‘হুজ হু বাংলাদেশে’ ১৪৪ নাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৯ আগস্ট ২০১৮, ২৩:৫৬

বাংলাদেশের শিক্ষা, সংস্কৃতি, সাহিত্য, ক্রীড়া, কৃষি, সাংবাদিকতা, ব্যবসা বাণিজ্য এবং নারী উদ্যোগতাদের মধ্যে থেকে স্ব স্ব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য ১৪৪ জন ব্যক্তির সংক্ষিপ্ত জীবন বৃত্তান্ত প্রকাশ করলো আন্তর্জাতিক প্রকাশনা হুজ হু বাংলাদেশ।

ররিবার রাজধানির কারওয়ানবাজারে ‘এমটিবি’ ভবনে  এই প্রকাশনার মোড়ক উম্মোচন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিবছর এ প্রকাশনা করা উচিত, এ প্রকাশনাটা কাজে লাগে। বিশেষ ক্ষেত্রে কারো সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে ‘হুজ হু’ দেখে ঠিক করে নেওয়া যায়। আন্তর্জাতিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে খুব কাজে লাগে।’

প্রতিবছর  প্রকাশনাটি  প্রকাশ করার উপর গুরুত্বারোপ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বছরের শুরুতে পাওয়া যায় সেটা করতে হবে। নাম ও ক্ষেত্রের সাথে ঠিকানাটাও দিতে হবে। এতে তার সাথে যোগাযোগ করাটা সহজ হবে।’

‘আমি আবার স্মরণ করছি, ১৯৫০ সালে যেটা প্রকাশিত হয়, তার প্রকাশক ছিলেন ব্যরিস্টার আব্দুর মুত্তাকিম চৌধুরী। প্রতিবছর বের করলে উপযোগী হিসেবে কাজ করবে।’ 

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইমেরিটাস আনিসুজ্জামান বলেন, ‘এই জীবনীপঞ্জিতে কোন দেশের বিশেষ ব্যক্তিদের বিস্তারিত তথ্য সন্নিবেশিত করা হয়।…  এ প্রকাশটা নিয়মিত হওয়া উচিত। স্থপতি চিকিৎসক, আইনজীবীসহ সমাজের সকল ক্ষেত্রে থেকে বিশিষ্টজনের নাম সংযুক্ত করা উচিত।’

‘২০১৬ সালেরটা এখন প্রকাশিত হলেও নিয়মিত উদ্যেগ নিলে ভাল হয়। ছবি কম করে বেশিজনের কথা থাকলে ভাল হয়। আশা করি এ প্রকাশনার ধারাবাহিকতা থাকবে।’

 

জাতিসংঘের বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এ কে আব্দুল মোমেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আলোচনা করেন ‘হুজ হু বাংলাদেশ’ এর প্রধান নির্বাহী নাজিনুর রহিম, মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ, সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুলসহ প্রমুখ।

আব্দুল মোমেন বলেন, ‘প্রতিটি উন্নত দেশেই হুজ হু প্রকাশ হয়। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে। এখানেও এটা নিয়মিত প্রকাশিত হবে আশা রাখি।…তরুণরা জানতে পারবে বাংলাদেশের গুনিজনদের।’

‘হুজ হু’ ১৮৪৯ সাল থেকে যুক্তরাজ্যেসহ সারা বিশ্বে অনুসরণীয় গুণীজনদের সংক্ষিপ্ত জীবনী প্রকাশ এবং পদক দিয়ে আসছে। ৬৭টি দেশ থেকে এ প্রকাশনাটি  প্রকাশিত হয়।  এখন পরযন্ত তারা বিশ্বে ৩৩ হাজার গুণীজনের সংক্ষিপ্ত জীবনী প্রকাশ করেছে। 

প্রকাশনায় কৃষিতে শাইখ সিরাজ, শিল্প ও সংস্কৃতিতে সনজিদা খাতুন, শিক্ষাক্ষেত্রে অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, সাংবাদিকতায় তোয়াব খান, শিল্প ও সাহিত্য হাসান আজিজুল হক, সামাজিক কর্মকান্ডে ফজলে হাসান আবেদ, ক্রীড়া ক্ষেত্রে আকরাম খান, শিল্প বাণিজ্য ক্ষেত্রে রহিম আফরোজ গ্রুপ, উদ্যেক্তা হিসেবে এম আনিস-উদ্দৌলা, নারী উদ্যেক্তা প্রীতি চক্রবর্তীর নাম আছে।

প্রবাসীদের মধ্যে আইনজীবী মনোয়ার হোসেন গুণী মানুষ হিসেবে এই পদক পান। লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড পান আব্দুল গাফফার চৌধুরী।

(ঢাকাটাইমস/১৯আগস্ট/জেআর/ডব্লিউবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত