এখনও ঈদ-আনন্দে মুখর বিনোদন কেন্দ্রগুলো

কাজী রফিকুল ইসলাম, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৫ আগস্ট ২০১৮, ১৩:৫২ | প্রকাশিত : ২৫ আগস্ট ২০১৮, ১৩:৪৯

ঈদ মানেই বিনোদন। ঈদ মানেই আপনজনদের নিয়ে একটু ঘোরাফেরা। সারা বছর যারা নানা ব্যস্ততায় একটু ঘুরতে বের হতে পারেন না তারাও ঈদ এলে বেরিয়ে পড়েন একটু বিনোদনের খোঁজে। এজন্য প্রতি ঈদেই মুখর হয়ে উঠে বিনোদন কেন্দ্রগুলো।

এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। ঈদুল আজহা পালিত হয়েছে তিন দিন আগে। ঈদের চতুর্থ দিন শনিবারও ভিড় কমেনি বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। এখনও ঈদ আনন্দে মুখর রাজধানী ও আশপাশের বিনোদন ও পর্যটন কেন্দ্রগুলো। 

রাজধানীর অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র শ্যামলীর শিশুমেলা ও শাহবাগ শিশুপার্ক। উপলক্ষ পেলেই রাজধানীবাসী ভিড় করেন এই দুটি বিনোদন কেন্দ্রে। শিশুতোষ বিনোদন কেন্দ্র হলেও সব বয়সের মানুষের পদচারণায় মুখরিত এই বিনোদন কেন্দ্র দুটি। শনিবার সকালে ভিড় একটু কম ছিল। তবে বেলা গড়াতেই ভিড় বাড়ছে। বিকালে ভিড় আরও বাড়বে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

জমে উঠেছে সারা বছর নিষ্ক্রিয় থাকা আটিবাজার মেরিন শিশুপার্ক। বছরের অন্যান্য সময় দর্শনার্থী শূন্য থাকা শিশুপার্কটি শনিবার ছিল ঈদ আনন্দে মুখরিত।

কেরানীগঞ্জ কলাতিয়া বাজার থেকে কিছুটা আগে তারানগর উপজেলায় শ্যামল বাংলা রিসোর্ট। ইট পাথরের শহর মাড়িয়ে ঈদের আনন্দ একটু বাড়াতে বন্ধুদের সাথে শ্যামল বাংলা রিসোর্টে এসেছেন শহিদ হাসান। গ্রামীণ পরিবেশে এসে ঈদের আনন্দ অনেকটাই বেড়ে গেছে বলে জানান তিনি।

ঢাকাটাইমসের সঙ্গে আলাপকালে শহিদ বলেন, 'ঢাকার সব তো দেখাই আছে। সবই ইট-পাথর। গ্রামের একটু ছোঁয়া সবসময় পাওয়া হয় না। ঢাকার সব বিনোদন কেন্দ্রের চাইতে এই জায়গাটা আলাদা। তাই সবাই মিলে চলে আসলাম। ছুটি শেষ হলে তো আর আসার সুযোগ হবে না।'

ঢাকার খুব কাছে হওয়ায় রিসোর্টটিতে জনসমাগম বেশ ভালো। এখানে আগত দর্শনার্থী রিফাত হোসেন ঢাকাটাইমসকে বলেন, 'ঈদের ছুটিতে ঘুরতে আসছি। খুব ভালো লাগছে। ট্যারাকোটাগুলো বেশি ভালো লাগছে।'

শ্যামল বাংলা রিসোর্টের সহকারী ম্যানেজার ও আইটি বিভাগের প্রধান মো. জহিরুল ইসলাম ঢাকাটাইমসকে বলেন, 'আমাদের এখানে সারা বছর গেস্ট থাকে। ছুটির সময়ে ভিড়টা একটু বেশিই থাকে। আমরাও আমাদের সাধ্যমত তাদের সেবা দিচ্ছি। শালীনতা বজায় রাখার শতভাগ চেষ্টা করছি।'

গরম থেকে পরিত্রাণ পেতে এখানে আগত বেশির ভাগ দর্শনার্থী নামছেন সুইমিংপুলে। বয়স্কদের পাশাপাশি এসময় সুইমিংপুলে আনাগোনা ছিল শিশুদেরও।

সাঁতারপ্রিয়দের একটি বড় অংশ ভিড় জমিয়েছেন সাভারের ফ্যান্টাসি কিংডমে। রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে মিজান, সুজন, সাইফুল ও সজীব যুগলবন্দী হয়ে এসেছেন ফ্যান্টাসি কিংডমে। সপরিবারে ঈদের আনন্দ উপভোগ করতে এসেছেন তারা।