ভোট বর্জন ভুল ছিল: ড. কামাল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকাটইমস
 | প্রকাশিত : ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ১৭:৪২

২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন বর্জন করা ভুল ছিল বলে জানিয়েছেন বিএনপিকে নিয়ে গঠন করা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা ড. কামাল হোসেন। বলেছেন, আর বর্জনের পথে যাওয়া যাবে না। 

শনিবার সুপ্রিমকোর্ট চত্বরে জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত সমাবেশে এই কথা বলেন ড. কামাল। সারা দেশের বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা এতে অংশ নেন। সমাবেশের প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবি পূরণ না হওয়ায় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জনকারীদের মধ্যে ছিল ড. কামালের গণফোরামও। বিএনপি-জামায়াত জোট নির্বাচনে না আসায় সে সময় ভোটে আসেনি ঐক্যফ্রন্টের শরিক জেএসডি এবং সিপিবির জোটে থাকা বাম দলগুলোও।

তবে নির্বাচনকালীন সরকারের দাবি পূরণ না হওয়ার পরও এবার ভোটে আসছে গতবারের বর্জনকারী দলগুলো। আর বিএনপি, জেএসডি, নাগরিক ঐক্য, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ এবং জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে গঠন করা ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে এই ঘোষণা দেন ড. কামালই।

ফ্রন্ট নেতা বলন, ‘একবার বয়কট করে ভুল করেছি। আর নির্বাচন বয়কট করা যাবে না। শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থেকে লড়ে যেতে হবে। নির্বাচনে ওরা (আওয়ামী লীগ) যত রকম ১০ নম্বরি করার করুক, আমরা ভোট দেব, ভোটে থাকব। হাজারে হাজারে ভোট দেব। সবাই ভোট কেন্দ্রে থাকব। আর যারা টাকা পয়সা দিয়ে এলাকায় ভোট করতে চায় তাদের বয়কট করতে হবে।’

২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ দেশের মানুষকে ভোটের অধিকার থেকে বঞ্চিত করে ক্ষমতায় এসেছিল বলে দাবি করেন ড. কামাল। দাবি করেন, সে সময় আওয়ামী লীগ সপ্রিম কোর্টে বলেছিল দ্রুত আরেকটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

‘সরকার কি এতই হালকা হয়ে গেছে যে কোর্টে দাঁড়িয়ে এ ধরনের কথা বলতে পারে? দ্রুত মানে কি পাঁচ বছর? এসময় ভাঁওতাবাজিতে মেডেল থাকলে আওয়ামী লীগকে দেওয়া উচিত।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আগামী সংসদ নির্বাচন এক শ্রেণির লোক বানচালের চেষ্টা করছে। তাদেরকে জাতি ক্ষমা করবে না।’

আওয়ামী লীগ সরকার বর্তমান নির্বাচন কমিশন এবং উচ্চ আদালতকে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে অভিযোগ করে ফখরুল বলেন, ‘যদি আপনারা চান একটি স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা থাকুক, তাহলে এর পরিবর্তন আনতে হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেন, ‘যত ষড়যন্ত্রই হোক আমরা ভোটে আছি এবং শেষদিন পর্যন্ত থাকব। আমার ভোট আমি দেব, লড়াই করে ভোট দেব।’

‘বিএনপি যাতে নির্বাচনে না থাকে সেজন্য অনেক ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। আমাদের দলীয় ফরম বিক্রির মধ্যে ছাত্রলীগ, যুবলীগের নেতাকর্মী ঢুকে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিকে নষ্ট করার ষড়যন্ত্র করেছে।’

বগুড়া আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোখলেসুর রহমান বলেন, ‘আমরা আপনাদের কাছ থেকে নির্দেশনা নিয়ে যেতে চাই শেষ পর্যন্ত ভোটের মাঠে থাকার। অনেক ষড়যন্ত্র-নির্যাতন হবে, তবু নির্বাচনের মাঠ ছেড়ে দেব না। আমাদের শেষ পর্যন্ত প্রতিটি কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে, যাতে আমাদের বিজয় কেউ কেড়ে নিতে না পারে।’

চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সভাপতি নিজাম উদ্দিন চৌধুরী নিজের মনোনয়নের দাবি তোলেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য জমিরউদ্দিন সরকার, আইনজীবী খন্দকার মহবুব হোসেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায়, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও গণফোরামের কার্যকারী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী প্রমুখ এ সময় বক্তব্য রাখেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

রাজনীতি বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত