রাঙামাটিতে পচা চাল বিতরণের অভিযোগ

রাঙামাটি প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:৪৩ | প্রকাশিত : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:২১

রাঙমাটির বরকল উপজেলায় স্বল্প আয়ের মানুষের জন্য খাদ্যবান্ধব প্রকল্পের আওতায় নি¤œমানের চাল সরবরাহের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলায় সরবরাহকৃত ৭৫ মেট্রিক টন চালের অধিকাংশই পচা ও পোকা ধরে খাওয়ার অনুপযোগী বলে সুবিধাভোগীরা জানান। কেজি প্রতি ১০ টাকা হারে উপজেলায় মোট ১২৯৩ পরিবাররকে দেয়ার কথা রয়েছে।

সোমবার এসব চাল বিতরণের সময় ডিলার ও সুবিধাভোগীরা বাকবিত-ায় জড়িয়ে পড়েন।

প্রকল্পের সুবিধাভোগী বরকল সদর ইউনিয়নের প্রেমলতা চাকমা, সুশীল বিন্দু চাকমা, আনন্দ সিং চাকমা, দয়ামূখী চাকমা বলেন, চালগুলো খাওয়ার উপযোগী নয়। অধিকাংশ চাল পঁচা ও পোকায় আক্রান্ত।

উপজেলা খাদ্য বিভাগ জানায়, উপজেলার ৫ ইউনিয়নের মধ্যে বরকল সদর ইউনিয়নে ১৭৬ পরিবার, সুবলং ইউনিয়নে ৩৭৬, আইমাছড়া ইউনিয়নে ২১৬, ভুষণছড়া ইউনিয়নে ৪১২ এবং বড় হরিণা ইউনিয়নে ১১২ পরিবার এ প্রকল্পের আওতায় ১০ টাকার মূল্যের ৩০ কেজি করে চালা পাবেন।

প্রকল্পের ডিলার মো. তমীর আলী ও বীরো জয় চাকমা বলেন, সরকারের চাল পচা গলা হলেও আমাদের সেটা নিতে হয়।
আমরা এ নিয়ে অভিযোগ করলেও তা গুদাম কর্তৃপক্ষ আমলে নেয় না। ফলে তারা আমাদের যা দেন তা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয়।

প্রকল্পের চাউল পরিবহনকারী ঠিকাদার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, জেলা সদরের খাদ্য গুদাম থেকে চালগুলো উপজেলা খাদ্য গুদামে সরবরাহ করা তার কাজ। চালের গুণগত মান যাচাই করা তার কাজ নয়।

উপজেলা খাদ্য গুদামের ওসি এলএসডিও নিশান চাকমা বলেন, সরবরাহকৃত চালগুলোর মধ্যে কিছু ভালো কিছু মন্দ রয়েছে। তবে আমি সব চাল দেখিনি।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মন্টু মনি চাকমা নিমানের চালের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, সরকার বিভিন্ন জায়গা থেকে চাল ক্রয় করায় চালগুলো ভালো মন্দ হয়। এছাড়াও কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রশাসনিক জটিলতার কারণেও এসব সমস্যা সৃষ্টি হয়। এতে আমাদের কিছুই করার থাকে না।

ঢাকাটাইমস/১০সেপ্টেম্বর/প্রতিনিধি/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

অপরাধ ও দুর্নীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত