আলালসহ বিএনপির ৫০ নেতাকর্মী কারাগারে

আদালত প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৯:৩৪
ফাইল ছবি

দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের সাজা পাওয়া দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচিতে অংশ নিতে গিয়ে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার বিএনপির ৫০ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।  এদের মধ্যে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলালও রয়েছেন। এছাড়া আট আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক দিন করে রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

রবিবার ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরীর এই আদেশ দেন।

কারাগারে পাঠানো আসামিদের মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্যরা হলেন, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপি দলীয় সাবেক এমপি মোস্তাফিজুর রহমান ওরফে বাবুল, কামরুদ্দিন এহিয়া খান মজলিস,  রাশেদা বেগম হিরা, অ্যাডভোকেট নেওয়াজ হালিমা আরলী প্রমুখ। ৫০ আসামির মধ্যে ২৬ জন মহিলা রয়েছেন।

রিমান্ডকৃত আসামিরা  হলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টুর বডিগার্ড হুমাউন কবীর, বিএনপি কর্মী মো. লিটন, খোরশেদ আলম, আব্দুর রহিম হাওলাদার সেতু, ফারুকুজ্জামান জুয়েল, মো. রাসেল , আব্দুল কাদের, ফয়সাল আহমেদ চৌধুরী।

এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পল্টন মডেল থানার এসআই মো. আরশাদ হোসেন মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত আলালসহ ৫০ আসামিকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন। এছাড়া ওই আট আসামির ১০ দিনের রিমান্ড চান।

আসামিপক্ষে আইনজীবী তৈমুর আলম খন্দকার, মোসলে উদ্দিন জসীম, সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেজবাহ, তাহেরুল ইসলাম তৌহিদ প্রমুখ আইনজীবী জামিন চেয়ে শুনানি করেন।

শুনানিতে বিএনপি নেতাকর্মীদের আইনজীবীরা বলেন, খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার প্রতিবাদে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচিতে পুলিশ ভাঙচুর, জলকামান নিক্ষেপ করে। সেখান থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ নেই। পুলিশ যাকে রাস্তায় পেয়েছে তাকে ধরে এনে কোর্টে পাঠিয়েছে। আমরা ওই আট আসামির রিমান্ড বাতিলপূর্বক জামিন চাচ্ছি। আর অপর ৫০ জনের জামিন মঞ্জুরের প্রার্থনা করছি।

উল্লেখ্য, দুর্নীতি মামলায় কারাদণ্ড পেয়ে কারাগারে থাকা দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে গত শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচিতে অংশ নিতে যায় বিএনপি নেতাকর্মীরা। এ সময় পুলিশ বেধড়ক লাঠিপেটা করে এবং লাল পানি ছোড়ে। ওই সময় ৫০ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়।

এরপর পল্টন থাকায় একটি মামলা করা হয়। মামলায় বলা হয়, আসামিরা প্রশাসনের অনুমতি না নিয়ে পল্টন থানাধীন হোটেল ভিক্টরীর সামনে ভিআইপি রোডে বেরিকেড দিয়ে যানবাহন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। ওই সময় পুলিশ আসামিদের যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রাখতে অনুরোধ করলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে পুলিশ সদস্যদের আহত করে।

ঢাকাটাইমস/২৫ফেব্রুয়ারি/আরজে/এমআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

আদালত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত