স্ত্রীকে ডাবল সেঞ্চুরি উৎসর্গ করলেন মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১২ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:৫৬

প্রথম বাংলাদেশি হিসাবে দুইটি ডাবল সেঞ্চুরি করার গৌরব অর্জন করলেন মুশফিকুর রহিম। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে মিরপুর টেস্টে আজ ২১৯ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। মুশফিক শুধু ডাবল সেঞ্চুরিই নয়, প্রথম বাংলাদেশি হিসাবে দীর্ঘসময় উইকেটে থাকার রেকর্ডও গড়েছেন। মুশফিকুর রহিম তার এই ডাবল সেঞ্চুরির ইনিংসটি নিজের স্ত্রীকে উৎসর্গ করেছেন। সোমবার ম্যাচের দ্বিতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে মুশফিকুর রহিম এ কথা বলেন।

দীর্ঘদিন সাদা পোশাকে বড় ইনিংস খেলতে পারছিলেন না মুশফিক। টানা ২১ মাস ছিলেন সেঞ্চুরি বঞ্চিত। মিরপুর টেস্টের আগে সর্বশেষ দশ ইনিংসে মাত্র একটিতে পার করতে পেরেছিলেন ৫০ এর ঘর। অবশেষে মিরপুর টেস্টে আক্ষেপ ঘুচালেন মুশফিক। রবিবার ম্যাচের প্রথম দিন তিনি তুলে নেন টেস্ট ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ সেঞ্চুরি। আর দ্বিতীয় দিন করেন ডাবল সেঞ্চুরি। ইনিংস শেষে ৪২১ বলে ২১৯ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে নিজের সেরা ইনিংস নিয়ে মুশফিক বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেটে যে খুব একটা খারাপ অবস্থানে ছিলাম তা না। মোটামুটি রানে ছিলাম। বিশ্বাস ছিল ভাগ্য সঙ্গে থাকলে বড় ইনিংস খেলতে পারব। কিছু সমস্যা ছিল। আজকের ইনিংসের মাধ্যমে সেই সমস্যাগুলোরও সমাধান হয়েছে। তাছাড়া মিরপুরের উইকেটে লম্বা ইনিংস খেলা খুব একটা সহজ নয়। কারণ এই উইকেট কতটা আনপ্রেডিক্টেবল সেটা সবাই জানে। আর উদযাপনের কথা বললে,এই ডাবল সেঞ্চুরি আমি আমার স্ত্রীকে উৎসর্গ করতে চাই। আমার জন্য খুব বিশেষ একটা ইনিংস। কারণ আমাকে আমার স্ত্রী অনেক সাহায্য করেছে। প্রথম দিন শেষেও সে আমাকে অনেকভাবে উৎসাহ দিয়েছে। তাছাড়া মিরপুরে এটা আমার প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি। সবমিলিয়ে এটা আমার ক্ষেত্রে বড় একটা মাইলফলক ছিল। চেষ্টা থাকবে নিয়মিত এভাবেই রানে থাকা।’

সোমবার মিরপুরে ডাবল সেঞ্চুরি করার আগেই মুশফিক ভেবে রেখেছিলেন ডাবল হলে স্ত্রীকে উৎসর্গ করবেন। সংবাদ সম্মেলনে হাসি মুখে সে কথাই জানান বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভরসার প্রতীক।

‘আমি আগে থেকেই ভেবে রেখেছিলাম যদি ডাবল সেঞ্চুরি করতে পারি তাহলে অবশ্যই এটা আমি আমার স্ত্রীকে উৎসর্গ করব। কারণ আমার ক্যারিয়ারে ওর অবদানটা অনেক বড়। আপনারা জানেন যে, অনেক সময় আমি মন খারাপ করে থাকি। কিন্তু এখন সে থাকায় অনেক বড় সাহায্য হয়। এই মন খারাপ থেকে নিজেকে বের করে আনতে পেরেছি। আর বাচ্চা হওয়ার পর থেকে মন খারাপ করাটা আরো কমেছে। আপনি যদি দেখেন যে, আমার ফোনের ওয়াল পেপারেও তার ছবি থাকে (হাসি)। কারণ ওর ছবি দেখলে আমার মন এমনিই ভালো হয়ে যায়। তাই এই ডাবল সেঞ্চুরি ওকেই উৎসর্গ করলাম।’

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে সিলেটে বাজেভাবে হেরেছে বাংলাদেশ। তাই সিরিজ হার এড়াতে হলে মিরপুর টেস্টে বাংলাদেশের জয়ের কোনো বিকল্প নেই। তাই এই ম্যাচে প্রথম ইনিংস বড় করতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলেন টাইগাররা। ম্যাচের আগে অধিনায়ক মাহমুদউল্লা রিয়াদও জানিয়েছিলেন যে, কৌশলগত পরিবর্তন আনবে বাংলাদেশ। মিরপুরে মাঠে সেটারেই প্রতিফলন দেখালেন ব্যাটসম্যানরা। শুরুর দিন দ্রুত উইকেট হারালেও পরে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। আর ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় প্রথম ইনিংসে ৫২২ রানের লম্বা ইনিংস খেলেছে টাইগাররা।

এই প্রসঙ্গে মুশফিক বলেন, ‘প্রথম ইনিংসে নামার আগেই আমাদের চিন্তা ছিল কীভাবে ইনিংসটা বড় করা যায়। আর উইকেটের চরিত্রও আস্তে আস্তে বদলাচ্ছিল। কাল আরো বদলাবে। আজ পেসাররা সুযোগ পেয়েছে, কাল স্পিনাররা পাবে। তাই আগে থেকেই ভাবনা ছিল যে, আমরা যেভাবেই হোক ইনিংস বড় করব। যেন দুই ইনিংসে আমাদের ব্যাট করতে না হয়।’

২০১৩ সালে নিজের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন মুশফিক। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেই ইনিংসে বরাবর ২০০ করে সাজঘরে ফেরেন তিনি। আর গতকাল ২১৯ রান করে অপরাজিত থাকেন তিনি। এই দুই ইনিংসের মধ্যে কোনটিকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন মুশফিক? জবাবে মুশফিক বলেন,‘আমার ডাবল সেঞ্চুরি দুইটার তুলনা করলে দুইটাই বিশেষ গুরুত্ব পায়। তবে প্রথমটার তো অবশ্যই বেশি গুরুত্ব থাকে।’

মুমিনুল হককে নিয়ে মুশফিকুর রহিম বলেন, ‘সেশন অনুযায়ী যদি বলি প্রতিটি সেশনের শুরুটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল। বিশেষ করে প্রথম সেশনটা বেশি কঠিন ছিল আমাদের জন্য। সেই সময়ে ওদের সেরা বোলাররাই শুরু করেছিল। দিন যখন শুরু হয় তখন পেসাররা, সেরা বোলাররাই শুরু করে। দিনের শুরুতে ৮-১০ ওভার দেখে খেলা খুব গুরুত্বপূর্ণ। এর অর্থ কিন্তু এই না যে, সেই সময়ে রান করা সম্ভব না। ইতিবাচক থাকতে হবে, একই সঙ্গে আমার অফ স্ট্যাম্প কোথায় সেটাও জানা জরুরি। সেদিক থেকে আমি ভাগ্যবান যে মুমিনুলের মতো একটা পার্টনার পেয়েছিলাম। ও যেভাবে খেলেছে, যেভাবে স্কোর বোর্ড সচল রেখেছে রানের চাপ একদমই ছিল না। এখানে শুধু ব্যাটিং করলেই হবে না, ওদের দুইবার অলআউটও করতে হবে। তার জন্য আমাদের কিছুটা সময়ও লাগবে। মুমিনুল যেভাবে ব্যাটিং করেছে সেটা আমার জন্য বাড়তি সুবিধা ছিল। তার জন্য ওকেও কৃতিত্ব দিতে হবে।’

(ঢাকাটাইমস/১২ নভেম্বর/এইচএ/এসইউএল)

সংবাদটি শেয়ার করুন

খেলাধুলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত