নিশ্চিহ্ন হতে বসেছে কৃষি বিপ্লবের সেই বানার খাল

জামালপুর প্রতিনিধি,ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৬ মে ২০১৮, ১৯:২১

জামালপুরে নিশ্চিহ্ন হতে বসেছে কৃষি বিপ্লবের সেই বানার খাল। জামালপুর সদর উপজেলা থেকে টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার জুড়ে ঐতিহ্যবাহী এ খালটি  অবৈধ দখল ও খননের অভাবে এখন মৃত প্রায়। একসময় সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়সহ ধনবাড়ীর বেশ ক’টি ইউনিয়নের প্রায় ২৫ হাজার কৃষক সেচ সুবিধা পেত এই খালের পানি থেকে। এই খালের পানি পেয়ে অনাবাদী জমিও আবাদের আওতায় এসে কৃষি বিপ্লব ঘটেছিল এ অঞ্চলে। এখন খালটি মরে যাওয়ায় ডিপটিওবয়েল দিয়ে পানি উত্তোলন করে সেচ সুবিধা গ্রহণে কৃষি আবাদে খরচ বৃদ্ধির পাশাপাশি কমে যাচ্ছে ভূগর্ভস্থের পানির স্থর। বেদখলে ভরাট ও পানিশূন্য খালটি দখলমুক্ত এবং পুনঃখননের দাবি জানিয়েছে স্থানীয়রা।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, ১৯৭৯-৮০ সালে খাল খনন কর্মসূচির আওতায় জামালপুর সদর উপজেলার নান্দিনার বানারপাড় সেতু এলাকার ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে টাঙ্গাইল জেলার ধনবাড়ি উপজেলার সীমানা পর্যন্ত প্রায় ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ খাল খনন করা হয়। স্বেচ্ছাশ্রম এবং দফায় দফায় কাবিখার চাল ও গমের বিশেষ বরাদ্দ দিয়ে বানার খালটি খনন সম্পন্ন হয়। খালে সারাবছর পানি ধরে রাখতে শুষ্ক মৌসুমে বানার সেতুর কাছে ব্রহ্মপুত্র নদে এক ডজন শক্তিশালী পাম্প বসিয়ে পানি সরবরাহ করা হতো খালে।

জয়রামপুরের বাসিন্দা মোতালেব হোসেন জানায়, খালটি সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের মধ্যদিয়ে প্রবাহিত হতো। খালের দুই পাড়ের হাজার হাজার একর জমি সেচ সুবিধার আওতায় আসে। প্রায় এক যুগ বানার খালটি সচল থাকায় কৃষকরা স্বল্প খরচে বোরো ধানসহ কৃষি জমিতে সেচ সুবিধা ও মৎস্য চাষের সুযোগ পেয়ে আসছিল। কিন্তু প্রশাসনের নজরদারির অভাবে দিনের পর দিন বেদখল হয়ে যাচ্ছে খালটি।

শরিফপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম আলম জানান, দখলকারীরা খালের বিভিন্নস্থানে ভরাট করে ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাটসহ নানা স্থাপনা গড়ে তুলেছে। খালটি আবার খনন হলে তার ইউনিয়নসহ উপজেলার ৫ ইউনিয়নের ২৫ হাজার কৃষক সেচ সুবিধাসহ মৎসজীবীদের আয়েরও সুযোগ সৃষ্টি হবে।

খালটি বেদখলের কথা স্বীকার করে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মফিজুর রহমান বলেন, খালটি অবৈধ দখলদার মুক্ত করতে প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। দখল মুক্ত করতে সকল পদক্ষেপ নেয়া হবে।

(ঢাকাটাইমস/১৬মে/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত