ফ্লাইওভারে বাসচাপায় গণমাধ্যমকর্মীর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ মে ২০১৮, ১৯:০৫ | প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৮, ১৩:৩১

 

প্রতিদিনের মতো মোটরসাইকেল নিয়ে বেরিয়েছিলেন নাজিম উদ্দিন। বৃহস্পতিবার সকালে যাত্রাবাড়ী থেকে মোটরসাইকেল চালিয়ে গুলিস্তান যাচ্ছিলেন তিনি। মেয়র হানিফ উড়ালসড়কে উঠতেই পড়লেন দুই বাসের প্রতিযোগিতার মুখে।

মঞ্জিল ও শ্রাবণ সুপার পরিবহনের দুইটি বাস উড়ালসড়কে পাল্লাপাল্লি করছে— কে কার আগে যাবে। এসময় শ্রাবণ পরিবহনের বাসটি নাজিমের মোটরসাইকেলটিকে দিল পেছন থেকে ধাক্কা। ছিটকে সেতুর সড়কে পড়ে গেলেন তিনি। নিমেষে বাসটি চলে গেল তার বুকের ওপর দিয়ে।

বৃহস্পতিবার সকালে যাত্রাবাড়ীর মেয়র হানিফ উড়ালসড়কে এভাবেই নগরের বাসে বাসে বিভীষিকাময় প্রতিযোগিতার বলি হন নাজিমউদ্দিন (৩৮)। তিনি ইংরেজি দৈনিক ঢাকা ট্রিবিউনের বিজ্ঞাপন কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

সকাল দশটার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী সায়েদাবাদ জনপদ মোড় এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। তার গ্রামের বাড়ি ভোলা বলে জানা গেছে। পুলিশ এই ঘটনায় মনজিল পরিবহন ও শ্রাবণ পরিহনের চালক ও হেলপারকে আটক করেছে।

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত নাজিমউদ্দিনকে উদ্ধারকারী পথচারী রাসেল মাহমুদ ঢাকাটাইমসকে জানান, মোটরসাইকেল নিয়ে নাজিমউদ্দিন যাত্রাবাড়ী থেকে মোটরসাইকেলযোগে সায়েদাবাদ জনপদ মোড়ের দিকে আসছিলেন। এসময় পেছনে থাকা একটি যাত্রীবাহী বাস তাকে ওভারটেক করার চেষ্টা করে। এসময় ওই গাড়ীর পেছনে আরও একটি গাড়ি ওভারটেক করার চেষ্টা করে। দুটি বাসের ওভারটেক করার সময় নাজিমউদ্দিনের মোটরসাইকেলে ধাক্কা লাগে। এতে তিনি মোটরসাইকেল নিয়ে রাস্তায় পড়ে যান। এসময় একটি বাসের দুইটি চাকা তার গলার উপর দিয়ে চলে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে তাকে ঢাকা মেডিকেলে আনলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

যাত্রাবাড়ী থানার বরাত দিয়ে ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই বাচ্চু মিয়া ঢাকাটাইমসকে জানান, এ ঘটনায় মনজিল পরিবহন নামে একটি পরিবহন আটক করেছে পুলিশ। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ‘মোটরসাইকেল নিয়ে নিজ বাসা থেকে কর্মস্থলে আসছিলেন। এসময় দুটি বাসের পাল্লাপাল্লিতে এই সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ঢামেকে নিয়ে আসেন। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তার পকেটে থাকা পরিচয়পত্র থেকে জানা যায়, তিনি ঢাকা ট্রিবিউনের মার্কেটিং বিভাগের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ হিসেবে কাজ করতেন।’

যাত্রাবাড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান ঢাকাটাইমসকে জানান, ‘হানিফ ফ্লাইওভারে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় শ্রাবণ পরিবহনের ড্রাইভার ও মনজিল পরিবহনের হেলপারকে আটক করে থানা আনা হয়েছে। নিহতের গ্রামের বাড়ি ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলার কালমার বালুরচরে। তিনি ঢাকার শ্যামপুরে থাকেন। সকালে অফিসের কাজে বের হয়েছিলেন।’

(ঢাকাটাইমস/১৭মে/এসএস/ডিএম)

সংবাদটি শেয়ার করুন

গণমাধ্যম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত