শারদীয় উৎসবের ফ্যাশন

গাজী মুনছুর আজিজ
 | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ০৮:৩৭

দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়ে গেছে। সামনেই বিজয়া দশমী। এর জন্য যমুনা ফিউচার পার্কের একটি ফ্যাশন হাউস থেকে পরিবারের সবার জন্য একই নকশার পোশাক কিনেছেন সুমন দাশ। তিনি বলেন, ‘ছেলেমেয়েসহ আমাদের চারজনের পোশাকই একই রং ও নকশার কিনেছি। এটা এক ধরনের মজার। আবার কোথাও গেলে সবাই ধরে নেন আমরা একই পরিবারের, এটাও মজার।’

বাঙালি হিন্দুদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। এই উৎসব সামনে রেখে ঢাকার ফ্যাশন হাউসগুলো সেজেছে বর্ণিল সাজে। নতুন নতুন নকশার উৎসবের পোশাক এনেছে তারা। সব পোশাকেই থাকছে বাঙালিয়ানার আবেশ। রঙের ক্ষেত্রে আছে দারুণ বৈচিত্র্য। ছোট-বড় সবার জন্য রয়েছে জামা-কাপড়। এছাড়া কয়েক বছর ধরে পোশাকের এ আয়োজনে বাড়তি হিসেবে যোগ হয়েছে পরিবারের সবার জন্য একই রং ও নকশার পোশাক, যা উৎসব বা পার্বণের আনন্দকে আরও বাড়িয়ে দেয় বলে মনে করেন দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলোর ডিজাইনাররা।

ফ্যাশন ডিজাইনার হাসান বলেন, ফ্যাশন ডিজাইনাররা বরাবরই চান ফ্যাশন-সচেতন ক্রেতাদের বাড়তি কিছু উপহার দিতে। সে ভাবনা থেকেই কয়েক বছর ধরে ফ্যাশন ডিজাইনাররা উৎসব-পার্বণ বা বিভিন্ন দিবস ঘিরে তৈরি করছেন পরিবারের সবার জন্য একই রং ও নকশার পোশাক। আর এটা বেশ সানন্দেই গ্রহণ করছেন হালের ফ্যাশন-সচেতন ক্রেতারা। আসলে যেকোনো অনুষ্ঠানে যেতে বা উৎসবে শামিল হতে আমরা নিজেদের সেরা পছন্দের পোশাকটিই পরি; যাতে নিজেকে অনুষ্ঠানে বা উৎসবে অন্যদের থেকে আলাদা মনে হয়। এ কারণে এখন অনেক অনুষ্ঠানে বা উৎসবের আয়োজনে দেখা যায় স্বামী-স্ত্রী বা বাবা-ছেলে কিংবা মা-মেয়ে বা পরিবারের সবাই একই রং ও নকশার পোশাক পরেন। আর এ পোশাকের ফলে নিজেদের মধ্যে যেমন এক ধরনের বাড়তি আনন্দ যোগ হয়; অন্যদিকে পরিবারের সবাইকে অনুষ্ঠানে বা উৎসবের আয়োজনে একটু আলাদা উপস্থাপনও করা হয়।

ফ্যাশন হাউস মেঘের কর্ণধার মিল্টন বলেন, বেশ কয়েক বছর ধরেই আমরা ঈদ, দুর্গাপূজা, বৈশাখ, বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারি, ভালোবাসা দিবস, বসন্তসহ বিভিন্ন উৎসব-পার্বণে পরিবারের সব সদস্যের জন্য একই রং ও নকশার পোশাক নিয়ে আসছি। এর চাহিদাও ভালো।

যারা এনেছে পোশাক

আড়ং, নিপুণ, রঙ বাংলাদেশ, কে ক্র্যাফট, বিবিয়ানা, দেশাল, বাংলার মেলা, সাদাকালো, নগরদোলা, অঞ্জন’স, সৃষ্টি, দেশিদশ, শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের মেঘ, যোগীসহ বিভিন্ন ফ্যাশন হাউস দুর্গাপূজা উপলক্ষে এনেছে ছোট-বড় সবার জন্য নতুন নকশার পোশাক। এসব হাউসে পরিবারের সব সদস্যের জন্য একই রং ও নকশার পোশাকও আছে। এসব পোশাকের মধ্যে আছে বড়দের পাঞ্জাবি, শার্ট, ফতুয়া, টি-শার্ট, সালোয়ার-কামিজ, টপস, সিঙ্গেল কামিজ, ছোটদের ফ্রক, শার্ট, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি ইত্যাদি।

সবার পোশাকের মূল উপকরণ কাপড় তৈরি হয়েছে টাঙ্গাইল, রাজশাহী, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী, সিরাজগঞ্জ, মিরপুর, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। নিজস্ব তাঁতে বোনা কাপড়ের বুননেও আনা হয়েছে নতুনত্ব। তাঁতের বুননে তৈরি এক্সক্লুসিভ শাড়ির পাশাপাশি হাফসিল্ক, মসলিন, রেশমী কটন, ডুপিয়ানের শাড়িতে বিভিন্ন কাজ করা হয়েছে।

রঙ বাংলাদেশ সবসময়েই বিভিন্ন থিমেই সংগ্রহ সাজিয়ে থাকে। এবার সেই ধারা অব্যাহত রাখা হয়েছে। আর শারদীয় আয়োজনকে অনিন্দ্যসুন্দর করতে থিম হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে পদ্ম, মন্দির, ফ্লোরাল ও আলপনা।

দরদাম

বড়দের সিঙ্গেল কামিজ ১ হাজার থেকে ২ হাজার ২০০ টাকা, সালোয়ার-কামিজ ১ হাজার ৬০০ থেকে ৩ হাজার ৮০০, পাঞ্জাবি ১ হাজার ২০০ থেকে ৩ হাজার ২০০, শার্ট ৫৫০ থেকে ১ হাজার ৫০০, টি-শার্ট ৩৮০ থেকে ৬৫০, ছোটদের সালোয়ার-কামিজ ৮০০ থেকে ১ হাজার ৪০০, ফ্রক ৫৫০ থেকে ৯৫০, পাঞ্জাবি ৫৫০ থেকে ৯০০, শার্ট ৩০০ থেকে ৫৫০ ও টি-শার্ট ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা।

ব্যাগপ্যাকার্সে পূজার ছাড়!

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ব্যাগ কেনাকাটায় ১৫ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে ব্যাগ প্রস্তুত ও বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ব্যাগপ্যাকার্স (www.bagpackersbd.com)। ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই শারদ অফার চলবে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত। এ তথ্য জানালেন ব্যাগপ্যাকার্সের প্রতিষ্ঠাতা রিয়াজ আহমেদ বাবু। তিনি জানান, ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত ক্রেতারা অনলাইন ও অফলাইনে লেডিসব্যাগ, হ্যান্ডপার্স, অফিস ব্যাগ, ল্যাপটপ ব্যাগ, লাগেজ, কাঁধের ব্যাগ, ট্রাভেলব্যাগ এবং পার্টিব্যাগসহ সব ধরনের পণ্যে ‘দুর্গোৎসব, শারদ অফারটি নিতে পারবেন। রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জাকির হোসেন রোড ও সলিমুল্লাহ রোডের চারটি শো-রুম থেকে পছন্দের ব্যাগ সংগ্রহে এই অফারের আওতায় ১৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় পাবেন ক্রেতারা। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটির সবকটি শোরুমে কেনাকাটার পেমেন্ট বিকাশ দিয়ে করলেও বিশেষ ছাড়ও পাবেন ক্রেতারা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত