কূটনীতিকদের সঙ্গে বসছেন জাতীয় ঐক্যের নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২৩:৪৭ | প্রকাশিত : ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২৩:৪৪

সিলেটের কর্মসূচির পরে আবারও কর্মসূচি ঘোষণা করেছে সাত দফা দাবিতে গড়ে ওঠা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। আগামী ২৭ অক্টোবর চট্টগ্রামে এবং ৩০ অক্টোবরে রাজশাহীতে সমাবেশ করবে এবং আগামীকাল বিকাল ৩টায় লেকশোর হোটেলে কূটনীতিকদের সাথে বৈঠক করবে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

বুধবার রাতে সাড়ে দশটার দিকে বিএনপির গুলশান কার্যালয়ে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠক শেষে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এ সময় শিগগিরই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের লিয়াজোঁ কমিটি ঘোষণা করা হবে জানান তিনি।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আজ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের লিয়াজোঁ কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমাদের কর্মসূচি ইত্যাদি সমন্বয় করার জন্য এই কমিটি। আমাদের দাবি ও লক্ষ্য ব্যাখ্যা করে কূটনৈতিকদের জানাব আগামীকাল। তিনটার সময় লেকশোর হোটেলে তাদের আমরা অবহিত করব।

মোশারফ হোসেন বলেন, গতকালকেই জানানো হয়েছে সিলেটে জনসভা করা হবে ২৩ অক্টোবর। চট্টগ্রামে ২৭ অক্টোবর এবং ৩০ অক্টোবরে রাজশাহীতে জনসভা করা হবে। এছাড়াও সুশীল সমাজের সদস্যদের সাথে মতবিনিময় করা হবে, সেটার তারিখ পর জানানো হবে।

মোশারফ হোসেন বলেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং একটি সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচনের দাবিতে এই জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। জনগণের কাছে যাওয়ার জন্য আমরা এই কর্মসূচিগুলো নিয়েছি। পরবর্তীতে রাজনৈতিক অবস্থা বুঝে কর্মসূচি দেব।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মোশাররফ বলেন, লিয়াজোঁ কমিটি গঠন করা হয়েছে, পরে আমরা এটা ঘোষণা করব। আজকে আমরা এটা ঘোষণা করতে চাই না, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, লিয়াজোঁ কমিটি গঠন হয়েছে। আগামীকাল অথবা যে কোন দিন আমরা এটা প্রকাশ করব। এটা এখনও চূড়ান্ত করিনিই- কত সদস্য হবে। কারণ আমরা আশা করি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আরও অন্য দল আসবে- এই জন্য আমরা এখনই লিয়াজোঁ কমিটির সংখ্যা নির্ধারণ করিনি।

অপর এক প্রশ্নে মোশাররফ হোসেন বলেন, আমাদের আত্মপ্রকাশের দিনই ড. কামাল হোসেন বলেছেন- ‘গণতান্ত্রিক, দেশপ্রেমিক যে অন্যান্য দল রয়েছে, গোষ্ঠী, ব্যাক্তি আর বিভিন্ন পেশাজীবী রয়েছে, সকলেই আমাদের এটার সাথে সম্পৃক্ত হতে পারেন। কারণ এটা সকলের জন্য উন্মুক্ত।’

সিলেটের জনসভার অনুমতি নেবে কিনা এমন প্রশ্নে মোশাররফ হোসেন বলেন, সিলেটে আমরা মাজার জেয়ারত করতে যাব। তারপর ওখানে জনসভা করব।  সেখানে স্থানীয় নেতাকর্মী আছে, তারা পুলিশের সাথে যোগাযোগ করছে। তবে মাজার জেয়ারতের জন্য কোন অনুমতি নিতে হবে না। জনসভার বিষয়ে স্থানীয় নেতাকর্মীরা যোগাযোগ করছে। তবে এখনও আমরা কনফার্ম হইনি।

এর আগে সন্ধ্যায় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সদস্যের সঙ্গে বৈঠক করে এই কর্মসূচি চূড়ান্ত করা হয়।

বৈঠকে অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতন, প্রেসিডিয়াম সদস্য তানিয়া রব, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসীন মন্টু, নাগরিক ঐক্যের সমন্বয়ক শহিদুল্লাহ কায়সার প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/১৭অক্টোবর/জিএম/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত