বাচ্চুর হঠাৎ মৃত্যু যেন এক ‘অবিশ্বাস’

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ১৪:৩৬

ব্যক্তিমানুষ হিসেবে আইয়ুব বাচ্চুর খুব অভিমান ছিল। তার নাম উচ্চারিত হলে ভেসে ওঠে একটি গিটারের প্রতিচ্ছবি। সেই শিল্পী মানুষটাই হঠাৎ করে সুরের মায়াজাল ছিন্ন করে চলে গেলেন। শোক নেমেছে মানুষের মিছিলে। খুব অভিমান ছিল মানুষটার। কিন্তু শিল্পীমন অভিমানগুলো আরো বেশি অভিমানে গানে রুপান্তরিত করে, কবিতায় বলে যায়, একটা ছবি গেঁথে দেয় শ্রোতাদের চোখে।

আর কখনোই বাজবে না সেই রূপালি গিটার। আর এটাই মানতে পারছেন না গীতিকার ও সুরকার প্রিন্স মাহমুদ। ছেলে মানুষের মত করে বলে ফেললেন, ‘আমি যদি আপনাকে অবিশ্বাস করি, আজকের দিনের সমস্ত ফোনকল অবিশ্বাস করি, তাহলে কি ঘটনা মিথ্যে হয়ে যাবে? এরপর আর কথা না বাড়িয়ে এই শিল্পী বললেন ‘রাখছি ভাইয়া। ভালো লাগছে না।’

সত্যিই তো। আইয়ুব বাচ্চু মারা যাওয়ায় শুধু প্রিন্স মাহমুদ কেন বাংলাদেশের অনুভুতিও তো একই রকম। ভালো লাগছে না। হাসপাতালে ফকির আলমগীর, রেনেসাঁর ফয়সল সিদ্দিকি বগি, আর্টসেলের লিঙ্কন, জলের গানের রাহুল আনন্দ, রবি চৌধুরীসহ অগণিত শিল্পীর ভিড়ে একটা নাম বার বার উচ্চারিত হচ্ছে।

জেমস-বাচ্চু বাংলাদেশের ব্যান্ড সঙ্গীত জগতে যেন পরিপূরক নাম। ফোনে সংবাদটি শুনেই  বরিশালে অবস্হানরত জেমসের কন্ঠস্বর বদলে গেল। ভারাক্রান্ত কণ্ঠে বললেন, ‘সেই ৮০'র দশকে মানুষটার সঙ্গে পরিচয়। কত স্মৃতি। সুখে-দুঃখে-মানে-অভিমানে পথ চলেছি এই দীর্ঘ সময়। দুই জনে মিলে কত গান করেছি। একটা সময় বাংলা ব্যান্ডের অ্যালবাম মানেই ছিল জেমস-বাচ্চু মিক্সড। কী সব স্মৃতি রেখে মানুষটা চলে গেলেন। এটা মানা কষ্টকর।’

সরকারের উন্নয়ন কনসার্টে বৃহস্পতিবার বরিশালে পারফর্ম করবে নগরবাউল। জেমস বলেন, ‘আজকের নগরবাউলের কনসার্টটি বাচ্চু ভাইকে উৎস্বর্গ করলাম।’

রেনেসা ব্যান্ডের ফয়সল সিদ্দিকি ববি বাচ্চুর মৃত্যু সংবাদ শুনে দীর্ঘশ্বাস ফেলে বললেন, ‘বাচ্চুকে হারিয়ে ফেলল বাংলা গান! ক্ষতি হয়ে গেল খুব। এই চলে যাওয়া আমাদেরকে পেছনে ফেলে দেয়। আর ছোটদের চলে যাওয়া বড়দের কাছে সুখকর না।’

তন্ময় তানসেন বললেন, ‘আজকের দিনে আমি গানের মানুষ না, তুমিও সংবাদের মানুষ না। কান্নার দলে যোগ দেয়া মানুষের কোনো পেশা থাকে না।’

হাসপাতালের করিডোরে একা দাঁড়িয়ে বাংলা গানের আরেক নক্ষত্র অটোমন্যাল মুন। বললেন, ‘ভালো নেইরে, বাচ্চু ভাই নেই এটা বিশ্বাস করার মতো কোনো জাদুমন্ত্রও জানা নেই।’

আইয়ুব বাচ্চু নেই। আইয়ুব বাচ্চু আর কোনোদিন আসবেন না, হাসবেন না। বৃহস্পতিবারের বাংলাদেশ জানান দিল কৃপণ নয় সে। বৃহস্পতিবার পুরো বাংলাদেশ এক সঙ্গীতপ্রাণকে হারানোর দুঃখে কাঁদছে। অসেকেই নীরবে কাঁদছে কিংবদন্তীতুল্য এই ব্যান্ড শিল্পীকে হারানোর বেদনায়।

বৃহস্পতিবার সকালে ৯টার দিকে আইয়ুব বাচ্চুকে তার মগবাজারের বাসা থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের লোকজন। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক আইয়ুব বাচ্চুকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢাকাটাইমস/১৮অক্টোবর/আরআর/ডিএম

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত