যৌন হেনস্তার প্রশ্নে রণবীরদের ‘তামাশা’

বিনোদন ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৬ এপ্রিল ২০১৮, ১২:১৬

সিনেমায় সুযোগ পেতে হলে পরিচালক-প্রযোজক বা নায়কদের কাছে দেহ সপে দিতে হবে নায়িকা এবং অন্যান্য অভিনেত্রীদের। তাদের সঙ্গে যেতে হবে বিছানায়। ফিল্মের ভাষায় ইংরেজিতে এটাকেই বলে কাস্টিং কাউচ। ঠিক যেন ‘গিভ অ্যান্ড টেক’ পলিসির মতো। গত বছরের এপ্রিল থেকে এই কাস্টিং কাউচ নিয়েই উত্তাল গোটা বিশ্বের ফিল্ম জগত।

কাস্টিং কাউচ অর্থাৎ, সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ করে দেয়ার বদলে যৌন হেনস্তা নিয়ে উত্তেজনা শুরু হয়েছিল হলিউড প্রযোজক হার্ভে ওয়েনস্টিনের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তা ও ধর্ষণের অভিযোগ ওঠার পর থেকেই। গত বছরের এপ্রিলের কথা। #MeToo ব্যবহার করে সে সময় একশ জনেরও বেশি নারী প্রযোজক হার্ভের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছিলেন। যাদের মধ্যে হলিউডের বেশ কয়েকজন প্রথমসারির অভিনেত্রীও ছিলেন। এমনকী, যৌন হেনস্তার প্রতিবাদে হলিউডের রাস্তায় অসংখ্য নারী ও অভিনেত্রীরা একসঙ্গে মিছিলও করেছিলেন।

হলিউডে ওঠা এই প্রতিবাদই পরবর্তীতে ছড়িয়ে পড়ে বলিউডেও। সাহস করে নিজেদের সঙ্গে ঘটে যাওয়া নানা বাজে ঘটনার কথা প্রকাশ করেন দীপিকা পাড়ুকোন, প্রিয়াংকা চোপড়া, বিদ্যা বালান এবং কঙ্গনা রানাউতসহ ভারতের দক্ষিণী ছবিরও বেশ কয়েকজন অভিনেত্রী। তেলুগু অভিনেত্রী শ্রী রেড্ডি তো কয়েকদিন আগে কাস্টিং কাউচের বিরুদ্ধে অর্ধনগ্ন হয়ে প্রতিবাদও করেন। সম্প্রতি সেই স্পর্শকাতর বিষয় নিয়েই হাসি-ঠাট্টায় মেতে উঠলেন বলিউড অভিনেতা রণবীর কাপুর। 

মঙ্গলবার নতুন ছবি ‘সঞ্জু’র টিজার লঞ্চ করতে মুম্বাইয়ে গিয়েছিলেন কাপুর খানদানের জুনিয়র সদস্য। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ছবির পরিচালক রাজকুমার হিরানি এবং প্রযোজক বিধুবিনোদ চোপড়াও। তবে সবাইকে ছাপিয়ে অনুষ্ঠানের মধ্যমণি হয়ে উঠেছিলেন অভিনেতা রণবীর কাপুর। কাজেই ক্যামেরার বেশিরভাগ ফোকাস ছিল তার দিকেই। সেখানেই সাংবাদিকরা তাকে বলিউডে কাস্টিং কাউচ নিয়ে প্রশ্ন করলে হেসে খুন হন অভিনেতা।

ঠাট্টা করে রণবীর বলেন, ‘আমি কোনেদিনও এই কাস্টিং কাউচের শিকার হইনি। তবে ইন্ডাস্ট্রিতে যদি এমন কিছু থেকেও থাকে, তবে তা খুবই খারাপ।’ কিন্তু এই হাসি-ঠাট্টা শুধু রণবীরের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল না। হাসতে হাসতে রণবীরের গায়ের উপর ঢলে পড়েন নায়ক সঞ্জয় দত্তের জীবনী নিয়ে নির্মিত ‘সঞ্জু’ ছবির পরিচালক রাজকুমার হিরানি এবং প্রযোজক বিধুবিনোদ চোপড়াও।

তাদের এমন হাসাহাসি কাণ্ডের পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় উঠেছে নানা প্রশ্ন। ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে যৌন সংসর্গের পরিবর্তে অভিনয়ের সুযোগ দেয়ার রীতি কি তবে হাস্যকর ঘটনা?  বিশেষ করে, নায়ক রণবীর কাপুরের এমন অদ্ভুত অভিব্যক্তি দেখে নেটিজেনদের বক্তব্য, ‘নেপোটিজমের ধ্বজাধারীরা কাস্টিং কাউচের কী বোঝে? অনেকে আবার হতবাক হয়েছেন পরিচালক হিরানি ও প্রযোজক বিধুবিনোদের হাসি দেখেও।

ঢাকাটাইমস/২৬এপ্রিল/এএইচ

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত