আশুলিয়ায় সিম্ফনির মোবাইলফোন কারখানা উদ্বোধন

‌বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযু‌ক্তি প্র‌তি‌বেদক
 | প্রকাশিত : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৪:০৯

এখন থে‌কে সিম্ফ‌নি দেশেই মোবাইল ফোন উৎপাদন করবে। আজ সকালে আশুলিয়ার জিরাবোতে সিম্ফনির নবনির্মিত মোবাইলফোন কারখানা ‘এডিসন ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড’ উদ্বোধন করা হয়েছে। মোবাইলফোন কারখানা উদ্বোধন করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

কারখানাটি উদ্বোধনের পর মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘এর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের জন্য নতুন অধ্যায়ের সূচনা হলো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছা ছিল বাংলাদেশেই মোবাইল ফোন উৎপাদন হবে। সেই স্বপ্ন পূরণের সঙ্গী হলো সিম্ফনি। এজন্য সিম্ফনিকে ধন্যবাদ’।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের স্মার্টফোন বাজার ব্যাপক সম্ভাবনাময়। কিন্তু মোবাইল হ্যান্ডসেটের জন্য আমাদেরকে বিদেশি কোম্পানির ওপর নির্ভর করতে হত। এ খাতে দেশীয় শিল্পের বিকাশ মুখ থুবড়ে পড়েছিল। সিম্ফনি মোবাইলফোন কারখানা স্থাপনের মধ্য দিয়ে সে পরিস্থিতির উত্তরণ ঘটল’।

এডিসন গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর জাকারিয়া শাহীদ জানান, ‘‘সরকার যখন মোবাইলফোন কারখানা করার জন্য অনুমোদন দেয় তখন আমরা ‘এ’ ক্যাটাগরির কারখানার জন্য আবেদন করি এবং বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) আমাদের আবেদন মঞ্জুর করে। সিম্ফনির কারখানায় আন্তর্জানিক মানের হ্যান্ডসেট উৎপাদনে আমরা বদ্ধপরিকর’’।

মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সফরসঙ্গীদের নিয়ে সিম্ফনি মোবাইলফোন কারখানার প্রডাকশন লাইন, গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগ, মাননিয়ন্ত্রণ বিভাগ ও টেস্টিং ল্যাব ঘুরে দেখেন।

সিম্ফনি সূত্রমতে, আশুলিয়ার জিরাবোতে ৫৭ হাজার বর্গফুট জায়গাজুড়ে গড়ে তোলা হয়েছে এডিসন ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। এখানে হ্যান্ডসেট সংযোজন, গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগ, মাননিয়ন্ত্রণ বিভাগ ও টেস্টিং ল্যাব রয়েছে। এছাড়া স্থাপন করা হয়েছে জাপান ও জার্মান প্রযুক্তির মেশিনারিজ।

কারখানাটিতে প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ জন মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। স্মার্টফোন কারখানাটিতে প্রাথমিকভাবে বার্ষিক ৩০-৪০ লাখ ইউনিট হ্যান্ডসেট উৎপাদন করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এরই মধ্যে আটটি প্রডাকশন লাইন স্থাপন করা হয়েছে। আরো কয়েকটি প্রডাকশন লাইন করার পরিকল্পনা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এডিসন ইন্ডাস্ট্রিজ এর ডিরেক্টর এসএম মোর্শেদুজ্জামান বলেন, ‘উন্নতমানের কথা চিন্তা করে আমরা ৮০ ভাগ জনবল কারিগরি প্রতিষ্ঠান থেকে নিয়োগ দিয়েছি এবং তাদেরকে কয়েকমাস ধরে হাতে কলমে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এছাড়াও এখানে কারখানা পরিচালনার জন্য যাদেরকে নিয়োগ করা হয়েছে তাদের সবাইকেই দেশে বিদেশে বিভিন্ন জায়গায় প্রশিক্ষন দেয়ার মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে। কারিগরি দিক থেকে স্বল্পতা থাকার পরেও এই কারখানায় সন্তোষজনক নারীকর্মী নিয়োজিত আছেন এবং আমাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা মতে এর পরিমাণ ধাপে ধাপে বৃদ্ধি পাবে’।

এ সময় সিম্ফনির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

(ঢাকাটাইমস/২৩‌সে‌প্টেম্বর/এ‌জেড)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত