আদিবাসীদের অধিকার নিয়ে মাহবুবুল এ খালিদের গান

বিনোদন প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৯ আগস্ট ২০১৮, ১১:০১

আজ আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস। আদিবাসীদের অধিকার, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতিকে সুরক্ষা প্রদানের স্বার্থে জাতিসংঘের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রতি বছর ৯ আগস্ট দিবসটি পালন করা হয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আজ বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে।

জাতিসংঘের তথ্যমতে, বিশ্বের ৭০টি দেশে ৩০ কোটি আদিবাসী বাস করে, যাদের অধিকাংশই অধিকারবঞ্চিত। অনেক দেশে আদিবাসীরা স্বীকৃতিই পায়নি। কোনো দেশে তাদের উপজাতি, কোনো দেশে ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী বলে অভিহিত করা হয়।

বাংলাদেশেও রয়েছে বেশ কিছু ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠী বা আদিবাসী। পাহাড় ও সমতল মিলিয়ে এরা বসবাস করছে। এসব জনগোষ্ঠী এখনো বিভিন্ন মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। প্রায়ই তারা নির্যাতিত হচ্ছে। তাদেরকে উৎখাত করে জমি ও বাড়ি দখলের ঘটনাও অহরহ ঘটছে।

আদিবাসীদের প্রতি এই অবহেলা ও নির্যাতনে ব্যাথিত মানবদরদী কবি, গীতিকার ও সুরকার মাহবুবুল এ খালিদ। আদিবাসীদের প্রতি সহমর্মিতা ও ভ্রাতৃত্ববোধের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে তার লেখা গান ‘আদিবাসী’তে। এই গানে আদিবাসীদের মানবিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠা ও তাদের সকল অধিকার নিশ্চিতের আহ্বান জানানো হয়েছে।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের সুরে ‘আদিবাসী‘ গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন কিশোর, রাজীব এবং টিনা মোস্তারি।

গানটি মাহবুবুল এ খালিদের নিজস্ব ওয়েবসাইট www.khalidsangeet.com-এ প্রকাশিত হয়েছে। ওয়েলকাম টিউন ও রিংটোন হিসেবেও গানটি ব্যবহার করা যাবে।

প্রায়ই জাতি ও উপজাতি বিভাগ করা হয়। পার্থক্য করা হয় বাঙালি এবং পাহাড়িদের মাঝে। অনেক সময় জঙ্গলবাসী বলে আদিবাসীদের তাচ্ছিল্য করা হয়। তাদের নির্যাতন করা হয়। কিন্তু আদিবাসীরাও এ দেশের নাগরিক। তারা এই মাটিরই সন্তান। সুতরাং সব ধর্ম, বর্ণ ও গোত্রের মানুষ এ দেশের ওপর অধিকার ও দাবি রয়েছে।

পাহাড়ি-বাঙালি বিভেদ নয়। এ দেশে হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, হাজং মুরং, চাকমা, রাখাইন, সাঁওতাল, গারো ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে মিলে মিশে থাকবো। কারণ আমাদের একটাই পরিচয় - আমরা বাংলাদেশি। মাহবুবুল এ খালিদের লেখা ‘আদিবাসী’ গানে এ আহ্বান ধ্বণিত হয়েছে।

(ঢাকাটাইমস/৯আগস্ট/এজেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত