‘হাসিনা: অ্যা ডটার’স টেল’

পর্দায় বাস্তবের জীবনগাথা

দীপান্বিতা রায়
| আপডেট : ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২২:৫৬ | প্রকাশিত : ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ২২:৪৬

মুক্তি পাওয়ার পর থেকেই রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে এরই মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবনভিত্তিক আলোচিত ডকুফিল্ম হাসিনা অ্যা ডটার’স টেল। ৭০ মিনিটের ডকুফিল্মটিতে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা আর শেখ রেহানার আবেগঘন কণ্ঠ আর দৃশ্যায়নে ফুটে উঠেছে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা-পরবর্তী তাদের নির্বাসিত জীবনের কথা। সেই দুঃসহ দিনগুলোর বেদনার্ত মুহূর্তগুলো নাড়া দিয়েছে দর্শকমনে, ঝরিয়েছে অশ্রু।

ছবি দেখে সাধারণ দর্শকের পাশাপাশি দেশের মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, বিশিষ্টজন ও ছবির কলাকুশলীরা বলছেন, ডকুফিল্মটিতে প্রধানমন্ত্রী নয়, ব্যক্তি শেখ হাসিনা ও তার জীবনের চিত্রই ফুটে উঠেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর স্টার সিনেপ্লেক্সে ছবিটির প্রিমিয়ার শোতে মন্ত্রিপরিষদের সদস্যসহ বুদ্ধিজীবী, শিল্পী ও বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। শুক্রবারও প্রেক্ষাগৃহটি ভরে উঠেছিল আমন্ত্রিত অতিথিদের সমাগমে।

ডকুফিল্মটিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা তাদের জীবনের নানা উত্থান-পতনের কথা বলেছেন। স্টার সিনেপ্লেক্স ছাড়াও রাজধানীর মধুমিতা সিনেমা হল, যমুনা ফিউচার পার্কের ব্লকবাস্টার সিনেমাস ও চট্টগ্রামের সিলভার স্ক্রিনে একযোগে মুক্তি পেয়েছে ডকুফিল্মটি।

শুক্রবার শো শেষে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘দেশনেত্রী হিসেবে শুধু নয়, ডকুফিল্মটিতে শেখ হাসিনাকে উপস্থাপন করা হয়েছে একাধারে মমতাময়ী মা, আদর্শ স্ত্রী, বোন, যোগ্য পিতার যোগ্য সন্তান, জনগণের নেত্রী রূপে। এ তার জীবনের উত্থান-পতনে গাঁথা আত্মকথন।’

তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, ‘এই ডকুফিল্মটি অন্তরের অন্তস্তলে নাড়া দেয়। জাতির পিতাকে হারানো এবং পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার যে সংগ্রাম, দুঃখ-দুর্দশার চিত্র সেই প্রকৃত ইতিহাস উঠে এসেছে এই ফিল্মে।’

ছবিটির পরিচালক রেজাউর রহমান খান পিপলু বলেন, ‘এ ডকুফিল্মটি আমাদের দীর্ঘ পাঁচ বছরের সাধনার ফসল। এই সিনেমায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নয়, বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার সাধারণ জীবনযাপনের অসাধারণ কিছু মুহূর্ত তুলে ধরা হয়েছে। এখানে তার জীবনের উত্থান-পতন একান্তই নিজস্ব অনুভবে, নিজস্ব দৃষ্টিকোণ থেকে তুলে ধরা হয়েছে। এটা তৈরি করা আমার জীবনে একটি স্বপ্ন পূরণের মতো ব্যাপার।’

হাসিনা: অ্যা ডটারস টেল ডকুফিল্মের আবহ সংগীতের কাজ করেছেন কলকাতার দেবজ্যোতি মিশ্র। চিত্রগ্রাহক হিসেবে ছিলেন সাদিক আহমেদ এবং সম্পাদনা করেছেন নবনীতা সেন।

গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) ও অ্যাপলবক্স ফিল্মসের যৌথ প্রচেষ্টায় নির্মিত হয়েছে ডকুফিল্মটি। এটি নির্মাণে দুই বছরের গবেষণা ও তিন বছরের নিরলস পরিশ্রম দিয়েছেন এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাই।

ঢাকাটাইমস/১৬নভেম্বর/ডিআর/ডিএম

সংবাদটি শেয়ার করুন

বিনোদন বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত