বার্থডে স্পেশাল

কোথাও নেই নায়ক ওয়াসিম

বিনোদন ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৬ মার্চ ২০১৮, ২২:০৪ | প্রকাশিত : ২৩ মার্চ ২০১৮, ০৯:০৮

প্রকৃত নাম মেজবাহ উদ্দীন আহমেদ। কিন্তু বাংলা চলচ্চিত্র জগতে তিনি শুধু ওয়াসিম নামে পরিচিত। একজন বাংলাদেশি চলচ্চিত্র অভিনেতা। তাকে বাংলা চলচ্চিত্রের অ্যাকশন ও ফোক ফ্যান্টাসির নায়ক হিসেবে অপ্রতিদ্বন্দ্বী মনে করা হয়।

আজ এই অভিনেতার ৬৮তম জন্মদিন। জীবনের ৬৭টি বসন্ত এরই মধ্যে পেরিয়ে গেছেন তিনি। ১৯৫০ সালের ২৩ মার্চ নায়ক ওয়াসিম চাঁদপুর জেলার আমিরাবাদে জন্মগ্রহণ করেন। শুভ জন্মদিন নায়ক।

যেভাবে চলচ্চিত্রে এসেছিলেন

প্রখ্যাত চিত্র পরিচালক এস এম শফীর হাত ধরে সিনেমার জগতে অভিষেক ঘটে ওয়াসিমের। ১৯৭২ সালে শফী পরিচালিত ‘ছন্দ হারিয়ে গেলো’ ছবিতে সহকারি পরিচালক হিসেবে কাজ করেন তিনি। এতে ছোট একটি চরিত্রে অভিনয়ও করেন। ১৯৭৪ সালে আরেক প্রখ্যাত চিত্রনির্মাতা মহসিন পরিচালিত ‘রাতের পর দিন’ ছবিতে প্রথম নায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ হয় তার। এই ছবির অসামান্য সাফল্যে রাতারাতি তাকে সুপারস্টার বানিয়ে দেয়।

চলচ্চিত্রে ওয়াসিমের অবদান

প্রায় দেড়শ ছবির নায়ক ওয়াসিম। যার হাতেগোনা কয়েকটি ছবি ছাড়া প্রতিটিই  হয়েছিল সুপারহিট। ‘দি রেইন’ ছবিটি বিশ্ববাসীর কাছে পরিচয় করিয়ে দিয়েছিল ওয়াসিমকে। পৃথিবীর ৪৬টি দেশে ‘দি রেইন’ মুক্তি পেয়েছিল। ছবিতে ওয়াসিমের নায়িকা ছিলেন অলিভিয়া। পরবর্তীতে ওয়াসিম-অলিভিয়া জুটি বেঁধে বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেন। ‘বাহাদুর’ এর মধ্যে একটি উল্লেখযোগ্য। এছাড়া লুটেরা, লাল মেম সাহেব, বেদ্বীন প্রভৃতিও সফল হয়েছিল।

তখনকার সুপারহিট নায়িকা শাবানা, সুচরিতা, অঞ্জু ঘোষ ও সুজাতাদের বিপরীতেও তিনি অভিনয় করেছিলেন। তবে শাবানা আর অলিভিয়ার সঙ্গে ওয়াসিম যেসব ছবিতে অভিনয় করেছেন তার প্রতিটিই ব্যবসাসফল হয়েছিল। ‘রাজ দুলারী’ ছবিতে ওয়াসিম ও শাবানার অভিনয় দর্শকদের দারুণ মুগ্ধ করেছিল। ছবিতে তাদের মুখের গানগুলো ছিল দর্শকের মুখে মুখে।

শিক্ষাগত যোগ্যতা

নায়ক ওয়াসিম ইতিহাস বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। কলেজের ছাত্রাবস্থায় তিনি বডি বিল্ডার হিসেবে নাম করেছিলেন। ১৯৬৪ সালে তিনি বডি বিল্ডিং-এর জন্য ইস্ট পাকিস্তান খেতাব অর্জন করেছিলেন।

পারিবারিক ও ব্যক্তিগত জীবন

ওয়াসিম বিয়ে করেছিলেন চিত্রনায়িকা রোজীর ছোট বোনকে। তাদের সংসারে দুটি সন্তান। পুত্র দেওয়ান ফারদিন এবং মেয়ে বুশরা আহমেদ। ২০০০ সালে তার স্ত্রীর অকালমৃত্যু ঘটে। ২০০৬ সালে মাত্র ১৪ বছর বয়সে কন্যা বুশরাও পৃথিবী ছেড়ে চলে যান। একমাত্র পুত্র ফারদিন লন্ডনের কারডিফ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলএম পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়ে এখন ব্যারিস্টার হিসেবে আইন পেশায় নিয়োজিত রয়েছেন।

অন্যান্য প্রসঙ্গ

ওয়াসিম যে সময়ের নায়ক সে সময়ে আরও কয়েকজন নায়ক বাংলা চলচ্চিত্রে রাজ করেছেন। তাদের মধ্যে নায়ক আলমগীর, সোহেল রানা এবং ফারুক অন্যতম। তাদের কেউই আর এখন চলচ্চিত্রে নিয়মিত অভিনয় করছেন না। কিন্তু চলচ্চিত্রের বিভিন্ন সংগঠনের বিভিন্ন পদে তারা প্রত্যেকেই দায়িত্ব পালন করছেন। নিয়মিত এফডিসিতেও যাচ্ছেন। যার কারণে প্রায়ই তাদের দেখা মেলে টিভির পর্দায় বা পত্রিকায়।

কিন্তু নায়ক ওয়াসিম নেই কোনোখানেই। অভিনয় ছেড়েছেন ২০১০ সালে। না তিনি এফডিসিতে যান, না যোগ দেন কোনো টিভি প্রোগ্রাম বা অনুষ্ঠানে। অনেকটাই লোকলক্ষুর অন্তরালে পড়ে আছেন এক সময়ের সুপারহিট এ নায়ক। খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে স্ত্রী ও একমাত্র কন্যা সন্তান হারানোর শোকই হয়তো তাকে সবকিছু থেকে দূরে সরিয়ে রেখেছে। তবে যেখানে যেভাবেই থাকুন, ভালো থাকুন সত্তর-আশি দশকের ফোক ফ্যান্টাসি নায়ক ওয়াসিম।

ঢাকাটাইমস/২৩মার্চ/এএইচ 

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত