চিরনিদ্রায় শায়িত বীর প্রতীক কাকন বিবি

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২২ মার্চ ২০১৮, ১৯:২২

নারী মুক্তিযোদ্ধা বীর প্রতীক কাকন বিবিকে সুনামগঞ্জের দোয়ারা বাজার উপজেলার জিরাগাঁও গ্রামের নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় দাফন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বাদ আছর নামাজে জানাযা শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে দাফন করা হয়।

সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাত সোয়া ১১টায় শেষ তিনি নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।তিনি শ্বাসকষ্টজনিত রোগ নিয়ে সোমবার হাসপাতালে ভর্তি হন।

কাকন বিবির মরদেহ দুপুরে একটায় সিলেট থেকে নিজ গ্রামে আনা হয়। পরে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক সাবিরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার বরকত উল্লাহ খান, জেলা ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উপজেলা প্রশাসন সকল দল ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

স্বামীর খোঁজ করতে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন তিনি। ১৯৭১ সালে ৩দিনের নবজাতক কন্যাকে রেখে যুদ্ধে চলে যান কাকন বিবি। জুন মাসে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর কাছে ধরা পড়েন তিনি। বাংকারে আটকে দিনের পর দিন তাকে নির্যাতন করে পাক বাহিনী। ছাড়া পেয়ে মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলীর কাছে অস্ত্র চালনার প্রশিক্ষণ নেন কাকন বিবি। রহমত আলীর দলে সদস্য হয়ে সশস্ত্র যুদ্ধ করেন তিনি। একইসঙ্গে চালিয়ে চান গুপ্তচর বৃত্তির কাজ। নভেম্বর মাসে ৫নং সেক্টরের সেলা সাব-সেক্টরের অধীনস্থ টেংরাটিলার সম্মুখ যুদ্ধে কয়েকটি গুলি তার শরীরে বিদ্ধ হয়। পরে আমবাড়ী, বাংলাবাজার, টেবলাই, বালিউড়া, মহব্বতপুর, বেতুরা দুর্বণটিলা ও ছাতক পেপার মিলের যুদ্ধে অংশ নেন তিনি।

মুক্তিযুদ্ধের পর তিনি কোনো স্বীকৃতি পাননি। পারিবারিক টানাপোড়েনে তিনি শ্রমজীবীর কাজ ও ভিক্ষাবৃত্তিও করেছেন। ১৯৯৭ সালে তাঁর বীরত্বগাথা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ পেলে তাঁকে ঢাকায় ডেকে নেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তখন সংবর্ধনা দিয়ে তাঁকে বিশেষ ‘বীর প্রতীক’ ঘোষণা দেয়া হয়। কিন্তু বিষয়টি এখনো গেজেটভুক্ত হয়নি।

তার মৃত্যুতে পৃথক পৃথক বিবৃতিতে গভীর শোক প্রকাশ ও তার শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ-মৌলভীবাজার সংরক্ষিত আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানা রব্বানীসহ সর্বস্তরের জনগণ। ঢাকাটাইমস/২২ মার্চ/প্রতিনিধি/ওআর

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত