‘ষড়যন্ত্র চলছে, সতর্ক থাকুন’

মেহেরপুর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ এপ্রিল ২০১৮, ১৯:৩১ | প্রকাশিত : ১৭ এপ্রিল ২০১৮, ১৯:২৬

স্বাধীনতাবিরোধীরা বাংলাদেশকে নিয়ে এখনও ষড়যন্ত্র করেই যাচ্ছে বলে মুজিবনগর দিবসের অনুষ্ঠানে দেশবাসীকে সতর্ক করলেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের বৈদ্যনাথ তলার আম্রকাননে স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের শপথ গ্রহণের ৪৭ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে একই এলাকায় হয় এ সমাবেশ। এ সময় দেশবাসীকে ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সতর্কতা দেন ওই সরকারের মন্ত্রী মনসুর আলীর ছেলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মো. নাসিম এবং শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু।

নাসিম বলেন, ‘স্বাধীনতাবিরোধীরা থেমে নেই। তারা নানাভাবে তৎপর রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সতর্কতার বিকল্প নেই।’

বাঙালির স্বাধীনতার স্বপ্ন ভেঙে দিতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর অপারেশন সার্চ লাইট শুরুর পর বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা আসে। শুরু হয় প্রতিরোধ যুদ্ধ। আর ১৭ এপ্রিল মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলায় শপথ নেয় বাংলাদেশের প্রথম সরকার।

পাকিস্তানে বন্দী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি করে এবং সৈয়দ নজরুল ইসলামকে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি করে শপথ নেয়া এই সরকারে প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তাজউদ্দিন আহমেদ। আরও শপথ নেন মনসুর আলী এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামান।

পরে এই বৈদ্যনাথ তলার নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে নামকরণ হয় মুজিবনগর। সেখানে তৈরি করা হয়েছে একটি স্মৃতি কমপ্লেক্স। আওয়ামী লীগ সরকারে থাকলে মুজিবনগর দিবসে নানা আয়োজন থাকে সেখানে।

এবারও নানা আয়োজনে মুজিবনগর সরকার এবং মুক্তিযোদ্ধাদেরকে শ্রদ্ধা জানানো হয় মুজিবনগরে।

সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। পৌনে এগারটার দিকে আওয়ামী লীগ নেতারা মুজিবনগর স্মৃতিসৌধে ফুল দেন। পরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও আনসার সদস্যরা গার্ড অব অনার প্রদান করেন।

বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধে এই সরকার গঠনের অবদান অপরিসীম। একটি বৈধ সরকার গঠন না হলে এই যুদ্ধ সারা বিশ্বে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন হিসেবে পরিচিত হতো।

সভাপতির বক্তব্যে মুজিবনগর সরকারের মন্ত্রী মনসুর আলীর ছেলে মো. নাসিম আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘খেলা হবে মাঠে। সেখানে রেফারির ভূমিকা পালন করবে নির্বাচন কমিশন।’

বিএনপি-জামায়াতের প্রতি ইঙ্গিত করে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, ‘পাকিস্তানি এজেন্টরা এখনো তৎপর। তাদের সমস্ত ষড়যন্ত্র রুখে দিতে হবে।’

‘আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘বিএনপি-জামায়তকে রুখে দিয়ে বাংলাদেশকে মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠা করাই হোক আজকের মুজিবনগর দিবসের শপথ।’

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকও এই আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন। মেহেরপুর জেলা ছাড়াও পাশ্ববর্তী জেলা থেকে আসা বিপুল সংখ্যক মানুষ এই অনুষ্ঠানে জড়ো হয়।

ঢাকাটাইমস/১৭এপ্রিল/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত