তারেকের বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের নতুন নোটিশ চান জয়

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১০ অক্টোবর ২০১৮, ২০:৪৮ | প্রকাশিত : ১০ অক্টোবর ২০১৮, ২০:৪৭
ফাইল ছবি

সদ্য ঘোষিত একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া তারেক রহমানকে ফিরিয়ে আনতে ইন্টারপোলের নতুন নোটিশ জারির ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সজীব ওয়াজেদ জয়। প্রধানমন্ত্রীর ছেলে ও তার তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা বলেছেন, ‘আমাদের সরকারের উচিত এখনই তারেক রহমানের নামে আবার নতুন করে ইন্টারপোলের রেড নোটিশ জারি করা, এবার খুন ও সন্ত্রাসবাদের জন্য। তাকে ফেরত দিতে যুক্তরাজ্যকে অনুরোধ করাও উচিত আমাদের।’

বুধবার রাতে সজীব ওয়াজেদ জয় তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজে লিখেছেন, ‘রাজাকার, যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতাদের শাস্তি দিতে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতে হয়েছে, বিচারে লেগেছে ৪২ বছর। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের নৃশংস হামলায় আমার পরিবারের সদস্যদের হত্যার বিচার পেতে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতে হয়েছে, লেগেছে ৩৪ বছর। আজ ১৪ বছর পরে, আমার মা ও আইভি রহমানসহ আমার আরো অনেক কাছের মানুষদের হত্যার উদ্দেশ্যে চালানো ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার বিচার পেতে যাচ্ছি আমরা।’

জয় লিখেছেন, ‘যুক্তরাজ্যের সাথে আমাদের কোন বহিঃসমর্পণ চুক্তি নেই। কিন্তু জাতিসংঘ সনদ অনুযায়ী অন্য কোনো সদস্য দেশের অনুরোধে শাস্তিপ্রাপ্ত আসামিদের সমর্পণ করতে পারে। যুক্তরাজ্য সম্প্রতি চারজন সন্দেহভাজন আইএস সদস্যকে মৃত্যুদণ্ড হতে পারে জেনেও যুক্তরাষ্ট্রের হাতে তুলে দিয়েছে।’

২০০৪ সালে আওয়ামী লীগের জনসভায় ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনায় দীর্ঘ বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে বুধবার রায় ঘোষণা করেছে আদালত। এতে ১৯ আসামির মৃত্যুদণ্ড, ১৯ জনের যাবজ্জীবন এবং ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এই মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের। তাকে এই ঘটনার ‘মাস্টার মাইন্ড’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে আওয়ামী লীগ। ২০০৮ সাল থেকে তারেক রহমান যুক্তরাজ্যে আছেন। তাকে পলাতক আসামি হিসেবে দেখানো হয়েছে মামলায়। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আরও দুইটি মামলায় দণ্ড ঘোষণা হয়েছে। তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার কথা আলোচনা হচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে। একুশে আগস্ট মামলায় দণ্ডিত হওয়ার পর তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনার আলোচনা নতুন করে সামনে এসেছে।

(ঢাকাটাইমস/১০অক্টোবর/জেবি) 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত