প্রিন্স বাজারের কাণ্ড

শারদীয় অফারে গরুর মাংস, পরে ক্ষমা প্রার্থনা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২০ অক্টোবর ২০১৮, ১৯:০২ | প্রকাশিত : ২০ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:৫৮
ছবি সংগৃহীত

সুপার মার্কেট প্রিন্স বাজার শারদীয় অফার নামে কেজিপ্রতি ৪৪০ টাকা করে গরুর মাংস বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছে।

সামাজিক মাধ্যমে এই বিজ্ঞাপনের ছবি ছড়িয়ে পড়ার পর প্রিন্সবাজার অবশ্য পরে ক্ষমাও চেয়েছে সুপার শপটি। যদিও অফারটি শেষ হওয়ার পরদিন এই ক্ষমা প্রার্থনা করে তারা।

সনাতন ধর্মাবলম্বীরা প্রাণীটির মাংস এড়িয়ে চলেন এবং এর এক ধরনের ধর্মীয় আবেদনও রয়েছে। এই অবস্থায় দুর্গোৎসব চলাকালে প্রিন্স বাজারের এই বিজ্ঞাপন ক্ষুব্ধ করে তুলেছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের।

বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দুর্গোৎসব শেষ হয়েছে শুক্রবার। আর প্রিন্সবাজারের ৪৪০ টাকা করে গরুর মাংস বিক্রির অফারটিও শেষ হয়েছে সেদিনই। তবে শনিবার ফেসবুকে এই বিজ্ঞাপনের বিষয়টি ছড়িয়ে যায়। আর এরপর শুরু হয় আলোড়ন।

এই বিজ্ঞাপনটি এতটাই অবিশ্বাস্য রকম ছিল যে, এটি ফটোশপ করে কেউ ছেড়েছে কি না, তা নিয়েও তৈরি হয় আলোচনা। তবে পরে প্রিন্সবাজারের পক্ষ থেকে ক্ষমা প্রার্থনায় এটা স্পষ্ট হয় যে, বিজ্ঞাপন নামে যে ছবিটি ছড়িয়েছে সেটা বানোয়াট ছিল না।

সমালোচনাকারীরা অবশ্য একে প্রতিষ্ঠানটির নির্বুদ্ধিতা হিসেবেই দেখছেন। তারা নানা রকম নিন্দাসূচক বক্তব্যও  লেখছেন প্রিন্স বাজারের ফেসবুক পেজে।

সমালোচনাকারীদের মধ্যে সনাতন ধর্মের অনুসারী যেমন আছেন, তেমনি মুসলমানরাও আছেন। এটি কোন ধরনের ব্যবসায়িক মনোবৃত্তি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন তারাও।

ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে প্রিন্স বাজার শ্যামলী শাখায় টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে শাখাটির ফ্লোর ইনচার্জ রানা ঢাকাটাইমসকে শারদীয় অফারটির  কথা নিশ্চিত করেন।

শাখাটির ব্যবস্থাপক সারোয়ার হোসেন খানও জানান একই তথ্য। ঢাকাটাইমসকে তিনি বলেন, ‘অফারটি পূজা শেষ হওয়ার সাথে সাথে শেষ হয়ে গেছে। বর্তমানে বিশেষ অফার চলছে।‘

পূজার উৎসবকে কেন্দ্র করে এই ধরণের অফার ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত করা হচ্ছে কি না এবিষয়ে জানতে চাইলে অবশ্য মন্তব্য করেতে চাননি এই কর্মকর্তা। বলেন, ‘এ নিয়ে কথা বলবেন অপারেশন বিভাগের কর্মীরা। আপনাকে তাদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।’

তবে অপারেশন বিভাগের সাথে যোগাযোগ করা যাবে এমন কোনো টেলিফোন নম্বর দিতে রাজি হননি প্রিন্স বাজারের এই ব্যবস্থাপক।

সংবাদকর্মী সুমন্ত চক্রবর্তী এ বিষয়ে ঢাকাটাইসকে বলেন, ‘এ ধরনের অফার হিন্দু ধর্মাবলম্বীদেরকে কটাক্ষ করা এবং বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলছে। যা অসাম্প্রদায়িক চেতনার সাথে সামাঞ্জস্যকর নয়। ভবিষ্যতে এই ধরণের ঘটনা এড়াতে সরকার এবং আইন-প্রশাসনের দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।’

পরে প্রিন্সবাজারের পক্ষ থেকে তাদের ফেসবুক পেজেই এ বিষয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করা হয়। ইংরেজিতে লেখা এই বার্তায় বলা হয়, ‘যা ঘটেছে, সেটা নিতান্তই দুর্ভাগ্যজনক। আমরা ক্ষমা ভিক্ষা করছি। দয়া করে একে একটি ভুল হিসেবেই ধরবেন। আমাদের কোনো জাতি বা কাউকে আঘাত করার ন্যূনতম কোনো উদ্দেশ্য ছিল না।’

‘আবারও দুঃখিত’।

ঢাকাটাইমস/২০অক্টোবর/কারই/ডিএম/ডব্লিউবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজধানী বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত