‘রাষ্ট্রপতির কথা উপলব্ধি করার মতো নেতৃত্ব নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৯ অক্টোবর ২০১৮, ২০:২৫

রাজনীতিকে গরিবের বউয়ের সঙ্গে তুলনা করে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ যে বক্তব্য দিয়েছেন তা রাজনীতিবিদরা ‍উপলব্ধি করলে তাদের জন্য ভালো হবে বলে মনে করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা মইনুল হোসেন। তবে এই বক্তব্য উপলব্ধি করার মতো নেতৃত্ব রাজনীতিবিদদের মধ্যে নেই বলে মনে করেন তিনি।

সোমবার রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের ‘মুক্তবাক’ নামের একটি টক শোতে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। ‘রাজনীতি গরিবের বউ’ শিরোনামের এই আলোচনায় তার সঙ্গে আলোচক হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপন করেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক রাহুল রাহা।

রাষ্ট্রপতি তার এই বক্তব্যের জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকবেন উল্লেখ করে মইনুল হোসেন বলেন, ‘দেশের রাজনীতিতে উপলব্ধি কমে গেছে। আমলাদের রাজনীতিতে আসার মাধ্যমে রাজনীতি রাজনৈতিকদের হাতে নেই।’

‘রাজনীতি রাজনীতিবিদদের হাতে নেই। রাষ্ট্রপতি যে কথা বলেছেন তা যদি দেশের রাজনীতিবিদরা উপলব্ধি করে তাহলে ভালো হবে। কিন্তু দেশে সেই উপলব্ধি করার মতো নেতৃত্ব নেই। কারণ অনেকেই হঠাৎ করে রাজনীতির পদে এসে যান। এভাবেই রাজনীতি আমলাদের হাতে চলে যাচ্ছে।’

রাজনীতির সংকটের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘রাজনীতিবিদেরা যত বড় বড় কথা বলুক, রাজনীতি তাদের হাতে নেই।’ রাজনীতিবিদদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘রাজনীতিবিদেরা আর যাই করুক তারা যখন ক্ষমতায় থাকে, জনগণকে বাদ দিয়ে নির্বাচনের কথা চিন্তাই করতে পারে না। তারা বোঝে যে, জনগণের সাথে বেইমানি করা হবে। তারা ক্ষমতায় না থাকলেও জনগণের সামনে তাদের আসতে হবে। আমলাদের সাজানো নির্বাচনে জয়ী হয়ে তারা বলে আমরা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হয়েছি।’

এই বক্তব্যের সঙ্গে অনেকটা একমত পোষণ করেন সাবেক আইনমন্ত্রী আবদুল মতিন খসরু। তিনি বলেন, ‘রাজনীতিতে দুটি ইফেক্ট এসেছে। বড় ব্যবসায়ীরা রাজনীতিতে আসছেন। তারা মনে করছেন, আমরা চাঁদা দেব কেন? আমরাই তো রাজনীতি করতে পারি। আমার টাকায় ওরা নির্বাচন করবে, এরচেয়ে আমিই তো করতে পারি।‘

‘ব্যবসায়ীদের একটি বড় অংশ ঝুঁকছে রাজনীতিতে। এতে করে অন্যের ধার ধারতে হচ্ছে না। বরং টাকা ও ক্ষমতার সঙ্গে সঙ্গে  অনায়াসেই স্বার্থ হাসিল হচ্ছে। ব্যবসায়ীদের এমন প্রবণতা দেশের রাজনীতিকে দূষিত করেছে।’

টাকাওয়ালা মনোনয়ন শুরু করেছে বিএনপি’

নির্বাচনে মনোনয়ন প্রসঙ্গে আলোচনায় মইনুল হোসেন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর সময় ব্যক্তিত্বদের নমিনেশন দেয়া হতো। পরে আমলা ঢুকে গেছে। আজকাল নমিনেশন বিক্রি হয়, চার কোটি পাঁচ কোটি টাকায়। আমাদের সময় বঙ্গবন্ধু টাকা দিয়ে গেছেন, তোমরা ইলেকশন করো। এখন পাঁচ কোটি, ১০ কোটি টাকা না হলে নমিনেশন পাওয়া যায় না।’
এই প্রবণতা বিএনপি শুরু করেছে দাবি করে আবদুল মতিন খসরু বলেন, ‘বিএনপি যখন টাকাওয়ালাদের নমিনেশন দেয়া শুরু করল, তখন অন্যরা ওই প্রার্থীর বিপরীতে প্রার্থী দিতে টাকাওয়ালা প্রার্থীকে নমিনেশন দেয়া শুরু করল।’

খসরু বলেন, ‘রাজনীতির ক্ষেত্রে সব দলকে রাজনৈতিক ব্যক্তিকেই নিতে হবে। আপনি আমলাকে নিলে লাভ কী হবে? তার তো মানসিক পূর্ণতা আসেনি। তার মধ্যে তো লর্ড লর্ড ভাব। কর্মচারী রাজার মতো ভাব করে। কার টাকায় গাড়ি পেল, বাড়ি পেল এটা তার মগজেও নাই।’

(ঢাকাটাইমস/০৯অক্টোবর/কারই/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত