ছন্দের যুবরাজ ছড়াকার রোমেন রায়হান

হাসান মাসুম
| আপডেট : ৩১ অক্টোবর ২০১৮, ২৩:৪৭ | প্রকাশিত : ৩১ অক্টোবর ২০১৮, ২২:৪৪

বাংলাদেশের সাহিত্য অঙ্গনে যে ক’জন ছড়াকার ছড়া লিখে পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছেন তাদের মধ্যে ছড়াকার রোমেন রায়হান অন্যতম। তার লেখা ছড়াগুলো কেন যেন ছেলেবুড়ো সকলের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে। তিনি সম্প্রতি দিল্লি এসেছিলেন জনস্বাস্থ্যবিষয়ক একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে।

এই প্রতিবেদকের সাথে একটি একান্ত বৈঠকে প্রকাশিত হয় তার সাহিত্য জীবনের নানাদিক। ছড়াকার রোমেন রায়হানের জন্ম- ১৪ জুন ১৯৬৯, জন্মস্থান- কিশোরগঞ্জ।

পেশায় চিকিৎসক রোমেন রায়হান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের এম ২৫ ব্যাচের হয়ে এমবিবিএস, জাপানের নাগোয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স এবং পিএইচডি করেছেন জনস্বাস্থ্য বিষয়ে। তিনি বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সহকারী অধ্যাপক পদে কর্মরত আছেন। ছড়ায় ছন্দ তার মাথায় খেলা করে সারাক্ষণ। প্রায় তিরিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে ছড়াসাহিত্যে অবদান রেখে চলেছেন।

দৈনিক ইত্তেফাকে রোকনুজ্জামান দাদা ভাইয়ের কচিকাঁচার আসর দিয়ে তার ছড়া প্রকাশনা শুরু। তারপর থেকে অন্যান্য জাতীয় দৈনিকগুলোতে তার ছড়া নিয়ে সরব উপস্থিতি চোখে পড়ার মত। শিশুদের জন্য তার প্রকাশিত ছড়ার বই “রঙ্গিন আমার ছেলেবেলা বৃষ্টি কাদায় মাখা” এর জন্য পেয়েছেন  অগ্রণী ব্যাংক শিশু একাডেমি শিশু সাহিত্য পুরস্কার। ছড়াগ্রন্থ ‘কা কা’ এর জন্য পেয়েছেন নুরুল কাদের শিশু সাহিত্য পুরস্কার। তার লেখা ছড়ার বই ম্যাও ১৯৯৩ সাল থেকে পরপর তিনটি সংস্করণ প্রকাশিত হয়। এছাড়া ফিফটি ফিফটি প্রেমের ছড়া, আয় আয় চাঁদ মামা, ছড়ড়াটুন, শের এর অপর সোয়া শের, কাকাতুয়া চাচাতুয়া, ঘুম পাড়ানি মাসিপিসি, এই বইটা চোরের, লাজুক প্রেমের নাজুক শের, ম্যাড ম্যাড জোক্স, কাকের ঠ্যাং বকের ঠ্যাং, ছ্যাকা ইস বেটার দেন একা, ছড়ায় ছড়ায় ধাঁধা, আয়রে খোকন ঘরে আয়, সারা বেলা টইটই, ভালবাসা মানে পয়সা খরচ পরীক্ষায় ফেল বাবার ধমক এবং নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রোমেন রায়হানের লেখা উল্লেখযোগ্য ছড়াগ্রন্থ। তার লেখা “মিস পারুরে চাই” বড়দের ছড়া গ্রন্থ ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা অর্জন করেছে। তিনি ২০০৬ সাল পর্যন্ত কার্টুন পত্রিকা উন্মাদে সহকারী সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছেন। সম্প্রতি তিনি লাভ করেছেন ‘পদক্ষেপ’ শিশু সাহিত্য পুরস্কার। সদালাপী রোমেন রায়হান জীবনযাপন সম্পর্কে বলেন একজীবনে মানুষের করার আছে অনেক কিছু। জীবনধারনের জন্য কাজ করার পাশাপাশি আমাদের আরো অনেক কিছু করার আছে গণমানুষের জন্য। তিনি মনে করেন লেখালেখির উৎকর্ষতায় বড় অন্তরায় সামাজিক মাধ্যম, আজকাল নুতন লেখক রা একটি দুটি লেখা লিখেই ফেসবুকে প্রকাশ করেন আর তাতে লাইক কমেন্ট এর হিড়িক পড়ায় তিনি হয়ত মনে করেন তার লেখাটি খুব ভাল, এভাবেই লেখক তার সাহিত্যগুণ হারাতে থাকেন।

তিনি আরো বলেন, বাংলা সাহিত্য অন্যান্য ভাষার সাহিত্যে না পৌঁছানোর কারণ উপযুক্ত অনুবাদ এর অভাব।

রোমেন রায়হান শিশুদের অত্যন্ত ভালবাসেন, তাই তাদের জন্যই বেশি ছড়া লিখেন, আর বড়দের জন্যও লেখেন। তার মতে এ জীবন আনন্দময়, জীবনে আনন্দ নিয়ে বেঁচে থাকা সম্ভব। তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা শিশুদের জন্য ছোট গল্পের সঙ্কলন করবেন এবং শিশু সাহিত্যে ক্রমগত আরো অবদান রাখবেন। ব্যক্তিগত জীবনে রোমেন রায়হান স্ত্রী এবং একসন্তান রুহামকে নিয়ে ঢাকায় বসবাস করছেন।

ছড়াসাহিত্য নিয়ে ক্রমাগত চর্চা করে একে একটি অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছেন ছন্দের যুবরাজ ছড়াকার রোমেন রায়হান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

সাহিত্য বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত