সাংবাদিক পেটানোয় চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ২৭ অক্টোবর ২০১৮, ১৮:৪৪

কুড়িগ্রামে সাংবাদিক আল্লামা ইকবাল অনিকের ওপর হামলাকারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন করেছেন সাংবাদিকরা।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘সাধারণ সাংবাদকর্মী’ ব্যানারে মানববন্ধনে রাজধানীর বিভিন্ন সংবাদপত্র, টেলিভিশন ও অনলাইন মিডিয়ার শতাধিক গণমাধ্যমকর্মী অংশ নেন।

হামলাকারী ইউপি চেয়ারম্যানের অপসারণের দাবিতে সাংবাদিকরা স্থানী সরকার মন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেবেন। এজন্য সাংবাদিকরা গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করবেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘সাংবাদিকদের ওপর প্রতিনিয়ত হামলা হচ্ছে, কিন্তু বিচার হচ্ছে না। সারাদেশে সাংবাদিকদের নিরাপত্তাহীনতার সুযোগ নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান অনিকের ওপর হামলা চালিয়েছেন। সাংবাদিকরা কখনও সন্ত্রাসী কার্যক্রম করে না, কিন্তু জনপ্রতিনিধি হয়ে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করেছেন; এটা রুখে দিতে হবে। আমরা অবাক সাংবাদিকের ওপর সামান্য একজন ইউপি চেয়ারম্যান হামলা চালিয়েছেন। আমরা জানতে চাই এই ইউপি চেয়ারম্যানের ক্ষমতার উৎস কোথায়?’

 

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী সাংবাদিক অনিকের ওপর হামলার নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘পেশাদার একজন সাংবাদিকের ওপর এমন হামলা এটা খুবই জঘন্য। একজন দুর্বৃত্ত চেয়ারম্যান যে সাহস দেখিয়েছে আমরা তার অপসারণ চাই। কিন্তু প্রশাসন এখনও কোনো কার্যকরী ব্যবস্থা নেয়নি। সাংবাদিক সমাজের ওপর যেভাবে নির্যাতন চলছে তা রুখতে সাংবাদিকদের ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নামার সময় এসেছে। অনিক গ্রামের বাড়িতে গেছে সেখানে একটা মিথ্যা অজুহাতে তার ওপর হামলা হয়েছে। সাংবাদিকরা দাবি করেছে এলজিআরডি মন্ত্রীর কাছে ইউপি চেয়ারম্যানকে তার পদ থেকে অপসারণ জন্য। আমরা সাংবাদিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে দাবির প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করলাম।’

ঢাকা সাব এডিটর কাউন্সিলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘সহকর্মীর ওপর হামলার প্রতিবাদে আমরা আজ রাজপথে দাঁড়িয়েছি। তবে বলতে চাই আপনারা কোথায় হাত দিয়েছেন। গণমাধ্যমকর্মীর ওপর হাত দিয়েছেন, সাংবাদিক সমাজ বসে থাকবো না। অতিদ্রুত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হোক না হলে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।’

সিনিয়র সাংবাদিক মাহমুদুর রহমান খোকন বলেন, ‘সাংবাদিকের ওপর এই হামলা উদ্দেশ্যমূলক। এটা সংবাদপত্র ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতার ওপর হামলা। অতিদ্রুত তথাকথিত ওই চেয়ারম্যানকে গ্রেপ্তার করতে হবে, সাথে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। অন্যথায় সাংবাদিক সমাজ বসে থাকবে না। কারণ এরই মধ্যে সাংবাদিকরা রাস্তায় দাঁড়িয়েছে। দ্রুত যদি চেয়ারম্যানকে আইনের আনা হোক। না হলে সাংবাদিকরা রাস্তায় নামলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে।’

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার কোমরের বেল্ট খুলে সাংবাদিক আল্লামা ইকবাল অনিককে পেটান কুড়িগ্রামের রাজারহাটের ৩নং ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক। পরে স্থানীয়রা অনিককে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। বর্তমানে তিনি কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য দেন ডিইউজের নির্বাহী পরিষদের সদস্য গোলাম মুজতবা ধ্রুব, সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতা জহুর খান, বাংলাট্রিবিউনের অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদক আমানুর রহমান রনি, সারাবাংলা ডটনেটের সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট উজ্জল জিসান, ব্রেকিং নিউজের স্টাফ রিপোর্টার তৌহিদুজ্জামানা তন্ময়, মোহনা টেলিভিশনের রিপোর্টার মনিরুল ইসলাম মনি প্রমুখ।

(ঢাকাটাইমস/২৭অক্টোবর/এসএস/জেবি)

সংবাদটি শেয়ার করুন

গণমাধ্যম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত