষদ থেকে ডা. দাউরিকা প্রসাদ, প্রিভেনটিভ এন্ড সোশ্যাল মেডিসিন অনুষদ থেকে ডা. মো. সাখাওয়াত হোসেন, নার্সিং অনুষদ থেকে মাহমুদা আক্তার।

এ ছাড়া ছয়টি অনুষদের ১২ জন কৃতী শিক্ষার্থীকে রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলর সনদ দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, বাংলাদেশ বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান।

সমাবর্তন বক্তব্য দেন সাবেক আইপিজিএমএন্ডআরের (বর্তমানে বিএসএমএমইউ) পরিচালক, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত অধ্যাপক এ এইচ এম তৌহিদুল আনোয়ার  চৌধুরী।

স্বাগত বক্তব্য দেন উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান।

সমাবর্তন মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন এ বিশ^বিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. আলী আসগর মোড়ল, বেসিক সায়েন্স ও প্যারাক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া, মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ, প্রিভেনটিভ অ্যান্ড সোশ্যাল মেডিসিন অনুষদের ডিন অধ্যাপক সৈয়দ শরীফুল ইসলাম, নার্সিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. অসীম রঞ্জন বড়য়া, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. গাজী শামীম হাসান।

ধারাভাষ্য দেন রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল হান্নান।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য, রাষ্ট্রদূত, বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য, সাবেক উপাচার্য, সিন্ডিকেট সদস্য, সনদ অর্জনকারী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন-বিএমএ ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ-স্বাচিপের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/১৯ ফেব্রুয়ারি/এএ/ মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত