আড়াই মণ ওজনের বাঘাইড়

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৬ মে ২০১৮, ২১:৫১ | প্রকাশিত : ১৬ মে ২০১৮, ২০:৫৭

কুড়িগ্রামের উলিপুর বাজারে বিরাট এক মাছ নিয়ে হুলুস্থুল হয়েছে। মাছটি এত বড় যে সেটি কেটে ছোট ছোট ভাগ করে বিক্রি করতে হয়েছে। আর কাটার আগে মাছটি দেখতে, ছবি তোলার চেষ্টায় রত ছিল মানুষ।

মাছটি ১০০ কেজি বা আড়াই মণ ওজন। এত বড় মাছ সচরাচর বাজারে আসে না। আসলেও প্রবীণরা দীর্ঘ জীবনে যাও দেখেছে, ছোটরা তাও দেখেনি। তাই তাদের মধ্যেই ছিল উৎসাহ বেশি।

মাছ ব্যবসায়ীরা জানান, কুড়িগ্রামের ধরলা, দুধকুমোর ও ব্রক্ষপুত্রের সংগমস্থলে ফকিরের চরে বুধবার ভোরে স্থানীয় এক জেলের জালে মাছটি ধরা পড়ে। শক্তিশালী মাছটিকে বাগে আনতে বেশ কয়েক ঘণ্টা চেষ্টা করতে হয় তাদের।

ভারী জালটি তীরে টেনে তোলার পর মাছটি দেখে অবশ্য সবার মুখে দেখা দেয় চওড়া হাসি। বিশাল মাছটি বিক্রি করে রোজার আগে আগে হাতে বড় অংকের টাকা আসবে জেনে তুপ্ত হয় তাদের মন।

জেলেদের কাছ থেকে মাছটি কিনে নেন মণ্টু মিয়া নামে একজন মাছ বিক্রেতা। তিনি সেটি বিক্রি করতে গিয়ে আসেন উলিপুর প্রেসক্লাব এলাকায়।

সেখানে মাছটি দেখতে তৈরি হয় জটলা। মাছটি কোথায় ধরা পড়েছে, এর নাম কী, কীভাবে সেটি ধরা পড়ল, তীরে টেনে আনতে কেমন পরিশ্রম হয়েছে, এ নিয়ে নানা প্রশ্নের জবাব দিতে হয় মণ্টু মিয়াকে।

মণ্টু মাছটি ধরেননি কিন্তু তিনি নিয়ে এসেছেন। আর এত বড় মাছ বলে তার মুখেও ছিল তৃপ্তি আর গর্বের হাসি। বিক্রি করতে আসে। বিশাল আকারের বাঘাআইর মাছটি উলিপুরে নিয়ে আসলে মাছটি দেখার জন্য উৎসুক জনতা জড়ো হয়।

বড় মাছ বলে দামটাও বড়। কেজিপ্রতি এক হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে মাছটি। যাদের সামর্থ্য আছে, তারা অবশ্য এই খরচ করতে কুণ্ঠিত হয়নি। আর যারা কিনতে পারেননি, তাদের সেলফি তুলতে বাধা ছিল না। সঙ্গে সঙ্গে সেখান থেকেই ফেসবুকে আপলোড হয়ে গেছে ছবি।

মন্টু মিয়া জানান, মাছটি বিক্রি করতে তার খুব বেশি কষ্ট করতে হয়নি। মাথা বাদ দিয়ে শরীরের মাংস এক হাজার করে বেচে তার লাভ হয়েছে ভালোই। তবে মাছটি কিনতে জেলেদেরকে কত টাকা দিতে হয়েছে, সেই গোমর ফাঁস করেননি মণ্টু।

ঢাকাটাইমস/১৬মে/প্রতিনিধি/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত