বদি নয়, আরও প্রভাবশালী হলেও ব্যবস্থা: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৮, ১৪:৩৬

কোনো সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে মাদক সম্পৃক্ততার প্রমাণ পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার বিষয়ে নিশ্চয়তা দিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, কক্সবাজারে আওয়ামী লীগের আলোচিত সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি বা আরও প্রভাবশালী হলেও তাকে ছাড় দেয়া হবে না।

তবে একজন সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে প্রমাণ ছাড়া ব্যবস্থা নেয়া যায় না, সেই বিষয়টিও জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক।

চলমান মাদকবিরোধী অভিযান শুরুর পর থেকে কক্সবাজারে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বিষয়টি আবার আলোচনায় এসেছে।

বিভিন্ন গোয়েন্দা সূত্রের খবর দিয়ে নানা সময় গণমাধ্যমে প্রতিবেদন এসেছে, বদি ও তার স্বজনরা ইয়াবা পাচারে জড়িত।

গত ২০ দিনের অভিযানে ৫০ জনেরও বেশি নিহত হওয়ার ঘটনায় সরকারি দলের নেতাদের কাছে বারবার বদির বিষয়ে প্রশ্ন রাখছেন গণমাধ্যম কর্মীরা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে বিআরটিএ ভ্রাম্যমাণ আদালতে সড়কমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের উপস্থিত হলে তার কাছেও বিষয়টি নিয়ে জানতে চান সাংবাদিকরা।

বদির নাম গোয়েন্দা তালিকায় আছে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হলেও তার বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না, এমন প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, ‘আবদুর রহমান বদি কেন, সরকারি দলের আরও প্রভাবশালী কেউ যদি হয়, …প্রধানমন্ত্রীর পরিষ্কার নির্দেশ মাদক ব্যবসার সঙ্গে যে বা যারা জড়িত, যত প্রভাবশালী হোক না কেন তাদের অবশ্যই অভিযানের আওতায় আনা হবে।’

প্রভাবশালীদের এখনও তো অভিযানের আওতায় আনা হয়নি-একজন গণমাধ্যমকর্মীর এমন প্রশ্নে কাদের বলেন, ‘আমি তো বলেছি আসবে। প্রমাণ করতে হবে তো? একজন এমপিকে তো এমনি ধরা যায় না। প্রমাণে যদি সে অপরাধী হয়, তাহলে তাকে অবশ্যই ধরা হবে।’

৪ মে থেকে শুরু হওয়া অভিযানে কথিত বন্দুকযুদ্ধে ব্যাপক প্রাণহানি নিয়ে মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল এবং বিএনপির পক্ষ থেকে আপত্তি এসেছে। তারা এসব নিহতের ঘটনাটিকে বিচারবহির্ভূত হত্যা আখ্যা দিচ্ছে। এভাবে ‘মেরে না ফেলে’ বিচারের দাবিও জানিয়েছে বিএনপি।

কাদের বলেন, ‘আজকে এ অভিযান জনস্বার্থে করা হচ্ছে। আমি দাবি করে বলতে পারি, বাংলাদেশের মানুষ এ অভিযানে খুশি। শুধু জনগণ খুশি হওয়ায় বিএনপির গাত্রদাহ শুরু হয়েছে।’

‘বিএনপির চিৎকারের কারণ হলো তাদের বহু লোকও জড়িত আছে, তাদেরও ছাড় দেয়া হবে না।’

বিএনপি তাদের গঠনতন্ত্র থেকে সাত ধারা পরিবর্তনের প্রসঙ্গ তুলে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘তারা নিজেরা যে আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ ও টেরোরিস্ট দল হিসাবে স্বীকার করে নিয়েছে।’

কানাডার আদালতের তিনটি রায়ে বিএনপিতে ‘সন্ত্রাসী সংগঠন’ উল্লেখ করার বিষয়টি নিয়েও কথা বলেন কাদের। বলেন, ‘তারা শুধু দেশে নয়, বিদেশেও আমাদের লজ্জা দিচ্ছে।’

‘তাদের এক কর্মী কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চাইলে কানাডার কোর্টে পরপর দুইবার…সে যখন বলেছে ‘আমি বিএনপির কর্মী’ তখনই আদালত রায় দিয়েছে বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল। এখন আপিলের চূড়ান্ত রায়ও একই এসেছে। এতে আর যাচাই-বাচাইয়ের অপেক্ষা রাখে না।’

ঢাকাটাইমস/২৪মে/টিএ/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত