যোগ্যদেরই মনোনয়ন দেবেন প্রধানমন্ত্রী: দোলন

আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর প্রতিনিধি), ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২১ এপ্রিল ২০১৮, ২৩:৫৯ | প্রকাশিত : ২১ এপ্রিল ২০১৮, ২২:৫২

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যারা যোগ্য তাদেরকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেবেন বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি, ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য আরিফুর রহমান দোলন। তিনি বলেন, ‘আগামীতে ক্ষমতায় আসতে হলে ১৫১টি আসনে আওয়ামী লীগকে বিজয়ী হতে হবে। এক্ষেত্রে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তাকেই মনোনয়ন দেবেন যিনি জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে পারবেন। আপনারা লক্ষ্য করেছেন, ইতোমধ্যে নেত্রী বলেছেন, সারা বাংলাদেশে যারা যোগ্য এমন ব্যক্তিদেরই আগামীতে মনোনয়ন দেয়া হবে।’

শনিবার রাতে ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার মেগচামী ইউনিয়নের পার আশাপুর গ্রামের মোহাম্মদ শামসুর রহমানের বাড়িতে এক উঠান বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

ফরিদপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী দোলন বলেন, ‘দিনের পর দিন, মাসের পর মাস নিজেকে বলেছি, সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি আরিফুর রহমান দোলন আপনাদের চাকর হতে চাই, ভৃত্য হতে চাই। আমি নেতা হতে চাই না। আমি আপনাদের প্রতিনিধি হয়ে আপনাদের এই অঞ্চলের অবহেলা ও বঞ্চনা ঘোচাতে কাজ করতে চাই।’

দোলন বলেন, ‘আমি যদি আপনাদের ভৃত্যই না হতে পারি তাহলে কীভাবে আপনাদের সেবা করব।’ তিনি বলেন, ‘ইদানীং লক্ষ্য করছি জনপ্রতিনিধিরা নির্বাচিত হওয়ার পর জনগণের সঙ্গে মনিবের মতো আচরণ করে। তারা মনিবের মতো আচরণ করলে কীভাবে জনগণের সেবা করবে। জনগণের সেবা করলে তাকে ভৃত্য হতে হবে। মনিব হলে চলবে না।’

সমাজসেবক দোলন বলেন, ‘জনপ্রতিনিধিদের নানা সুবিধা ও অর্থকড়ি দেয়া হয় জনগণের সেবা করার জন্য। তাদেরকে যে টাকা দেয়া হয় এটাও জনগণের ট্যাক্সের টাকা। কিন্তু সেই টাকাও আমরা আনতে পারছি না, অথচ সরকার দিতে চাচ্ছে।’

আরিফুর রহমান বলেন, ‘একজন জনপ্রতিনিধিকে কোটি টাকার গাড়ি, মাসে লাখ টাকার সুবিধা দেয়া হয় তারা জনগণের সেবা করবেন, এলাকার উন্নয়নে কাজ করবেন। কিন্তু লক্ষ্য করা যাচ্ছে, জনপ্রতিনিধিরা এগুলো করছেন না। করলে এখানকার মানুষ উন্নয়ন বঞ্চিত থাকত না।’

কাঞ্চন মুন্সি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে যে সাহায্য সহযোগিতা করি একজন সংসদ সদস্য হিসেবে এর চেয়ে অনেক গুণ বেশি সাহায্য সহযোগিতা করতে পারব, ব্যাপক পরিসরে এলাকার ‍উন্নয়ন করতে পারবে।’

দোলন বলেন, ‘একজন ব্যক্তির পক্ষে এক গ্রাম, দুই গ্রাম পাঁচটি গ্রামে সাহায্য সহযোগিতা করা সম্ভব। কিন্তু বৃহত্তর পরিসরে একটি জেলায় উন্নয়ন ও সহযোগিতা করা সম্ভব হয় না। এটা সংসদ সদস্যের জন্য সহজ হয়।’ তিনি বলেন, ‘আমি ফরিদপুরের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের জন্য এসেছি। নেতা হওয়ার জন্য, এমপি হওয়ার জন্য আসিনি। আমাকে আপনাদের সন্তান মনে করবেন। আমাকে নেতা মনে করবেন না।’

কৃষক লীগের সহসভাপতি বলেন, ‘আমাদের পারিবারিক ইতিহাস শত বছরের মানুষের সেবা করার ইতিহাস। তাহলে আপনারা বুঝে নেন আমি সেবা করার জন্যই এখানে কাজ করতে চাই। আপনাদের সেবা করতে চাই। আপনারা আমাদের সেবা করার সুযোগ দিন।’

ঢাকাটাইমস ও এই সময় সম্পাদক বলেন, ‘এখন ক্ষমতায় আছেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশের জন্ম হতো না। বঙ্গবন্ধু ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন, সে স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকলে ফরিদপুরে উন্নয়ন হবে এটা আমরা সবাই জানি। কিন্তু আশানুরূপ উন্নয়ন হচ্ছে না। আজকে এখানে আসার সময় দেখলাম কাঁচা রাস্তা। এ রাস্তা কাঁচা থাকার কথা না।’

দোলন বলেন, ‘যথাযথ দায়িত্ব নিয়ে সরকারের ফান্ড থেকে টাকা এনে উন্নয়ন করা হয়নি। সামনে বর্ষাকাল। কাঁচা রাস্তায় হাঁটতে অনেক কষ্ট। আমি কথা দিচ্ছি, সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করে হাঁটার উপযোগী অন্তত ইটের রাস্তা করে দেয়ার ব্যবস্থা করব।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আশাপুর মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন গাবরদিয়া হাইস্কুলের শিক্ষক মাওলানা আব্দুল্লাহ ফারুকি। পরিচালনা করেন মধুখালী সমবায় পরিচালক মো. বশির হোসেন।

সভায় আরও বক্তব্য দেন ফরিদপুর জেলা পরিষদ সদস্য ও কৃষক লীগ নেতা শেখ শহিদুল ইসলাম শহিদ, করোগদি ইউনিয়নের সমাজ সেবক মোকলেচুর রহমান, মেগচামী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড যুবলীগ সভাপতি মোহাম্মদ বশির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ খায়রুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. হবিবার মন্ডল, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার মন্ডল, ইউনিয়ন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২১এপ্রিল/প্রতিনিধি/ইএস/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজপাট বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত