খালেদাকে কারাবন্দি রাখতে ওকালতনামা নিয়ে গড়িমসির অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৭ মার্চ ২০১৮, ১৯:১৬

দুই দিন আগে জমা দেয়া ওকালতনামায় কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সই নিয়ে তা সরবরাহ করতে কারা কর্তৃপক্ষ গড়িমসি করছে বলে অভিযোগ করেছেন তার আইনজীবীরা। তাদের অভিযোগ, খালেদাকে দীর্ঘ সময় কারাবন্দি রাখতে কৌশল নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

আজ শনিবার পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন খালেদা জিয়ার একজন আইনজীবী মাসুদ আহমেদ।

নড়াইলের একটি ও ঢাকার সিএমএম কোর্টের দুই মামলার ওকালতনামা খালেদার সইসহ সরবরাহ পেতে আজ কারাগারে গিয়েছিলেন মাসুদ আহমেদসহ পাঁচ আইনজীবী। কিন্তু ওকালতনামা না পেয়ে ফিরে যান তারা।

কারাগারের সামনে আইনজীবী মাসুদ সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, খালেদা জিয়াকে দীর্ঘ সময় কারাবন্দি রাখতে ওকালতনামা দিতে কৌশল নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

খালেদা জিয়ার এই আইনজীবী বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়া জেলে যাওয়ার পর তাকে চারটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এর একটি কুমিল্লায়, একটি নড়াইলে ও দুটি মামলা ঢাকার সিএমএম আদালতে। এসব মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন করতে ওকালতনামায় তার স্বাক্ষর দরকার। কিন্তু অনেকবার চেষ্টা করেও ওকালতনামায় খালেদা জিয়ার স্বাক্ষর পাওয়া যায়নি।

বিভিন্ন মামলায় ১৯টি ওকালতনামা কারাগারে দেওয়া হয়েছে জানিয়ে মাসুদ আহমেদ বলেন, সেখানে নড়াইল ও সিএমএম কোর্টের মামলার ওকালতনামাও ছিল। কারা কর্তৃপক্ষ কেবল কুমিল্লার একটি মামলায় খালেদা জিয়ার ওকালতনামা স্বাক্ষর করিয়ে গতকাল শুক্রবার সরবরাহ করেছে। বাকি ওকালতনামাগুলো জেল অথরিটি দেয়নি।’

তিনি জানান, আজ নড়াইল ও সিএমএম কোর্টের তিনটি মামলার ওকালতনামা স্বাক্ষরসহ পেতে কারাগারের সামনে গিয়েছিলেন তারা। সেসব ওকালতনামা ভেরিফাই করেছে জেল অথরিটি। কিন্তু সেগুলোতে খালেদা জিয়ার স্বাক্ষর এনে দিতে বিব্রতবোধ করেছে তারা।

ওকালতনামায় স্বাক্ষর করিয়ে এনে দিতে না পারার কারণ কী- এমন প্রশ্নের জবাবে খালেদার আইনজীবী বলেন, ‘আমাদের কাছে যেটা মনে হয়, তারা একটি ওকালতনামা (কুমিল্লার মামলায়) দিয়েছে। এই মামলায় জামিন হওয়ার পর যখন জামিননামা জেলখানায় পাঠাব তখন তারা একটি করে জেলখানায় কাস্টডিতে পাঠাবে। সে জন্য তারা আমাদের ওকালতনামা দেয়নি।’

(ঢাকাটাইমস/১৭মার্চ/বিইউ/মোআ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত