ঐক্যের জন্য কী ছাড় দেবে বিএনপি?

বোরহান উদ্দিন, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:১২ | প্রকাশিত : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৮:১৬
ফাইল ছবি

দুই দলের বাইরে তৃতীয় শক্তি হওয়ার ঘোষণা দিয়ে গঠন করা তিন দলের মোর্চা যুক্তফ্রন্ট এবং কামাল হোসেনের গণফোরামের সঙ্গে ঐক্যের জন্য ছাড় দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। তবে এই ছাড় কোন বিষয়ে তা স্পষ্ট করছেন না নেতারা। 

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘কী ছাড় দেয়া হবে সেটি সময় হলে সব জানতে পারবেন। এত তাড়াহুড়া করার কিছু নেই।’

আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপির এই জোট গঠনের চেষ্টা চলছে বছরের শুরু থেকেই। এর মধ্যে যুক্তফ্রন্টের পক্ষ থেকে মাঝে ১৫০টি আসনে ছাড় দাবি করায় ঐক্য প্রক্রিয়াটি ঝুলে যাওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়।

আবার কামাল হোসেন শর্ত দিয়ে বসে আছে, বিএনপিকে জামায়াত ছাড়তে হবে। দেড় যুগের মিত্রকে দলটি ত্যাগ করবে কি না, সেই প্রশ্নও বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।

এর মধ্যে শনিবার বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপি ঐক্যের স্বার্থে ছাড় দেবে। আর সোমবার ২০ দলের বৈঠকেও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয় আর সেখানে শরিকদেরও এই মত আসে বলে জানিয়েছেন বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান।

বিএনপিকে শর্ত মানতে হলে জামায়াতকে বাদ দিতে হয়। তাহলে জোটের বৈঠকে কি জামায়াত এই বিষয়টি মেনে নিয়েছে?- এমন প্রশ্নে ওই বৈঠকে অংশ নেয়া একটি শরিক দলের নেতা বলেন, জামায়াতের প্রতিনিধি আবদুল হালিম এই বিষয়টি নিয়ে কোনো কথাই বলেননি।

এই অবস্থায় বিএনপি যুক্তফ্রন্টকে কী ছাড় দেয় আর জামায়াত নিয়ে কী অবস্থান নেয়, এই জিজ্ঞাসা বড় হয়ে উঠেছে রাজনীতি নিয়ে আগ্রহীদের পাশাপাশি বিএনপির নেতা-কর্মীদের মধ্যেও।

যুক্তফ্রন্টে যে তিনটি দল ও সংগঠন আছে তার মধ্যে সবচেয়ে পুরনো হচ্ছে জাসদ ভেঙে বের হয়ে গঠন করা জেএসডি। নেতা আ স ম আবদুর রব ১৯৮৮ সালের নির্বাচনের পর গৃহপালিত বিরোধীদলের নেতা হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিলেন। তবে তিনি তার নির্বাচনী এলাকা লক্ষ্মীপুরে আর এখন ভোটে পাস করে আসার মতো অবস্থানে আছেন, এমনটি আত্মবিশ্বাস নিয়ে বলতে পারেন না তার ঘনিষ্ঠজনরাই।

সাবেক রাষ্ট্রপতি এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী প্রতিষ্ঠাকালে বিএনপিরই সদস্য ছিলেন। ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর তাকে রাষ্ট্রপতিও বানায়। পরে অপমান করে পদ ছাড়তে বাধ্যও করে আর তিনি বিএনপির ছেড়ে গঠন করেন যুক্তফ্রন্ট। ২০০৮ সালের নির্বাচনে মুন্সিগঞ্জে নিজের আসনে বি চৌধুরী তৃতীয় হয়েছেন। সে সময় ঢাকা-৬ আসনে জামানতও হারান তিনি।

আরেক সংগঠন নাগরিক ঐক্য মূলত তার প্রধান মাহমুদুর রহমান মান্না কেন্দ্রীক। এর নেই বলার মতো সংগঠন বা নেতা-কর্মী।

এই জোটই বিএনপির কাছে ১৫০টি আসন দাবি করা নিয়ে বিএনপির নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে বিরক্তি আছে। তবে বি চৌধুরী এই দাবির একটি ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দাবি খুব স্পষ্ট। ক্ষমতার ভারসাম্য আনতে হবে। যত বড় দলই হোন না কেন নির্বাচনে তাদের ১৫০সিটের নীচে থাকতে হবে। বিএনপিও যদি সত্যি ক্ষমতায় আসে তাহলে তাদের ১৫০টি সিট দিতে হবে। আমরা এমন প্রস্তাব দিয়েছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ক্ষমতার ভারসাম্য এটা এখন কি গুরুত্বপূর্ণ? আমরা কি কালকে নির্বাচন করতে যাচ্ছি যে ক্ষমতার ভারসাম্য আনতে হবে? তারা হয়তো তাদের মত একটা প্রস্তাব দিয়েছে।’

বিএনপির ওই নেতা জানান, তারা ছাড় দেয়ার কথা বললেও কী ছাড় দেয়া হবে সেটা চূড়ান্ত ঞয়নি। বলেন, ‘ঐক্যের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা আনুষ্ঠানিকতায় রূপ নিলে এসব বিষয় সমাধান হয়ে যাবে। সেক্ষেত্রে বিএনপিও নিজস্ব কর্মকৌশল ঠিক করতে কাজ করছে।

তবে নানা মাধ্যমে পাওয়া খবর বলছে,  ঐক্য হলে যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরামকে আলাপ আলোচনার ভিত্তিতে আসন ছেড়ে দিবে বিএনপি। এছাড়া ক্ষমতায় গেলে দেশে সুশাসন, গণতন্ত্র রক্ষায় কী কী পদক্ষেপ নেয়া হবে সেসব বিষয় সুনির্দিষ্ট ঘোষণা থাকবে।

জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমদ আযম খান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘যাদের সঙ্গে কথা হচ্ছে যতদূর জানি বিএনপি দলগতভাবে কথা বলছে। তাদের সঙ্গে ২০দলের পক্ষ থেকে কথা হচ্ছে না। আর ঐক্যের বিষয়টা আরো সামনের দিকে গেলে তখন এসব বিষয়গুলো অবশ্যই সমাধান হবে।’

বিএনপির জোটে আপত্তি আছে

বিএনপি যদিও বলছে জাতীয় ঐক্যের জন্য ছাড় দিতে শরিকদের সায় আছে, তারপরও একটি শরিক দল খোলাখুলি বিএনপিকে এই চেষ্টা বাদ দিতে বলেছে।

সাবেক বিএনপি নেতা অলি আহমেদের লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি যুক্তফ্রন্ট আর গণফোরামকে জনবিচ্ছিন্ন দল আখ্যা দিয়ে বিএনপিকে নিজেদের শক্তিশালী করার তাগাদা দিয়েছে।

অলি আহমেদ বলেছেন, ‘জনবিচ্ছিন্ন দলগুলো যাদের সাপোর্টার নাই তাদের নিয়ে ঐক্য করে কোনো লাভ নেই।’

 (ঢাকাটাইমস/১২সেপ্টেম্বর/বিইউ/ডব্লিউবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত