ভোটারদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে: ইসি

ব্যুরো প্রধান, রাজশাহী
 | প্রকাশিত : ১৭ জুলাই ২০১৮, ১৮:১৯

রাজশাহী সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটারদের নিরাপত্তা যে কোনো মূল্যে নিশ্চিত করা হবে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) শাহাদত হোসেন চৌধুরী।

বিএনপির পথসভায় হাতবোমা বিস্ফোরণের দিন মঙ্গলবার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে মহানগরে রাজশাহী বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির সভা শেষে এ কথা বলেন নির্বাচন কমিশনার।

একই দিন সকালে নগরীর সাগরপাড়া মোড়ে বিএনপির এক পথসভায় হাতবোমা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এতে এক সাংবাদিকসহ দুইজন আহত হন। ওই পথসভায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু উপস্থিত ছিলেন। এই হামলার জন্য আওয়ামী লীগকে দায়ী করে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দিয়েছে বিএনপি।

তবে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এএইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন এই ঘটনা বিএনপির মস্তিস্কপ্রসূত বলে অভিযোগ করেন। তার অভিযোগ ঘটনাটি তারেক রহমানের নির্দেশে ঘটিয়েছেন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু। এই ঘটনায় দুলুকে গ্রেপ্তারেরও দাবি করেন লিটন।  

হাতবোমার বিস্ফোরণের বিষয়ে এক প্রশ্নে নির্বাচন কমিশনার শাহাদত হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘ভোটারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব, যে কোনো মূল্যে আমরা তাদের নিরাপত্তা দেব।’

কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা খতিয়ে দেখা হবে জানিয়ে শাহাদত বলেন, ‘সুষ্ঠ নির্বাচনের পাশাপাশি ভোটাররা যেন ভোট দিয়ে নির্বিঘেœ বাড়ি ফিরে যেতে পারেন সেই লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করবে।’
ডনর্বাচন কমিশনার জানান, ৩০ জুলাই ভোটের ৩০টি ওয়ার্ডে ৩০টি ভ্রাম্যমাণ আদালত অবস্থান করবে। তাদের সহযোগিতায় বিজিবি ও র‌্যাবের একটি করে স্ট্রাইকিং ফোর্স টহলে থাকবে। এর পাশাপাশি ১০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ২২ থেকে ২৪ জন করে পুলিশ থাকবে। একই সাথে ভিজিলেন্স টিমও কর্মরত থাকবে। নির্বাচনী এলাকায় কোন বৈধ অস্ত্র প্রদর্শন বা বহন করা যাবে না। ৪৮ ঘণ্টা আগেই বাস, ট্রাক, অটোসহ যানবাহন চলাচল বন্ধ থকবে।
সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ ও নির্বাচনকালীন সময় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখতে রাজশাহীর জেলা ও মহানগর পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব, আনসার, জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসন, নির্বাচন কমিশনসহ স্থানীয় সকল প্রশসনের সদস্যদের নিয়ে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এই সমন্বয় সভা হয়।

আগামী ৩০ জুলাই সিলেট, বরিশালের পাশাপাশি রাজশাহী মহানগরেও ভোট হবে। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এখানে আওয়ামী লীগ নেতা এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন জিতলেও ২০১৩ সালে বিএনপির এবারের প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল জিতে যান।

ঢাকাটাইমস/১৭জুলাই/আরআর/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি নির্বাচন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত