আন্দোলনের হুমকি দেখছে না আ.লীগ

তানিম আহমেদ
 | প্রকাশিত : ০৯ নভেম্বর ২০১৮, ০৯:১৪
দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা

আন্দোলনের হুমকি দিলেও বিএনপির নতুন জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ভোটে আসছে বলেই ধারণা আওয়ামী লীগ নেতাদের। তারা বলছেন, অতীতের আন্দোলনে সাফল্য আসেনি, এই বোধটিই তাদের নির্বাচনে আনতে যথেষ্ট।

আবার ভোটে না এলে বিএনপির নিবন্ধন হারানোর ঝুঁকি থাকে। কারণ, নিবন্ধন আইনের শর্ত অনুযায়ী পরপর দুইবার ভোট বর্জনের সুযোগ নেই।

তবে যদি বিএনপি আবার আন্দোলনে যায়, তাহলে ২০১৪ এবং পরের বছরের মতোই ব্যর্থ হতে হবে বলেও বলছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা।

সংসদ ভেঙে নির্দলীয় সরকারের অধীনে ভোট, তফসিল পেছানোর দাবিও পূরণ হয়নি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের। তাদের ঘোষণা ছিল আন্দোলনের। তবে কর্মসূচি আসেনি। বরং সমালোচনার সুর আক্রমণাত্মক নয়।

এরই মধ্যে ২৩ ডিসেম্বর ভোট এবং ১৯ নভেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ সময় ধরে তফসিল ঘোষণা করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা।

এই পরিস্থিতিতে ২০১৪ সালের মতোই আবার আন্দোলন শুরু হয় কি না, এ নিয়ে আলোচনা আছে রাজনৈতিক অঙ্গনে। যদিও আওয়ামী লীগ বলছে, বিএনপি তথা জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আন্দোলনে যাবে না। তফসিল ঘোষণার পর সব রাজনৈতিক দল একটা উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।

তফসিল ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘প্রতিটি রাজনৈতিক দলই চায় জনগণের সেবা করতে। সেজন্য নির্বাচনে আসতে হবে। জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় বসতে হবে। তারা যদি জনগণের সেবা করতে চায়-ই নির্বাচনে আসবে এমনটাই আমরা প্রত্যাশা করি।’

‘তফসিল অনুযায়ী নির্বাচন হবে, এ নিয়ে কোনো শঙ্কা নেই। আমরা আশা করি, নির্বাচন কমিশন যে সিডিউল ঘোষণা করেছে, সে অনুযায়ী একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমরা মনে করি, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে যে ধোঁয়াশা সৃষ্টি করা হয়েছিল, সিডিউল ঘোষণার মধ্য দিয়ে তা কেটে গেছে।’

গুরুত্ব পাচ্ছে না ঐক্যফ্রন্টের আন্দোলনের হুমকি

দাবি পূরণ না হলে আন্দোলনের হুমকি এসেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে। যদিও কী ধরনের কর্মসূচি আসছে, সেটি চূড়ান্ত হয়নি এখনো।
তবে আন্দোলনের হুমকিকে আমলে নিচ্ছে না আওয়ামী লীগ। তারা বলছে, আন্দোলনে তাদের নতিস্বীকার করানোর অবস্থানে নেই ঐক্যফ্রন্ট। আর অতীতের মতো সহিংসতা করলে প্রশাসনই ব্যবস্থা নেবে।

বিএনপি দুইবার আন্দোলনে গেছে ২০ দলীয় জোটের শরিক দলকে নিয়ে। এবার অবশ্য তারা শক্তিবৃদ্ধি করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে। যদিও আওয়ামী লীগ মনে করছে, ড. কামাল হোসেনের গণফোরাম ও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া, আ স ম আবদুর রবের জেএসডি, মাহমুদুর রহমান মান্নার নাগরিক ঐক্য বা কয়েকজন ব্যক্তির কারণে জোটের এমন কোনো শক্তি নেই যে তারা আন্দোলন গড়ে তুলবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ফারুক খান বলেন, আন্দোলন করতে হলেও জনগণের সমর্থন দরকার। অতীতেও তারা অনেকবার আন্দোলনের কথা বলেছিল। কিন্তু জনগণ তাদের সঙ্গে যায়নি। জনগণতো যুদ্ধাপরাধী, দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে যাবে না। তারা উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির সঙ্গে থাকবে।’

‘তাছাড়া আওয়ামী লীগকে আন্দোলনের হুমকি দিয়ে লাভ নাই। আওয়ামী লীগ জানে কীভাবে রাজনৈতিকভাবে আন্দোলনকে মোকাবেলা করতে হয়। আর যদি আন্দোলনের নামে অতীতের মতো কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আওয়ামী লীগ তা মোকাবেলা করবে। ’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে কোনো বিশৃঙ্খলা ও ষড়যন্ত্র সহ্য করা হবে না। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সব বিশৃঙ্খলা ও ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত