ফেনীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে হামলা

ফেনী প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২২ মে ২০১৮, ২১:১৩

চোরাই পথে আসা ভারতীয় শাড়ি বিক্রির দায়ে এক ব্যবসায়ীকে জেল-জরিমানা দেয়ায় ফেনী শহরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ওপর হামলা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে মিজান রোডের গ্র্যান্ড হক টাওয়ারে অভিযান চলাকালে এ হামলা হয়। এ সময় ব্যবসায়ী সামছুল আলমের দোকান কর্মচারী ও সহযোগী বিপুল সংখ্যক বহিরাগত ভ্রাম্যমাণ আদালতকে অবরুদ্ধ করে রাখে। প্রায় দেড় ঘণ্টা পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যদের নিয়ে জেলা প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তারা তাদের উদ্ধার করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানার নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত গ্র্যান্ড হক টাওয়ারের মায়াবি শাড়ি দোকানে অভিযানে যায়। আদালত দোকানে রাখা ভারতীয় শাড়ির কাগজপত্র দেখতে চাইলে দোকান মালিক সামছুল আলম সদুত্তর দিতে না পেরে উল্টো ক্ষেপে যান। তিনি উত্তেজিত হয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে অশালীন ভাষায় গালমন্দ করেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে ১ লাখ টাকা জরিমানা ও ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে দোকান কর্মচারী ও বিপুল সংখ্যক বহিরাগত জড়ো হয়ে আদালতকে অবরুদ্ধ করে রাখে। আদালতের গাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ও কাচের বোতল ছুঁড়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতবিরোধী বেশ কিছু স্লোগানও দেয় তারা। এতে মিজান রোডে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পিকেএম এনামুল করিম কয়েকজন সহকারী কমিশনার ও বিপুল র‌্যাব-পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে।

পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ব্যবসায়ী নেতাদের নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানার দেয়া সাজা মায়াবী স্বত্ত্বাধিকারী মোহাম্মদ আলমকে ১ লাখ টাকা জরিমানা, ভ্রাম্যমাণ আদালতের কর্তব্যকাজে বাধা দেয়ায় তাকে ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদ- ও আরো ১ লাখ টাকা জরিমানা বহাল রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

ঢাকাটাইমস/২২মে/প্রতিনিধি/ ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত