বিএনপিতে এখন চলছে মাইনাস টু ফর্মুলা

মহিবুল ইজদানী খান ডাবলু
 | প্রকাশিত : ১২ নভেম্বর ২০১৮, ১২:৩৫

সামরিক বাহিনীর প্রধান ও পরবর্তী সময়ে রাষ্ট্রীয়  ক্ষমতায় বসে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান প্রতিষ্ঠা করেছিলেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, যার সংক্ষেপে ইংলিশ নাম বিএনপি। তবে দলের সমর্থক ও নেতাকর্মীরা এখন আর জিয়াকে জিয়াউর রহমান বলে সম্বোধন করে নাম বলেন শহীদ জিয়াউর রহমান।

চট্টগ্রামে একটি ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানে নিহত হওয়ার পর এই শহীদ পদবি জিয়ার নামের পাশে দলীয় সমর্থকরা সংযোজন করে। এদিকে জিয়া হত্যার পর দলটি এক বিরাট ভাঙনের সম্মুখীন হয়। পাকিস্তান ফেরত বাঙালি সামরিক অফিসার, মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি, বিভিন্ন ছোটখাটো ডান বাম ও দক্ষিণপন্থী রাজনৈতিক দল থেকে আগত নানা মতের ব্যক্তিদের নিয়ে বিএনপি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ফলে জিয়ার অবর্তমানে এক কঠিন পরীক্ষার সম্মুখীন হয় দলটি। বিএনপিকে টিকিয়ে রাখার জন্য এই সময় বলতে গেলে হঠাৎ করেই বেগম খালেদা জিয়াকে সামনে আনা হয়। একজন জেনারেল ও প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের স্ত্রী হিসেবে রাজনীতিতে তার কোনো পূর্ব অভিজ্ঞতা  ছিল না। তবুও হাল ধরতে বাধ্য হয়েছিলেন স্বামীর প্রতিষ্ঠিত দল বিএনপির।   

রাজনীতির এই চলার পথে একসময় তিনি শূন্য থেকে বিত্ত হয়ে দাঁড়ালেন। তার বলিষ্ঠ নেতৃত্ব সাথে জিয়ার নামকে সামনে রেখে বিএনপিকে তিনি একটি শক্তিশালী রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সমর্থ হন। তবে তার এই সফলতার পেছনে সবচেয়ে বেশি কাজ করেছে পাকিস্তান থেকে ফিরে আসা সামরিক অফিসারদের এক বিরাট অংশ। কারণ মুক্তিযোদ্ধা সামরিক অফিসারদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হলে পাকিস্তান ফেরত বাঙালি অফিসারদের আর কোনো বিকল্প ছিল না। জিয়া ক্ষমতায় থাকাকালে সামরিক বাহিনীর ভেতরে বিভিন্ন অভ্যুত্থান ও পরবর্তী সময়ে সামরিক আদালতে একতরফা বিচারের মাধ্যমে অসংখ্য অফিসারকে হত্যা করার পেছনে এদের অনেকের হাত ছিল বলে অনেকেই বলে থাকেন। কারণ যাদের হত্যা করা হয়েছিল তারা বেশিরভাগই ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা। ফলে পাকিস্তান থেকে আসা সামরিক অফিসারদের বাংলাদেশ সামরিক বাহিনীতে যতদিন আধিপত্য ছিল ততদিন বিএনপিকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। বিএনপির পক্ষে তাদের একটা বড় সমর্থন কাজ করেছে সবসময়।

পরবর্তী সময়ে বেগম  খালেদা  জিয়া  তার  নিজ  পরিবারের  কথা  চিন্তা  করে  বিএনপিকে  জিয়া  পরিবারের অধীনে একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে ধীরে ধীরে নিয়ে আসেন। এই লক্ষে তিনি নিজের ভাই বোন থেকে শুরু করে ছেলে তারেক রহমানকে  বিএনপির সাথে সংযুক্ত করেন। দলের ভেতরে তার এই পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে অনেকের  আপত্তি  থাকলেও নিজেদের স্বার্থে কেউ এর বিরুদ্ধে কোনো কথা বলেনি। এভাবেই একদিন জিয়ার রেখে যাওয়া অসহায় পরিবার রাতারাতি অর্থনীতিতে চাঙা হয়ে উঠে। সেই সাথে বেগম খালেদা জিয়া ও পুত্র তারেক  রহমান হয়ে উঠেন বিএনপির একচ্ছত্র সিদ্ধান্তকারী। এভাবেই ধীরে ধীরে ছেলে তারেক রহমানকে খালেদা জিয়া বিএনপির  রাজনীতিতে তার উত্তরসূরি হিসেবে সর্বোচ্চ ক্ষমতাবান ব্যক্তির স্থানে নিয়ে আসেন।

তবে বর্তমানে সামরিক বাহিনীতে এখন আর আগের অবস্থা নেই। সেদিনের পাকিস্তান থেকে আসা সামরিক কর্মকর্তারা সবাই অবসর গ্রহণ করেছেন। এদের কেউ কেউ অবসরে গিয়ে বিএনপি, জাতীয় পার্টি এমনকি আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নিজেদের সক্রিয় রেখেছেন। এছাড়া বর্তমান সামরিক বাহিনী দেশের আভ্যন্তরীণ রাজনীতি থেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে রেখেছে। জিয়া এরশাদ আর খালেদা জিয়ার ক্ষমতামলের মতো রাজনৈতিক কোনো দলের সাথে তাদের কোনো সম্পর্ক নেই। একসময় সামরিক বাহিনীকে রাজনীতিতে জড়িয়ে ও সামরিক আইন জারি করে জেনারেল জিয়া ও পরবর্তী সময়ে জেনারেল এরশাদ যে রাজনীতির অবতারণা করেছিলেন সেই দিন এখন শেষ। সামরিক বাহিনীর  মধ্যে  হানাহানি রক্তারক্তি আর হত্যার লীলা খেলার দিন এখন শেষ। এই কারণেই সামরিক ছাউনিতে প্রতিষ্ঠিত বিএনপি ও জাতীয় পার্টি নামের দল দুইটির বর্তমান অবস্থা আজ এখানে এসে দাঁড়িয়েছে।

জিয়ার পরে খালেদা জিয়া এবং তার পরবর্তী সময়ে এই পরিবার থেকে কোনো ব্যক্তিকে বিএনপির কর্ণধার হিসেবে সামনে আনা হবে তা প্রথমদিকে কেউ ভাবেনি। যেদিন দলের তারেক রহমানকে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব পদে মা খালেদা জিয়া নিযুক্ত করেন সেদিন দলের সিনিয়র নেতারা সিদ্ধান্তটাকে সহজভাবে গ্রহণ করেনি। কিন্তু ক্ষমতার লোভে কারো প্রতিবাদ করার সাহস হয়নি। তবে দলের ভেতরে একটি চাপা বিক্ষোভ দানা বেঁধে উঠে। কিন্তু দলের কর্ণধার খালেদা জিয়া সিনিয়র নেতাদের এই অসন্তুষ্টতাকে পাত্তা দেননি। এভাবেই বিএনপির একক ক্ষমতাসীন খালেদা জিয়া নিজ পরিবারকে বিএনপির রাজনীতিতে স্থায়ীভাবে পুনর্বাসন করেন।

বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতিতে বিএনপি অবস্থান এখন সব কিছুতেই উলট-পালট হয়ে গেছে। বর্তমান বিএনপি থেকে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান বাহিরে অবস্থান করছেন। একজন দুর্নীতির দায়ে আদালতের রায়ে দীর্ঘদিন থেকে  কারাদ- আর অন্যজন একই কারণে দ-িত হওয়ায় কারাদ-ের ভয়ে লন্ডনে অবস্থান করছেনষ অর্থাৎ বিএনপিতে এখন চলছে মাইনাস টু ফর্মুলা। যাকে বলা যায় খালেদা-তারেকবিহীন বিএনপি। আপাতদৃষ্টিতে পরিস্থিতি বলছে শিগগিরই তাদের পূর্ব অবস্থায় ফিরে আসার আর কোনো সম্ভাবনা নেই। এছাড়া বর্তমান  বিএনপির অবস্থা এখন এমন পর্যায়ে নেমেছে যে দলটি এখন সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের সংলাপে যোগ দিয়েছে। এখানে নেতৃত্বটা ড.  কামাল হোসেনের কাছে বিএনপির কাছে নয়। অথচ এখনো বিএনপিকে একটি বড় রাজনৈতিক দল হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। বিএনপি এখানে অন্যান্য দলের মতোই একটি শরিক দল মাত্র।  এককভাবে  খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের রায়ের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করার মতো শক্তি না থাকায় ঐক্যজোটের শরণাপন্ন হয়েছে বিএনপি। খালেদা-তারেকবিহীন বিএনপির এই হলো বর্তমান অবস্থা।

লেখক: প্রবাসী সাংবাদিক

সংবাদটি শেয়ার করুন

মতামত বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত