তাদের ভোলেনি বিএনপি

বোরহান উদ্দিন
 | প্রকাশিত : ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ১৩:১০

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় মৃত্যুদ- পাওয়া আবদুস সালাম পিন্টুর পক্ষে বিএনপির মনোনয়ন ফরম কেনা হয়েছে। একই মামলায় যাবজ্জীবন কারাদ- পাওয়া সাবেক সংসদ সদস্য কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসাইন কায়কোবাদের জন্যও নেয়া হয়েছে ফরম।

এই দুই নেতার পাশাপাশি একই আসনে তাদের স্বজনের নামেও মনোনয়ন ফরম তোলা হয়েছে। যদি কোনো কারণে তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়, তাহলে ধানের শীষ দেয়া হতে পারে তাদের।

কায়কোবাদ একাধিকবার নির্বাচন করেছেন কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসন থেকে। তিনি গত কয়েক বছর ধরে বিদেশে। সেখানে তার পাশাপাশি ফরম নেয়া হয়েছে তিন ভাই কাজী শাহ মুজিবুল হক, কাজী শাহ আরেফিন আহমেদ ও কাজী শাহ জুনুন আহমেদের জন্যও।

পিন্টুর নামেও ফরম তোলা হয়েছে টাঙ্গাইল-২ (ভুয়াপুর-গোপালপুর) আসনের জন্য। একই আসন থেকে ফরম তুলেছেন তার দুই ভাই সুলতান সালাউদ্দিন টুকু ও শামসুল আলম তোফা। টুকু ও তোফা টাঙ্গাইল-৫ (সদর) আসনের জন্যও ফরম নিয়েছেন।

একই মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরের স্ত্রী তাহমিনা জামানের জন্য ফরম নেয়া হয়েছে নেত্রকোণা-৪ (মদন, মোহনগঞ্জ, খালিয়াজুড়ি) আসনের জন্য। ২০০১ সালে বাবর এই আসন থেকেই সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

বাবরের ছেলে লাবিব ইবনে জামান এই ফরম নেন। সঙ্গে ছিলেন বাবর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী থাকাকালে তার এপিএস মির্জা হায়দার আলী এবং তিন উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা।

বিএনপির নেতারা জানান, এসব নেতার পরিবারেই মনোনয়ন নিশ্চিত করতে চান তারা। কোনো কারণে মূল নেতা নির্বাচন করতে না পারলে পরিবারেই দেয়া হবে মনোনয়ন। সেজন্য এক ধরনের ‘ব্যাকআপ’ রাখা হয়েছে।

গত ফেব্রুয়ারি থেকে কারাগারে থাকা বিএনপির চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ^াসের জন্য ফরম নেয়া হয়েছে পাবনা-৫ আসনের জন্য। জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুস সামাদ খান মন্টু ও সেক্রেটারি হাবিবুর রহমান তোতা এই ফরম পূরণ করে জমাও দিয়েছেন।
ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের সঙ্গে বৈঠক করে সরকারকে উৎখাতে ষড়যন্ত্রের অভিযোগে আটক যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর নামেও ফরম তোলা হয়েছে। তাকে ভোটে দাঁড় করানো হতে পারে চট্টগ্রাম-৪ আসনের (সীতাকু- পাহাড়তলী-আকবর শাহ আংশিক) জন্য। তার ভাই ইসহাক কাদের চৌধুরীও এই আসন থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেলের জন্য ফরম নেয়া হয়েছে ঢাকা-৮ আসনের জন্য।
ফরম নেয়া হয়েছে বিদেশে অবস্থানকারীদের জন্যও

ফরম নেয়া হয়েছে বিদেশে অবস্থানকারী একাধিক নেতার নামেও। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকারী ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার জন্য ঢাকা-৬ থেকে মনোনয়ন কিনেছেন তার ছেলে ইশরাক হোসেন।

যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করা সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ওসমান ফারুকের জন্য কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের ফরম নিয়েছেন করিমগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি দুলাল শিকদার।

চাঁদপুর-১ (কচুয়া) আসনের জন্য ফরম কেনা হয়েছে সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আ ন ম এহসানুল হক মিলনের পক্ষে। তার স্ত্রী ও মহিলা দলের সাবেক সহ-সভানেত্রী নাজমুন্নাহার বেবীও নিয়েছেন একই আসনের ফরম।

মালয়েশিয়ায় অবস্থানকারী ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি এম এ কাইয়ূমের জন্য ঢাকা-১১ আসন থেকে ফরম নিয়েছেন বিএনপির নেতা শামসুল হুদা।
ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশ মামলায় নির্দোষ ঘোষিত স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন আহমেদের নামে ফরম তোলা হচ্ছে কক্সবাজার-১ আসনের জন্য। তার স্ত্রী হাসিনা আহমেদ এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা টাইমসের জন্য। জানিয়েছেন তার নিজের নামেও একই আসন থেকে ফরম তুলবেন।

সোমবার থেকে একাদশ সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম বিতরণ করছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চলবে এই কার্যক্রম। প্রথম দিনে এক হাজার ৩২৬টি মনোনয়ন কিনেছেন মনোনয়নপ্রত্যাশীরা। দ্বিতীয় দিনে কেনা হয়েছে এক হাজার ২১৩টি।

এই ফরম বিক্রি উপলক্ষে বিএনপি এক ধরনের শোডাউন করেছে। সারাদেশ থেকে আসা হাজার হাজার নেতাকর্মী নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে দিনভর ভিড় করেছিলেন গত দুই দিন। এই ফরম বিক্রি ও জমা চলবে আরও দুই দিন।

ঢাকা টাইমস/১৪ নভেম্বর/বিইউ/জেবি

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত