বর আসার আগেই কনের বাড়িতে হাজির ইউএনও

ফরিদপুর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৮, ১৭:২৯

বর আসার আগেই কনের বাড়িতে উপস্থিত হলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জোবায়ের রহমান রাশেদ। বন্ধ করে দিলেন বাল্যবিয়ের আয়োজন। ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল কাকলী আক্তার (১২) নামে এক স্কুলছাত্রী।

কাকলী আক্তার পাশের চরভদ্রাসন উপজেলার নয়াডাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দুপুরে ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার ভাষানচর ইউনিয়নের ইসমাইল শেখের ডাঙ্গী গ্রামে।

জানা যায়, সদরপুর উপজেলার ভাষানচর ইউনিয়নের ইসমাইল শেখের ডাঙ্গী গ্রামের মো. মোজাহারের মেয়ে কাকলী আক্তারের সাথে জেলার নগরকান্দা উপজেলার মশালজোন গ্রামের মোসলেমের পুত্র পলাশ হোসেনের (২৮) বুধবার বিকালে বিয়ের দিন ধার্য ছিল। বর পক্ষ কনের বাড়িতে হাজির হওয়ার আগেই গোপন সংবাদে দুপুর ২টার দিকে কনের বাড়িতে উপস্থিত হন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। পরে কনে কাকলী আক্তারের জন্মসনদ দেখে বয়স কম হওয়ায় তাৎক্ষণিক বিয়ে বন্ধের নির্দেশ দেন ইউএনও জোবায়ের রহমান রাশেদ। এসময় তিনি বর পক্ষকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কনের বাড়িতে আসতে নিষেধ করে দেন।

পরে ভাষানচর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মোকলেস শেখ ও স্থানীয় কাওসার শেখ কাকলী প্রাপ্তবয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেয়া হবে না মর্মে ইউএনও’র কাছে মুচলেকা দেন। এসময় সদরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জালাল উদ্দিন আহম্মেদসহ কর্মকর্তা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সদরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জোবায়ের রহমান রাশেদ জানান, বাল্যবিয়ে হচ্ছে এমন সংবাদে ভাষানচর ইউনিয়নের ইসমাইল শেখের ডাঙ্গী গ্রামে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হই। কনে কাকলী আক্তারের বিয়ের বয়স না হওয়ায় বিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়। বর পক্ষকে আসতেও নিষেধ করে দেয়া হয়।

তিনি আরো জানান, পরে বাল্যবিয়ে দেবে না মর্মে স্থানীয়দের কাছ থেকে মুচলেকা নেয়া হয়।

(ঢাকাটাইমস/২০জুন/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত