শাহ মোয়াজ্জেমের বহরে হামলার আসামি চারশ বিএনপিকর্মী

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি
 | প্রকাশিত : ১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৭:৩৯

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে বিএনপির প্রার্থী শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় দলটির ৪০১ নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে নাম উল্লেখ করা হয়েছে আড়াইশ জনের। বাকি এক থেকে দেড়শ জনকে অজ্ঞাত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে মামলায়।

রবিবার রাত ১১ টায় সিরাজদিখান থানার উপপরিদর্শক আশরাফুল বাদী হয়ে এই মামলা করেন। মঙ্গলবার বিষয়টি জানাজানি হয়। ঘটনাস্থলে পুলিশ না গিয়েও পাঁচ জন পুলিশ সদস্য আহত হওয়ার কথাও জানিয়েছে বাহিনীটি।

সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলা নিয়ে গঠিত সংসদীয় আসনে শাহ মোয়াজ্জেম ছাড়াও বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। গত শনিবার বিকাল চারটার দিকে শাহ মোয়াজ্জেম এলাকায় গেলে কুচিয়ামোড়া এলাকায় তার গাড়িবহরে হামলা হয়। আবদুল্লাহর সমর্থকরাই এই হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ আছে।

এই ঘটনায় মামলা করায় অবশ্য সমালোচনা করছেন শাহ মোয়াজ্জেমের অনুসারী আব্দুল কুদ্দুছ ধীরন। বলেন, ‘এই ঘটনায় পুলিশ তাদের পাঁচ জন সদস্য আহত হওয়ার দাবি করেছে। কিন্তু সেখানে তো পুলিশ ছিল না। প্রায় ২/৩ ঘণ্টা পর সন্ধ্যায় ফেরার পথে পুলিশের সঙ্গে আমাদের দেখা হয়। তাহলে তারা আহত হলেন কীভাবে? এই মামলাটি করা হয়েছে যেন আমরা ভোটের মাঠে থাকতে না পারি।’

তবে সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা দুলাল জানান, শনিবার সন্ধ্যায় পুলিশের পাঁচ জন সদস্য তার হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যান। তবে তাদের শরীরে মারাত্মক কোনো যখম ছিল না। শুনেছি তাদের  ইট-পাটকেলের আঘাত লেগেছিল।’

সিরাজদিখান থানার পরিদর্শক (প্রশাসন) ফরিদ উদ্দিন জানান, ৪ টা ১৫ মিনিট হতে ৬ টা ৫ মিনিট পর্যন্ত শাহ মোয়াজ্জেম ও মননোয়নবঞ্চিত আব্দুল্লাহর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ চলে। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে পুলিশের উপর তারা হামলা চালায় এবং ককটেল বিষ্ফোরণ ঘটায়। ঘটনাস্থল থেকে ককটেলের বিষ্ফোরিত নয়টি অংশ ও কাঁচের গুড়া পাওয়া যায়।’

‘এ সময় আমাদের পাঁচ পুলিশ সদস্য আহত হয়। তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদন বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিনোদন খেলাধুলা
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত