ছাত্রলীগের নতুন কমিটি কবে?

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ জুন ২০১৮, ১৭:৪৯ | প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৮, ১৪:৫৩
ফাইল ছবি

জাতীয় সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন যে নতুন নেতৃত্ব ঘোষণার কথা ছিল, সেটি হয়নি প্রায় ৪০ দিনেও। কবে আসছে কমিটি- এমন প্রশ্নে সুনির্দিষ্ট তারিখও জানাতে পারেননি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আগের মতোই উচ্চারণ করেন, ‘শিগগির’ শব্দটি।

গত ১১ এবং ১২ মে ছাত্রলীগের জাতীয় সম্মেলন হয় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। সম্মেলনের প্রথম দিন দেয়া ভাষণে সংগঠনটির সাংগঠনিক নেত্রী শেখ হাসিনা ভোটাভুটির বদলে সমঝোতায় নেতৃত্ব বাছাইয়ের নির্দেশ দেন।

এবার ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক হতে আবেদন করে মোট ৩২৩ জন। কাউন্সিল অধিবেশনে তাদের মধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক করা নিয়ে সিদ্ধান্তে পৌঁছতে না পেরে নেতৃত্ব নির্বাচনের সংক্ষিপ্ত একটি তালিকা শেখ হাসিনার কাছে পাঠিয়ে দেয় ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটি। কিন্তু সেখান থেকে কাউকে বাছাই করা হয়নি এখনও।

এই বিলম্বের কারণে ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসতে ইচ্ছুকদের মধ্যে হতাশা তৈরি হয়েছে। তারাও নানাভাবে আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানার চেষ্টা করছেন বিষয়টি। কিন্তু কেউই কোনো জবাব দিতে পারছেন না।

বুধবার সচিবালয়ে ওবায়দুল কাদেরের কাছে সাংবাদিকরা প্রশ্ন রাখেন, কবে আসছে ছাত্রলীগের কমিটি। কিন্তু তিনি আগের মতোই যাচাই বাছাইয়ের কথা জানান, দেননি সুনির্দিষ্ট কোনো তারিখ।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, এটা প্রাইম মিনিস্টারের কাছে আছে। আমরা এবার চুলচেরা বিশ্লেষণ করে কমিটি দিচ্ছি, যাতে পুরনো অভিযোগগুলো না আসে। ওমুক সাম্প্রদায়িক শক্তি ইত্যাদি বিষয়গুলো না আসে।’

‘কমিটি হতে বেশি সময় লাগবে না। শিগগিরই আসবে।’

গত ৩১ মেতেও সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে শিগগির ছাত্রলীগের কমিটি দেয়ার কথা বলেছিলেন কাদের। সেদিন তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের যাতে ভালো কমিটি হয়, এ বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি নিজেই তদন্ত করছেন।’

‘খুব ‍শিগগিরই ছাত্রলীগের কমিটি প্রকাশ করতে পারব বলে আশা করছি, তবে দিনক্ষণ বলতে পারব না। ছাত্রলীগের ভালো কমিটি আসবে, সবার প্রশংসা করার মতোই কমিটি আসবে।’

২০০৯ সালের শুরুতে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর বারবার ছাত্রলীগের নাম গণমাধ্যমে এসেছে নেতা-কর্মীদের নেতিবাচক তৎপরতায়। আর ভোটের বছরে এবার কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে সতর্কতার পাশাপাশি ‘নতুন মডেলের’ ছাত্রলীগের ঘোষণা দিয়েছিলেন ওবায়দুল কাদের।

অবশ্য গত ১৯ এপ্রিল এই ঘোষণা দেয়ার পর নতুন মডেলের কী, সে বিষয়টি দুই মাসের স্পষ্ট করেননি তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবশ্য নেতা-কর্মীদেরকে জানিয়েছেন, ছাত্রলীগের সম্ভাব্য নেতাদের বিষয়ে খোঁজ খবর নিতে গিয়ে এবার বংশের খোঁজও নেয়া হয়েছে। বিতর্কিতের পাশাপাশি বিরুদ্ধ রাজনৈতিক দর্শনের অনুসারীদের কারও অনুপ্রবেশ ঠেকাতে এই কাজটি করা হয়েছে।’

(ঢাকাটাইমস/২০জুন/এমএম/ডব্লিউবি/জেবি)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত