গাড়িতে ‘দুদক’ নাম ব্যবহার না করার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৫ আগস্ট ২০১৮, ১৭:৫৮

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ প্রতিষ্ঠানটির সব কর্মকর্তা ও কর্মাচরীদের নির্দেশ দিয়েছেন, তারা যেন তাদের গাড়িতে দুদকের নামে কোনো ফলক ব্যবহার না করে।

১৫ আগস্ট শোক দিবস উপলক্ষে আজ বুধবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমন নির্দশ দেন তিনি।

একই সঙ্গে অফিসের সময় ছাড়া কারও গাড়িতে দুদকের নামফলক থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হুঁশিয়ারি দেন দুদক চেয়ারম্যান।

গত ২৯ জুলাই ঢাকার বিমানবন্দর সড়কের এমইএসে বাসচাপায় নিহত হয় ফুটপাতে অপেক্ষমাণ দুই শিক্ষার্থী। এ ঘটনার জেরে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষার্থীরা নিরাপদ সড়কের দাবিতে প্রায় সপ্তাহ খানেক সময় রাস্তা অবরোধ করে। এ সময় তারা সড়কের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নিয়ে রাস্তায় চলাচলরত ইঞ্জিনচালিত গাড়ির চালকদের লাইসেন্স ও কাগজ পরীক্ষা করে।  বাদ যায়নি মন্ত্রী-আমলা-সাংবাদিক কিংবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়িও।

এ সময় শিক্ষার্থীদের হাতে দেশের দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা দুদকের স্টিকারযুক্ত গাড়ি আটক হয়। কারণ ওই গাড়ির চালক লাইসেন্স দেখাতে পারেননি। শিক্ষার্থীদের এই কাজে দুদক চেয়ারম্যান সমর্থন দিয়ে বলেন, তারা সঠিক কাজটি করেছে। যারা আইন মানেনি তাদের শিক্ষা হওয়ার দরকার ছিল।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘সেদিনের ঘটনার পর আমরা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে প্রত্যাহার করেছি শুধু দুদকের নেমপ্লেট ব্যবহার করার কারণে। আমরা যাচাই করে দেখেছি তার সব কাগজপত্রই ঠিক ছিল। কিন্তু দুদক নেমপ্লেট সে ব্যবহার করার জন্য ছাড় দেইনি আমরা।’

গাড়িতে দুদকের স্টিকার না লাগাতে সংশ্লিষ্টদের আদেশ দেন ইকবাল মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘অফিস শেষে কেউ দুদকের নাম ব্যবহার করবেন না, গাড়িতে কোনো দুদক নেমপ্লেট লাগাবেন না। কারণ, রাস্তায় গেলে আপনারা তখন সাধারণ মানুষ।’  

বিআরটিএতে অসন্তুষ্ট দুদক প্রধান

‘আমার খুব ইচ্ছা ছিল আমাদের লোকজন বিআরটিএতে যাক, কিন্তু দেইনি অন্য একটি কারণে। আমি অবাক হই, যেসব গাড়ি রংচটা, ভাঙাচুরা, হেডলাইট নাই সে গাড়িগুলো কীভাবে বিআরটিএর অনুমোদন পায়!’

আইন না মানাই দুর্নীতি

দুদকের চেয়ারম্যান মনে করেন রাষ্ট্রের বিদ্যমান যেকোনো আইন না মানাই সবচেয়ে বড় দুর্নীতি। সরকারের বিভিন্ন পর্যায় থেকে শুরু করে জনসাধারণ পর্যন্ত প্রত্যেকের মন থেকে যত দিন না এই দুর্নীতিপ্রবণতা দূর হবে, তত দিন  সুন্দর রাষ্ট্র গঠন সম্ভব হবে না বলে মনে করেন তিনি। তিনি বলেন, এখানে শিক্ষার্থীরাও সঠিক বিদ্যা অর্জন করতে পারবে না যদি দুর্নীতি নিয়ন্ত্রণ করা না যায়।

তার সাম্প্রতিক এক বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমি এর আগেও বলেছি, আইন কীভাবে মানাতে হয় সেটা আমরা দেখিয়ে দেব। আমরা চাইছি  সড়কে কীভাবে তিনটা লেন করা যায়, একটি পাবলিক বাসের জন্য, একটি প্রাইভেট গাড়ির জন্য ও একটি ইমার্জেন্সির জন্য। কিন্তু আমাদের একটাই সমস্য- দুর্নীতি, আইন না মানা।’

(ঢাকাটাইমস/১৫আগস্ট/এএকে/মোআ)

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত