প্রশাসনে একীভূত হলো ইকোনমিক ক্যাডার

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১৮:৩৫

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের প্রশাসন ক্যাডারে একীভূত হয়েছে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস ইকোনমিক ক্যাডার। মঙ্গলবার এক গেজেটে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত আদেশ জারি করেছে। মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহমেদ স্বাক্ষরিত এই গেজেট গতকাল থেকেই কার্যকর হয়েছে।

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) এবং বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (ইকোনমিক) ক্যাডারের সব পদ ও জনবল এখন থেকে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) ক্যাডারের পদ ও জনবল হবে বলে গেজেটে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের সমন্বিত মেধা তালিকা অনুসারে পুলে যোগদানকারী বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (ইকোনমিক) ক্যাডারের কর্মকর্তা এবং বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (ইকোনমিক) ক্যাডারের কর্মকর্তাদের  স্ব স্ব ব্যাচের বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) ক্যাডারের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নির্ধারিত হবে।

এ উপলক্ষে সরকার গঠিত আন্তঃ মন্ত্রণালয় কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী একীভূত বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (ইকোনমিক) ক্যাডারের কর্মকর্তাদের সমপদে পদায়ন জ্যেষ্ঠতা নির্ধারণ এবং একীভূতকরণের সব প্রক্রিয়ার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন সম্পন্ন হবে।

গেজেটের ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, ‘এই আদেশ পূর্ণাঙ্গরূপে বাস্তবায়িত না হওয়া পর্যন্ত কোনো ব্যাখ্যা অথবা এই আদেশে উল্লিখিত হয়নি এই রূপ কোনো বিষয়ে আদেশের প্রয়োজন হলে সরকার ব্যাখ্যা অথবা প্রয়োজনীয় আদেশ দিতে পারবে।’

মন্ত্রণালয়ের সূত্র মতে, উভয় ক্যাডারের কর্মকর্তারা সরকারের নীতি, উন্নয়ন পরিকল্পনা, প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে জড়িত। তাদের কাজের প্রকৃতি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে প্রায় একই রকম এবং পারস্পরিক নির্ভরশীল। এসব বিবেচনায় দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে দুই ক্যাডার একীভূত করা হলো। বর্তমানে ইকোনমিক ক্যাডারের ৪৬৪ জন কর্মকর্তা রয়েছেন।

এর মধ্যে ২৩১ জনই সহকারী প্রধান ও সিনিয়র সহকারী প্রধান। যাদের সহজেই পদবি পরিবর্তনের মাধ্যমে সহকারী সচিব, সহকারী কমিশনার এবং সিনিয়র সহকারী সচিব ও সিনিয়র সহকারী কমিশনার পদে পদায়ন করা সম্ভব। এ ছাড়া ৮৪ জন উপপ্রধান এবং যুগ্মপ্রধান ও বিভাগীয় প্রধান পদে মোট ৫১ জন কর্মকর্তা কর্মরত। এসব কর্মকর্তাকে এসএসবি’র সুপারিশের মাধ্যমে উপপ্রধানকে উপসচিব, যুগ্ম প্রধানকে যুগ্ম সচিব, বিভাগীয় প্রধানকে অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদায়ন করা যেতে পারে।

প্রশাসন ক্যাডারের চার হাজার ৮৪৫ জন কর্মকর্তার সঙ্গে ইকোনমিক ক্যাডারের এসব কর্মকর্তা একীভূত হলে এর সংখ্যা দাঁড়াবে পাঁচ হাজার ৩০৯ জনে। ফলে পদোন্নতির ক্ষেত্রে কোনো ধরনের নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না। এজন্য কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

সূত্র আরও জানায়, দুই ক্যাডার এখন একীভূত হওয়ায় বিসিএস প্রশাসন ক্যাডার পুনর্গঠন করতে হবে। প্রশাসন ও ইকোনমিক ক্যাডারের সব পদই প্রস্তাবিত পুনর্গঠিত ক্যাডার পদে এবং সবাই এর সদস্য হিসেবে গণ্য হবেন। উভয় ক্যাডারের কর্মকর্তাদের ব্যাচভিত্তিক জ্যেষ্ঠতা নির্ধারণ করা হবে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের (পিএসসি) সমন্বিত মেধা তালিকা অনুযায়ী। একীভূত ক্যাডারের কর্মকর্তাদের তাদের যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা ও প্রশিক্ষণের ভিত্তিতে সচিবালয় ও মাঠপর্যায়ে নিয়োগ করা হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইকোনমিক ক্যাডারের এক কর্মকর্তা জানান, পদোন্নতি, পদের নাম পরিবর্তন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধিসহ কিছু দাবি নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে আন্দোলন করে আসছিলেন বিসিএস ইকোনমিক ক্যাডারের কর্মকর্তারা। ১৯৯৬ সাল থেকে এ দাবি জোরালো হলেও তা পূরণ হচ্ছিল না। এখন এটি পূরণ হলো।

এ নিয়ে প্রশাসন ক্যাডারের সঙ্গে এক ধরনের মনস্তাত্ত্বিক দূরত্ব চলছিল। উভয় ক্যাডার একীভূত হওয়ায় অনেক কাজে সুবিধা হবে। এতে দ্বিমত হওয়ার কোনো কারণ নেই। একসময় সচিবালয় ক্যাডার আলাদা ছিল। ফলে সচিবালয় ক্যাডারদের মধ্যে অহেতুক একটি দূরত্ব থাকত। কে থাকবে সচিবালয়ে আর কে থাকবে মাঠে, তা নিয়ে বিরোধ হতো। এরপর সচিবালয় ও প্রশাসন ক্যাডার একীভূত হওয়ায় অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে চলছে সামগ্রিক কার্যক্রম।

ঢাকাটাইমস/১৩নভেম্বর/এমএম/জেবি/ডিএম

সংবাদটি শেয়ার করুন

প্রশাসন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত