পোশাকে একুশের আবহ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৯:১০ | প্রকাশিত : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০৯:১১

অমর একুশে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আগামীকাল বুধবার। যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হবে দিবসটি। ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের দিকে ছুটবে পুরো জাতি। শোকের এই আবহ থাকবে পোশাকেও। তাই ফ্যাশন হাউজগুলো সাদা, কালো আর লাল রঙের মিশেলের রকমারি পোশাক বাজারে এনেছে। এসব পোশাকের কোনটিতে আছে বাংলাদেশের মানচিত্র, কোনোটায় আছে শহীদ মিনার। প্রায় সব হাউজের পোশাকেই আছে বাংলা বর্ণমালার সমাহার। রাজধানীর কিছু  ফ্যাশন হাউসের একুশের পোশাকের খবরা-খবর জেনে নেয়া যাক।

আমি আমার মাতৃভাষায় কথা বলতে ভালোবাসি। এই প্রিয় বাক্যটি ৪২টি ভাষায় লেখা হয়েছে শাড়িতে। শাড়িটি দেখতেও নান্দনিক। শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের ‘নিত্য উপহার’ কাপড়ের দোকানে একটি শাড়িতে দেখা গেল এই লেখা।

এছাড়া এই মার্কেটের অধিকাংশ দোকানে মেয়েদের শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ছেলেদের ফতুয়া, পাঞ্জাবিতে আছে বর্ণমালা সমাহার। প্রতিটি কাপড়ে ভাষার প্রতি ভালবাসা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

‘নিত্য উপহার’ শোরুমের ইনচার্জ শারমিন ঢাকাটাইমসকে বলেন, পোশাক আমাদের আত্মপরিচয় জানান দেয়। আমাদের ইতিহাস তুলে ধরবার অন্যতম মাধ্যম পোশাক। তাই আমরা ২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আমরা পোশাকে ভিন্নতা এনেছি।

শারমিন বলেন, ‘আমরা নারীদের পোশাক তৈরি করি। একটি শাড়িতে ডিজাইন করা হয়েছে ‘আমি আমার মাতৃভাষায় কথা বলতে ভালবাসি’ এ কথাটি। যেটা আমাদের মাতৃভাষাসহ ৪২টি ভিন্ন ভিন্ন ভাষায় লেখা হয়েছে। এছাড়া আমরা পোশাকে বর্ণমালার প্রাধান্য দিয়েছি।’

এখানে সূতি শাড়ি ১৬০০ টাকা থেকে ১৮০০ এবং হফ শিল্ক শাড়ি দুই হাজার ঢাকা থেকে দুই হাজার ৭০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।

গতকাল সোমবার শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে প্রতিটি দোনাকে বিক্রি ভালই চলছে। তবে আজ বিক্রি আরও বাড়বে বলে আশা করছেন বিক্রেতারা।

‘লন্ঠণ শোরুমের’ ম্যানেজার হৃদয় ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘বিক্রি মোটামুটি চলছে। আশা করি মঙ্গলবার আরও বেশি হবে। এ মার্কেটে সাপ্তাহিক বন্ধ মঙ্গলবার হলেও আজ মার্কেট খোলা থাকবে।

হৃদয় জানান, তাদের শোরুমে ছেলেদের পোশাক ও অন্য শোরুমে নারীদের পোশাক রয়েছে। ছেলেদের পাঞ্জাবি ১২৬০ থেকে দুই হাজার টাকার মধ্যে বিক্রি করছে বলে জানান তিনি।

বর্ণমালা শোরুমের পাঞ্জাবি বিক্রি হচ্ছে ১১৮০ থেকে ১২৮০ টাকা। ও শাড়ি বিক্রি করছে ১৬৫০ থেকে ১৯৫০ টাকা।

আজিজ সুপার মার্কেটের প্রায় সব দোকানের পোশাকেই দেখা দেখা গেল একুশের চেতনা। পোশাকের ডিজাইনে বর্ণমালা, কবিতার পঙ্‌ক্তি, দেশের গানই ছিল মূল উপজীব্য।

হাতিরপুল থেকে পোশাক কিনতে এসেছে হাবিবুর রহমান। তিনি বলেন, এখানে তুলনামূলক কম দামে ভালোমানের পোশাক পাওয়া যায়। একুশের পোশাকে সাদাকালোর সঙ্গে বর্ণমালা বা মাতৃভাষার কোনো কবিতার পঙ্‌ক্তিমালা ছাড়া ভাবাই যায় না। তাই একুশের পোশাক কিনতে এসেছি আমি। একুশ আমাদের অহংকার। সেটা আমরা পোশাকের মাধ্যমে তুলে ধরতে চাই।

তবে শুধু শাহবাগে আজিজ সুপার মার্কেটের বুটিকগুলোই একুশকে ঘিরে নানা ধরনের পোশাক ডিজাইন করেছে তা নয়। কে-ক্র্যাফট, অঞ্জন’স, বিশ্বরঙ, আড়ংসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলো ভাষা দিবস উপলক্ষে মেয়েদের শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, ছেলেদের ফতুয়ায় এনেছে একুশের চেতনা।

(ঢাকাটাইমস/২০ফেব্রুয়ারি/জেআর/এমআর)

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত