শরণার্থী ইস্যুতে তীব্র চাপের মুখে মের্কেল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ জুন ২০১৮, ১৯:৩৭

জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মের্কেল, তার রাজনৈতিক জীবনে সবচেয়ে বেশি চাপের মুখে পড়েছেন। দেশটির অভিবাসন ও শরণার্থী ইস্যুকে প্রধান সমস্যা চিহ্নিত করে ২০০৫ সাল থেকে তার ক্ষমতাচ্যুত করার হুমকি দেয়া হচ্ছে।

বাভেরিয়ায় সহযোগী দল সিএসইউ অভিবাসন নীতির প্রশ্নে তার কর্তৃত্ব সরাসরি চ্যালেঞ্জ করছে৷ সমঝোতা না হলে সরকারের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে৷

২০১৫ সালে জার্মানিতে শরণার্থীদের ঢল নামার পর থেকেই চাপের মুখে রয়েছেন চ্যান্সেলর মের্কেল৷ জার্মানি এই চাপ সামলে নেবে – এমন প্রতিশ্রুতি দিয়েও শেষ পর্যন্ত দমে যেতে হয়েছিল তাকে৷

তুরস্কের সঙ্গে ইইউ’র চুক্তির মাধ্যমে শরণার্থীদের ঢল শেষ পর্যন্ত থামানো গিয়েছিল৷ ইউরোপীয় স্তরে এক সার্বিক সমাধানসূত্রের মাধ্যমে শরণার্থী সংকটের স্থায়ী সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছিলেন মের্কেল৷

কিন্তু বিশেষ করে পূর্ব ইউরোপের কিছু দেশ এ বিষয়ে সহযোগিতা করতে অস্বীকার করায় সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়৷ সাধারণ নির্বাচনে মের্কেলের শিবিরের খারাপ ফলের জন্যও তার শরণার্থী নীতিকে ঘরে-বাইরে দায়ী করতে থাকেন অনেক সমালোচক৷ জোট সরকার গড়ার পরেও সেই ভূত মের্কেলের পেছন ছাড়ছে না৷ ফলে তার ক্ষমতার ভিত্তি আবার চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে৷

সিএসইউ দল গত সাধারণ নির্বাচনে অত্যন্ত খারাপ ফল করেছিল৷ দক্ষিণপন্থী পপুলিস্ট এএফডি দল তাদের সেই দুর্বলতার ফায়দা তুলতে পেরেছিল৷

আগামী অক্টোবর মাসে বাভেরিয়ায় রাজ্য নির্বাচন৷ অভিবাসন নীতির প্রশ্নে অত্যন্ত কড়া অবস্থান নিয়ে ভোটারদের মন জয় করে হারানো সমর্থন ফিরে পেতে মরিয়া সিএসইউ দল৷

দলের নেতা ও জার্মান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার তাই নিজস্ব উদ্যোগে অভিবাসন নীতির এক খসড়া প্রস্তুত করেছেন৷ প্রয়োজনে মের্কেলকে অমান্য করেও সেই নীতি কার্যকর করতে বদ্ধপরিকর তিনি৷

সেহোফার চান, কোনো শরণার্থী অন্য দেশে নিজেকে নথিভুক্ত করে জার্মানিতে প্রবেশের চেষ্টা করলে তাকে সীমান্ত থেকেই বহিষ্কার করা হবে৷ এই প্রশ্নে সেহোফার অস্ট্রিয়া ও ইটালির রক্ষণশীল শিবিরের সঙ্গে জোট বাঁধতে চান৷

মের্কেল এই নীতির ঘোরতর বিরোধী৷ তিনি ইউরোপীয় স্তরে সমাধান খুঁজতে কিছুদিন সময় চেয়েছেন৷ বেআইনি অনুপ্রবেশ বন্ধ করার প্রয়োজনীয়তা স্বীকার করে তিনি ইউরোপের মধ্যে পারস্পরিক সমন্বয় গড়ে তুলতে বদ্ধপরিকর৷

২৮ ও ২৯ জুন ইইউ শীর্ষ সম্মেলনের আগেই সাধারণ শরণার্থী ও অভিবাসন নীতি স্থির করা সম্ভব না হলেও আপাতত বেআইনি অনুপ্রবেশ রুখতে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি স্বাক্ষর করতে চান মের্কেল৷

মের্কেল প্রথমে এই প্রশ্নে নিজের সিডিইউ দলের মধ্যেই কোণঠাসা হয়ে পড়েছিলেন৷ বৃহস্পতিবার দলের পক্ষ থেকে তার প্রতি স্পষ্ট সমর্থন প্রকাশ করা হয়েছে৷

বৃহস্পতিবার প্রথা ভেঙে সিডিইউ ও সিএসইউ সংসদীয় দল আলাদা করে বৈঠক করে যে যার অবস্থানে অটল থেকেছে৷ এমনকি সেই কারণে সংসদের অধিবেশনও মুলতবী রাখতে হয়৷ এই অবস্থায় মের্কেল নিজের কর্তৃত্ব টিকিয়ে রাখতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সেহোফারকে বরখাস্ত করতে পারেন৷ অথবা ১৯৪৯ সালের পর এই প্রথম সহযোগী দল সিএসইউ'র সঙ্গে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করতে হবে৷ সে ক্ষেত্রে সিডিইউ ও এসপিডি দলের জোট সরকার সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবে৷ সোমবারই সিএসইউ দল নিজেদের অবস্থান সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারে৷

শরণার্থী নিয়ে জার্মানির মানুষের মনেও চরম মনোভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷

একটি জনমত সমীক্ষা অনুযায়ী প্রায় ৬২ শতাংশ মানুষ সীমান্তে অবৈধ শরণার্থীদের বিদায় করার পক্ষে৷ মাত্র ৩৭ শতাংশ মানুষ মের্কেলের সরকারের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেছেন৷

সূত্র: ডয়েচে ভেলে

(ঢাকাটাইমস/১৮জুন/এসআই)

সংবাদটি শেয়ার করুন

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত