সুপ্রিমকোর্ট বারে ভোটগ্রহণ শুরু বুধবার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২০ মার্চ ২০১৮, ১৭:৩১

দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির ২০১৮-১৯ সেশনের নির্বাচনে আগামীকাল বুধ ও পরদিন বৃহস্পতিবার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ভোটগ্রহণের যাবতীয় প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। আইনজীবী ভবনের শহীদ শফিউর রহমান অডিটরিয়ামে ভোটগ্রহণের জন্য বুথ করা হয়েছে।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত সময় পার করছেন উভয় প্যানেলের আইনজীবীরা। আইনজীবীদের রুমে রুমে যাচ্ছেন তারা।

নির্বাচন কমিশনার এ ওয়াই মশিউজ্জামান বলেন, কার্যনির্বাহী কমিটির মোট ১৪টি পদে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ হবে। মাঝে আধাঘণ্টার বিরতি থাকবে। এবারের নির্বাচনে ছয় হাজার ১৫২ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

নির্বাচন কমিশনার বলেন, গত ১ থেকে ১১ মার্চ পর্যন্ত মনোনয়ন সংগ্রহ ও দাখিল এবং ১৪ মার্চ মনোনয়ন প্রত্যাহারের তারিখ ছিল। ২১ ও ২২ মার্চ দুই দিন ভোটগ্রহণ হবে।

আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতি বছরের মতো এবারও আওয়ামী লীগ সমর্থিত আইনজীবীদের সাদা প্যানেল ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত নীল প্যানেলের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। এ দুটি প্যানেলের সভাপতি ও সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে। 

নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, ২০১৮-১৯ সেশনের নির্বাচনের নির্বাচনে সভাপতি-সম্পাদকসহ ১৪টি পদে মোট ৩৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সাদা প্যানেল ও নীল প্যানেলের মোট প্রার্থী ২৮ জন। এ দুটি প্যানেল ছাড়াও বিভিন্ন পদে আরও পাঁচজন আইনজীবী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন।

সভাপতি পদে নীল প্যানেলে অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন ও সম্পাদক এম মাহবুব উদ্দিন খোকনকে সম্পাদক করে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এ দুইজন গত সেশনে সভাপতি ও সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন। নীল প্যানেলের অন্যরা হলেন- সহসভাপতি ড. মো. গোলাম রহমান ভূঁইয়া, এম গোলাম মোস্তফা, কোষাধ্যক্ষ নাসরিন আক্তার, সহসম্পাদক কাজী জয়নুল আবেদীন, আনজুমানারা বেগম, সদস্য সাইফুর আলম মাহমুদ, মো. জাহাঙ্গীর জমাদ্দার, মো. এমদাদুল হক, মাহফুজ বিন ইউসুফ, সৈয়দা শাহীনারা লাইলী, মো. আহসান উল্লাহ ও মোহাম্মদ মেহদী হাসান।

সরকার সমর্থিত সাদা প্যানেলের নেত্বত্বে দিচ্ছেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন সভাপতি এবং শেখ মোহাম্মদ মোরশেদ সম্পাদক। সাদা প্যানেলের অন্যরা হলেন- সহসভাপতি আলালউদ্দীন ও ড.মোহাম্মদ শামসুর রহমান, ট্রেজারার ড. মোহাম্মদ ইকবাল করিম, সহসম্পাদক মোহাম্মদ আবদুর রাজ্জাক ও ইয়াদিয়া জামান, সদস্য আশরাফুল হাদী, হুমায়ুন কবির, চঞ্চল কুমার বিশ্বাস, শাহানা পারভীন, রুহুল আমিন তুহিন, শেখ মোহাম্মদ মাজু মিয়া, মোহাম্মদ মুজিবর রহমান সম্রাট।

এছাড়া আরও পাঁচজন বিভিন্ন পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হচ্ছেন, সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট ইউনুস আলী আকন্দ ও শাহ খসরুজ্জামান, সহসভাপতি পদে মো. আব্দুল জব্বার ভূঁইয়া, সম্পাদক পদে মোহাম্মদ আবুল বাসার ও সদস্য পদে তাপস কুমার দাস।

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি প্রার্থী ইউসুফ হোসেন হুমায়ূন বলেন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা রক্ষায় বর্তমান সরকার কাজ করছে। বিচার বিভাগের উন্নয়নের জন্য সরকার নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবীদের সব উন্নয়নে আমি অতীতেও কাজ করেছি। ইনশাআল্লাহ ভবিষ্যতেও তাদের পাশে থাকব। এ নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার প্রত্যাশা করেন তিনি।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলে সম্পাদক পদপ্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ‘বিচার বিভাগ তলানিতে পৌঁছেছে। প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাকে নজিরবিহীনভাবে প্রধান বিচারপতির পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। এখন স্বাধীনভাবে কোনো বিচারক কাজ করতে পারছেন না। উচ্চ আদালত এবং নিম্ন আদালতে সর্বত্র এখনো এসকে সিনহা ভীতি কাজ করছে। এজন্য বিচারকদের সাহস জোগানোর প্রয়োজন আছে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘অতীতে বিচার বিভাগের মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য কাজ করেছি। ভবিষ্যতেও কাজ করার চেষ্টা করব। সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবীদের কাজের পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা করবো।’

প্রসঙ্গত, ২০১৭-১৮ সেশনের নির্বাচনে ১৪টি পদের মধ্যে সভাপতি ও সম্পাদকসহ মোট আটটি পদে জয়ী হয় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল (নীল প্যানেল)। অন্যদিকে ক্ষমতাসীনদের মোর্চা সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের (সাদা প্যানেল) পেয়েছিল ছয়টি পদ।

(ঢাকাটাইমস/২০মার্চ/এমএবি/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আদালত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত