যশোরে মুফতি ওয়াক্কাসের গাড়ি ভাঙচুর

যশোর প্রতিনিধি, ঢাকাটাইমস
 | প্রকাশিত : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৮, ২০:১১

যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসনে ধানের শীষের মনোনীত প্রার্থী ২০ দলীয় জোটের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের (একাংশ) সভাপতি মুফতি মোহাম্মদ ওয়াক্কাসের গাড়িতে হামলা-ভাঙচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মণিরামপুর সরকারি কলেজের সামনে প্রধান সড়কে এ হামলা হয়।
এই ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিস্তার ফারুককে নিজ বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। নিস্তার ফারুক মণিরামপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি শহীদ ইকবাল হোসেনের ভাই। শহীদ ইকবালও এই আসনে ধানের শীষের প্রাথমিক মনোনয়ন পেয়েছিলেন।

মণিরামপুর থানার ওসি সহিদুল ইসলাম জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিস্তার ফারুককে আটকের তথ্য নিশ্চিত করেন। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয় বলে সদর ইউনিয়ন পরিষদের সচিব দুর্গাপদ কু-ু জানিয়েছেন।

গাড়িটিতে মুফতি ওয়াক্কাসের ছোট ছেলে মুফতি হুসাইন ও মণিরামপুর উপজেলা জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি মাওলানা আব্দুল আজিজসহ ওয়াক্কাসের অনুসারীরা ছিলেন। তারা ওয়াক্কাসকে রিসিভ করতে যশোর বিমানবন্দরে যাচ্ছিলেন। মুফতি ওয়াক্কাসের বিমানযোগে দুপুরে ঢাকা থেকে যশোরে ফেরার কথা।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মণিরামপুর বাজারের দিক থেকে একটি কালো মাইক্রোবাস যশোরের দিকে যাচ্ছিল। মাইক্রোবাসটি মণিরামপুর সরকারি কলেজ মোড়ে পৌঁছুলে সেখানে ওঁৎ পেতে থাকা ৭-৮ যুবক রড নিয়ে অতর্কিতে হামলা করে গাড়িতে। তাদের হাতে গাড়িটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সেটি দ্রত সরে যেতে সক্ষম হয়। তবে এই ঘটনায় কারো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।  

মণিরামপুর থানার ওসি সহিদুল ইসলাম বলেন, হামলার ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিস্তার ফারুককে থানায় আনা হয়।
মুফতি ওয়াক্কাসের ছেলে মুফতি আব্দুর রশীদ  জানান,  দুর্বৃত্তরা লোহার রড ও রামদা নিয়ে অতর্কিতে হামলা চালিয়ে গাড়ির গ্লাস ভাঙচুর করে। তবে, কারা এই হামলা করেছে, তা নিশ্চিতভাবে জানাতে পারেননি মুফতি আব্দুর রশিদ।

শনিবার রাতে বিরোধী জোটের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা মুফতি ওয়াক্কাসকে যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসনে ধানের শীষের প্রার্থী ঘোষণা করা হয়। এর আগে গত ২৭ নভেম্বর ভোর রাতে বিএনপির পক্ষ থেকে মুফতি ওয়াক্কাসকে মনোনয়নের প্রাথমিক চিঠি দেয়া হয়। এরপর বিএনপি নেতা শহীদ ইকবালকেও একই চিঠি দিয়েছিল দলটি। শেষ পর্যন্ত মুফতি ওয়াক্কাসকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেয়ায় হতাশ হন মণিরামপুরের বিএনপির নেতাকর্মীরা।

(ঢাকাটাইমস/৯ডিসেম্বর/প্রতিনিধি/এলএ)

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

শিরোনাম :