প্রতিবেশীকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল গৃহবধূর

ব্যুরো প্রধান, রাজশাহী
| আপডেট : ২২ মার্চ ২০১৮, ১২:০১ | প্রকাশিত : ২২ মার্চ ২০১৮, ১১:৪৬
গৃহবধূ মর্জিনা বেগমকে হত্যার দায়ে ঘাতক মকসেদ আলীকে গণপিটুনি দেন স্থানীয়রা

রাজশাহীতে মা সফুরা বেগমকে মারধর করছিলেন তার মাদকাসক্ত ছেলে মকসেদ আলী। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেন প্রতিবেশী মর্জিনা বেগম ওরফে লতা। এসময় ক্ষিপ্ত হয়ে মর্জিনাকে হাসুয়া দিয়ে কোপ দেন মকসেদ। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান মর্জিনা বেগম। ঘটনাটি ঘটেছে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার পশ্চিম মুক্তারপুর গ্রামে। বৃহস্পতিবার সকালে।   

চারঘাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মকসেদ মাদকসেবনের জন্য তার মা সপুরা বেগমের কাছে টাকা চান। এনিয়ে মা-ছেলের মধ্যে বাকবিতণ্ডা বাধে। একপর্যায়ে সফুরা বেগমকে মারধর করছিলেন মকসেদ। তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেন প্রতিবেশী মর্জিনা বেগম ওরফে লতা। এতে তার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন মকসেদ। তাকেও মারধর করতে এলে দৌড়ে পালাতে থাকেন মর্জিনা। এসময় মকসেদ পেছন থেকে হাসুয়া দিয়ে কোপ দিলে ঘটনাস্থলেই মারা যান মর্জিনা বেগম। ঘটনার পর স্থানীয়রা মকসেদ আলীকে আটক করে গণপিটুনি দেন।

ওসি জানান, নিহত নারীর মরদেহ উদ্ধারের প্রক্রিয়া চলছে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত করা হবে। আটক মকসেদ আলীকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিহত মর্জিনা বেগম ওই গ্রামের মৃত সাইফুল ইসলাম ওরফে তারার স্ত্রী। মকসেদের বাবার নাম জামাল উদ্দীন প্রামাণিক।

ঢাকাটাইমস/২২ মার্চ/আরআর/ওআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত