চলনবিলে শিকারির হাত থেকে ১০ বকের জীবন রক্ষা

নাটোর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২১ অক্টোবর ২০১৮, ২০:০৪

নাটোরের সিংড়ার চলনবিলে শিকারির হাত থেকে রক্ষা পেয়ে মুক্ত আকাশে উড়ল ১০টি বক পাখি।

রবিবার ভোরে চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ফেডারেশন (বিবিসিএফ)-এর কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে কলম-কালিনগর গ্রামের দুর্গম চলনবিলে অভিযান চালান স্থানীয় সাংবাদিক ও পরিবেশ কর্মীরা।

অভিযানে চলনবিলের মাঝে দুটি শিকারি বক পাখি ও ঘরের ফাঁদসহ ১০টি বক উদ্ধার করেন পরিবেশ কর্মীরা। কামরুল ইসলাম ও সেরাজ নামে দুই পেশাদার পাখি শিকারিকে আটক করা হয়।

চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটি সূত্রে জানা যায়, ভোরে সিংড়ার কলম ইউনিয়নের কালিনগর গ্রামের দুর্গম চলনবিলে অভিযান চালান স্থানীয় সাংবাদিক ও পরিবেশ কর্মীরা। ঘন কুয়াশা ভেদ করে বিলের বিভিন্ন এলাকায় তিন ঘন্টার অভিযান পরিচালনা করে দুটি পাখি শিকারের জন্য তৈরি করা ঘরের ফাঁদ, দুটি শিকারি বকসহ চক কালিকাপুর গ্রামের কামরুল ইসলাম ও সেরাজ আলী নামে দুই পেশাদার পাখি শিকারিকে আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ১০টি বক। পরে পাখিগুলো প্রকাশ্যে নুরপুর বাজারে একটি সচেতনতামূলক পথসভার মাধ্যমে অবমুক্ত করা হয়। পুড়িয়ে দেয়া হয় শিকারির তৈরি করা দুটি ফাঁদ। আর কোনদিন পাখি শিকার করবে না মর্মে অঙ্গীকার করিয়ে আটক ওই দুই পাখি শিকারিকে ছেড়ে দেয়া হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কলম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মইনুল হক চুনু, চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন-অর রশিদ, প্রচার সম্পাদক মহসিন আলী, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের সিংড়া উপজেলার সাধারণ সম্পাদক তাইফুর রহমান তাইফ, পরিবেশ কর্মী আতাউর রহমান, আব্দুল আলীম খাজা প্রমুখ।

চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম জানান, এক সময় এই চলনবিলে বিভিন্ন প্রজাতির পাখির ডানা মেলে অবাধ বিচরণ, কোলাহল ও কলরব চোখে পড়ত। শীতের শুরুতে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখিদের আগমন চলনবিল এলাকায় প্রাণের স্পন্দন জাগাত। চোখ জুড়ানো দৃশ্যের অবতারণা করত। কিন্তু কিছু লোভী পাখি শিকারিদের কারণে এই পাখিগুলো আজ বিলুপ্তির পথে। কারণ পাখিরা নিরাপদ না ভাবলে সেখানে আসতে চায় না। তবে তারা প্রতিনিয়তই চলনবিলের অতিথি পাখি রক্ষায় ছুটে চলেছেন। বিলের বক সহ অন্যান্য অতিথি পাখি শিকারের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে অবহিতকরণ ও গণসচেতনতামূলক কর্মসূচি পালন করছেন।

তিনি আরো বলেন, চলনবিল একটি বৃহৎ এলাকা হওয়ায় অতিথি পাখি শিকার বন্ধে প্রশাসন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সকলের সমন্বিত পরিকল্পনা দরকার।

(ঢাকাটাইমস/২১অক্টোবর/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত