জাফরুল্লাহর হাসপাতাল-ওষুধ কারখানা অনিয়মের আখড়া, জরিমানা-তালা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
| আপডেট : ২৪ অক্টোবর ২০১৮, ০০:২১ | প্রকাশিত : ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ২৩:৫১

অনুমোদন না থাকা, মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা ও অব্যবস্থাপনার দায়ে সাভারে ডা. জাফরুল্লাহর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতাল ও ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডকে ২৫ লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে এন্টিবায়োটিক প্রস্তুত বিভাগকে সিলাগালা করে দেয়া হয়েছে। 

মঙ্গলবার রাতে আশুলিয়ার মির্জানগর এলাকায় অবস্থিত জাফরুল্লাহর দুই প্রতিষ্ঠানে এ অভিযান চালায় র‌্যাব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসন।
সন্ধ্যা ছয়টা থেকে টানা চার ঘণ্টার অভিযান শেষে রাত ১০টায় ওষুধ প্রস্তুতকারক কারখানায় প্রেস ব্রিফিং করেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। 

সারোয়ার আলম বলেন, প্রতিষ্ঠার ৪৭ বছর পরও দেশের সমাজভিত্তিক গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতাল এখন পর্যন্ত সরকারি কোনো অনুমোদন ছাড়াই হাসপাতাল পরিচালনা করে আসছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। আজ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করে অপারেশন থিয়েটার  ও প্যাথলজি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ সার্জিক্যাল যন্ত্রপাতি ও ঔষধ জব্দ করা হয়েছে। যার অধিকাংশের মেয়াদ প্রায় ৪-৫ বছর পূর্বেই শেষ হয়ে গেছে। এছাড়া অব্যবস্থাপনাসহ অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটিকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি আগামী ১ মাসের মধ্যে হাসপাতালের অনুমতির জন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, একই সময় গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড নামে ঔষধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানেও অভিযান পরিচালনা করেন তারা। এ সময় প্রতিষ্ঠানটির এন্টিবায়োটিক বিভাগের ল্যাব কিউসি ও মাইক্রোবায়োলজি ল্যাব থেকে এন্টিবায়োটিক প্রস্তুতের জন্য ব্যবহৃত মেয়াদোত্তীর্ণ প্রচুর পরিমাণ ক্যামিকেল পণ্য মজুদ পাওয়া গেছে। যার অধিকাংশের মেয়াদ ১০-১২ বছর পূর্বে শেষ হলেও তারা নিজেরা হাতে লিখে মেয়াদ বাড়িয়েছেন। এমনকি তারা বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রদানকৃত নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করেই এসব দীর্ঘদিন যাবৎ এসব এন্টিবায়োটিক ঔষধ প্রস্তুত করে আসছিলেন। তাই উক্ত প্রতিষ্ঠানকে এসব অভিযোগে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা ও এন্টিবায়োটিক বিভাগটি সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। 
একই সাথে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহকৃত এন্টিবায়োটিক যদি স্বাস্থ্যর জন্য ক্ষতিকর উপাদান পাওয়া যায় তবে তা নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হবে বলেও জানান তিনি।

অভিযানে সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ রাসেল হাসান, ঔষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের পরিদর্শক নাহিন আল আলম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মেডিকেল অফিসার মেহেদী হাসান ও র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক আব্দুল হাকিমসহ পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

ঢাকাটাইমস/২৩অক্টোবর/প্রতিনিধি/ইএস

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত