মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা, গরম বাড়বে আরও

এম গোলাম মোস্তফা
ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৮ জুন ২০১৮, ২৩:০২ | প্রকাশিত : ১৮ জুন ২০১৮, ২২:৩০

বৃষ্টিস্নাত গ্রীষ্মে এবার তাপপ্রবাহ অনুভূত হয়নি সেভাবে। ঋতুর আবর্তে এসেছে বর্ষা, কিন্তু আষাঢ়ে আকাশের এখনও দেখা মেলেনি। বরং সারাদেশে কমেছে বৃষ্টির প্রবণতা। আর এতে বেড়েছে তাপমাত্রা।

গ্রীষ্মের প্রখর রৌদ্রতাপে যে তাপমাত্রা হয়নি, বর্ষায় তা হয়েছে আরও বেশি, ফলে তাপ মাপার থার্মোমিটারে পারদ চড়েছে তার চেয়ে বেশি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের হিসাব বলছে, সোমবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৯.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শীতের মৌসুম শেষে এত গরম পড়েনি আর। এই তাপমাত্রা আগামী দুই এক দিনে আরও বাড়তে পারে।

আবহাওয়াবিদ শাহিনুল ইসলাম ঢাকাটাইমসকে জানান, এবার গরমের মৌসুমে সর্বোচ্চ তামপাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে চুয়াডাঙ্গায়।

‘তবে বিভাগের হিসাবে আজকে রংপুরের অবস্থা বেশি খারাপ। সেখানেও চল্লিশের কাছাকাছি তাপমাত্রা। তবে কিছু কিছু জায়গায় বৃষ্টি হওয়ায় তীব্রতা একটু কম।’

শাহিনুল জানান, বৃষ্টির প্রবণতা সারাদেশেই কম থাকবে তিন থেকে চার দিন। তবে রংপুর,  ময়মনসিংহ ও সিলেটের কিছু কিছু জায়গায় বৃষ্টি হবে।

রাজধানী ঢাকায় আজ সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৫.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে এমন গরমে অন্য দিনের তুলনায় বেশ সহনীয় ছিল পরিবেশ। কারণ, ঈদের ছুটি শেষ হলেও মানুষ আর যানবাহনের ভিড় এখনও সেভাবে বাড়েনি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস বলছে, রাজশাহী ও পাবনা অঞ্চলসহ খুলনা বিভাগের উপর দিয়ে বয়ে চলা মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে। আর সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে।

আবহাওয়াবিদরা অবশ্য বলছেন, পশ্চিমা একটি লঘুচাপ বিহার ও তৎসংলগ্ন এলাকায় বিরাজ করছে। এর একটি বর্ধিতাংশ বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত আছে। এর প্রভাবে রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের কোথাও কোথাও ভারী বর্ষণও হতে পারে।

ঢাকাটাইমস/১৮জুন/জিএম/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত