ঢাকা যখন ঘুমে, রিজভী তখন মিছিলে

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ মার্চ ২০১৮, ১৪:০৫ | প্রকাশিত : ১৭ মার্চ ২০১৮, ১৩:৫৮

আবার আড়মোড়া ভেঙে শহরের জেগে উঠার আগেই মিছিল করলেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী। পুলিশ গ্রেপ্তার করতে পারে, এই আশঙ্কা থেকেই ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই দলীয় কার্যালয়ের সামনে মিছিল নিয়ে বের হন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব।

দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে শনিবার ভোরে রাজধানীর নয়াপল্টনে এই মিছিল করেন রিজভী।

দলীয় প্রধানের মুক্তির দাবিতে গত ৯ ফেব্রুয়ারি থোক নানা কর্মসূচি পালন করছে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সব কর্মসূচিই সকাল ১০টার পর থেকে পালন করা হলেও রিজভী দ্বিতীয়বারের মতো মিছিল করলেন নগরবাসী জেগে ওঠার আগেই।

গত ১০ মার্চও নয়াপল্টনে সূর্য উঠার পর পর ঝটিকা মিছিল করেন রিজভী। গোটা দশেক নেতা-কর্মী নিয়ে সেদিন দলীয় কার্যালয়ের সামনে কিছুদূর অগ্রসর হয়েই ফিরে এসেছিলেন বিএনপি নেতা।

আজও একই ঘটনা ঘটল। আবহাওয়া অধিদপ্তরের প্রতিবেদন অনুযায়ী আজ সূর্য উঠেছে ভোর ছয়টা ছয় মিনিটে। আর রিজভী মিছিল বের করেন তার ১০ মিনিট পরে।

সোয়া ছয়টার দিকে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয় থেকে ২৫ থেকে ৩০ হন নেতা-কর্মীকে নিয়ে মিছিল বের করেন রিজভী। অল্প কিছুদূর যাওয়ার পর তারা আবার দলীয় কার্যালয়ে ফিরে যায়।

এই মিছিলটি যখন বের হয় তখন পুলিশ তো দূরের কথা নয়াপল্টন এলাকার দোকানপাটও খোলেনি। কাকডাকা ভোরে তেমন কোনো পথচারীদেরও দেখা মেলেনি।

মিছিলে অংশ নেয়া বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মিছিলের একটি ছবি পোস্ট করেন। এতে তিনি লেখেন, বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিএনপি সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভীর নেতৃত্বে আজ সকাল সোয়া ছয়টার দিকে নয়াপল্টনস্থ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আমাদের ঝটিকা মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।’

মিছিলে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সহদপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় নেতা এমজি রাসেল, আবুল কালাম আজাদ, এমজি মাসুম রাসেল, রফিকুল ইসলাম, মৎস্যজীবী দলের আরিফুর রহমান তুষার, ছাত্রদল নেতা জিসান,জাহিদ, আল-আমীন, আব্বাস, যুবদল নেতা আমিনুল ইসলাম সবুজ, ফয়েজ গণি প্রমুখ।

মিছিল শুরু হয়ে এগোতে থাকলে মাঝপথে এসে যুবদল নেতা সোহেল আহমেদ, রাসেল দেওয়ান সহ ৬/৭ জন এসে মিছিলে যোগ দেয়।

নয়াপল্টনের অফিস থেকে ৮/২০ জনের মিছিলটি বেরিয়ে দ্রুত স্কাউট ভবনের দিকে ছুটে গিয়ে একটি গলিতে ঢুকে যায়।

বিএনপির কর্মসূচি থাকলে নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ে সকাল থেকেই থাকে পুলিশের কড়া পাহারা। প্রায়ই বিভিন্ন মামলার আসামি নেতা-কর্মীদেরকে গ্রেপ্তারও করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। রিজভীও একাধিক মামলার আসামি। আর গ্রেপ্তার এড়াতে ২৯ জানুয়ারি থেকে তিনি দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান করছেন।

৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচিতে রিজভী দলীয় কার্যালয়ের বারান্দা থেকে স্লোগান দিয়েছেন। মাঝে লিফফেট বিতরণের দিন তিনি সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য কার্যালয়ের নিচে নেমেছিলেন। কিন্তু পুলিশ দেখে আবার উঠেও পড়েন।

১০ মার্চ ভোরের সেই মিছিলের পর রুহুল কবির রিজভী ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা আছে। তাই সকালেই কার্যালয় থেকে বেরিয়ে কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছি।’

ঢাকাটাইমস/১৭মার্চ/বিইউ/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত